বুধবার ১৩ নভেম্বর ২০১৯


শেষ ভালোর আশায় বিএনপি


আমাদের কুমিল্লা .কম :
21.12.2016

বিদায়ের আগে একটি ভালো নির্বাচন করার প্রয়াস নিতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিবউদ্দীন আহমদের কাছে অনুরোধ জানিয়েছে বিএনপি। মঙ্গলবার বিকেলে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খানের নেতৃত্বে বিএনপি’র একটি প্রতিনিধি দল শেরে-বাংলানগরে সিইসির সঙ্গে সাক্ষাৎ করে এ দাবি জানায়। এ সময় খালেদা জিয়াকে নারায়ণগঞ্জ যেতে না দেওয়ার বিষয়েও ইসির কাছে নালিশ করেছে প্রতিনিধি দলটি।

বৈঠক শেষে নজরুল ইসলাম খান সাংবাদিকদের বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জে এখন পর্যন্ত প্রচারণায় কোনো বাধা দেওয়া হয়নি। তবে যেকোনো সময়ই পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে। আমরা আবারও সিইসির কাছে নাসিক নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের জন্য বলেছি। কমিশন সে ব্যবস্থা করছে না। তবে ভোটের পরিবেশ ভালো রাখতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য প্রয়োজনে আরও বাড়ানোর আশ্বাস দিয়েছেন সিইসি।’

বিদায়ের আগে একটা ভালো নির্বাচন করার অনুরোধও সিইসির কাছে রাখা হয়েছে বলে জানান তিনি।

নজরুল ইসলাম বলেন, ‘বর্তমান কমিশনের অধীনে কোনো নির্বাচনেই ভালো হয়নি। তাদের প্রতি আমাদের আস্থা নেই কিন্তু দেশে একটিই কমিশন। এজন্য আসতে হয়। আশায় আছি শেষ নির্বাচনটা ভালো করার ব্যবস্থা নেবে তারা।’

সিইসিও ‘সুষ্ঠু নির্বাচনের আপ্রাণ চেষ্টার’ কথা জানিয়েছেন বলে উল্লেখ করেন বিএনপি’র এই জ্যেষ্ঠ নেতা।

ভোটের আগে বহিরাগতদের নির্বাচনী এলাকা ছাড়ার বিষয়টি বিএনপির জানা ছিল না বলে মন্তব্য করেন নজরুল ইসলাম খান। নির্বাচনবিধি ও পরিপত্র অনুযায়ী, ভোটের ৩২ ঘণ্টা আগে প্রচারণা বন্ধ ও বহিরাগতদের ভোটের তিনদিন আগে নির্বাচনী এলাকা ছাড়ার নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।

বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া দলের প্রার্থীর পক্ষে শেষ সময়ে প্রচারে যেতে না পারার বিষয়টি প্রধান নির্বাচন কমিশনারের কাছেও উপস্থাপন করেছেন বলে জানান নজরুল ইসলাম খান।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমরা বিষয়টি সিইসিকে জানিয়েছি। তিনি (সিইসি) ব্যাখ্যা দিয়েছেন, আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে বহিরাগতদের নির্বাচনী এলাকা ছাড়ার বিষয়ে সার্কুলার জারি করা হয়। এবারও তাই হয়েছে।’ তবে এ ধরনের কোনো সার্কুলার বিএনপি প্রার্থী ও দলীয়ভাবে পাননি বলে দাবি করেন বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির এই সদস্য।

তিনি বলেন, ‘খালেদাকে প্রচার থেকে দূরে রাখতেই এ নির্দেশনা ছিল। আমরা ইসির এ ধরনের সার্কুলার সম্পর্কে জানি না। আইন ও বিধিতেও এ বিধান নেই।’ আগামীতে বিধি-নিষেধ আরো প্রচারের দাবি জানান নজরুল ইসলাম খান।