রবিবার ১৭ নভেম্বর ২০১৯
  • প্রচ্ছদ » sub lead 3 » আদর্শ সদর উপজেলা পরিষদ-উপনির্বাচন চলছে অনানুষ্ঠানিক প্রচার প্রচারণা


আদর্শ সদর উপজেলা পরিষদ-উপনির্বাচন চলছে অনানুষ্ঠানিক প্রচার প্রচারণা


আমাদের কুমিল্লা .কম :
17.02.2017

মাহফুজ নান্টু ।। কেউ ভোটারদের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করছেন, কেউ আবার মুঠোফোনে ক্ষুদে বার্তা পাঠিয়ে অবস্থান জানান দিচ্ছেন, কেউবা আবার দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে নির্বাচন বিষয়ে নানা রকম আলাপ আলোচনায় ব্যস্ত রয়েছেন। এভাবে অনানুষ্ঠানিকভাবে কুমিল্লা সদর উপজেলা পরিষদের উপ-নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীরা সময় পার করছেন।আগামীকাল ১৮ ফেব্রুয়ারী শনিবার প্রতীক বরাদ্দসহ নির্বাচনে প্রচার-প্রচারণামূলক বিধি নিষেধ সংক্রান্ত সভা শেষে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচার প্রচারণা শুরু করবেন।আগামী ৬ মার্চ এ উপজেলায় ভোটগ্রহণ করা হবে।
জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, আদর্শ সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহবায়ক অ্যাড. আমিনুল ইসলাম টুটুল, বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ও উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক রেজাউল কাইয়ুম, জাতীয় পার্টির (এরশাদ) প্রার্থী ওবায়দুল কবীর মোহন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী জামায়াতে ইসলামী কুমিল্লা মহানগর শাখার এসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি এ কে এম এমদাদুল হক মামুন।
নির্বাচন বিশ্লেষক ও উপজেলার সাধারণ ভোটাররা মনে করছেন আদর্শ সদর উপজেলার চেযারম্যান পদে উপ-নির্বাচনে ক্ষমতাসীন আ’লীগ ও বিএনপির প্রার্থীর মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে বলে মনে করছেন ।
নির্বাচনে জনমত তৈরীতে প্রচার-প্রচারণায় বেশ কৌশলি প্রার্থী ও তার সমর্থকরা। বিশেষ করে আ’লীগ ও বিএনপি নির্বাচন নিয়ে বেশ সরব রয়েছেন। নির্বাচনের প্রস্তুতির বিষয়ে আ’লীগ প্রার্থী এড.আমিনুল ইসলাম টুটুল জানান, নির্বাচন উপলক্ষে দলীয় নেতাবৃন্দের সমন্বয়ে কমিটি গঠন করা হয়েছে। আমি প্রার্থী হিসেবে ভোটারদের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎসহ মুঠো ফোনে ক্ষুদে বার্তা প্রেরণ করে নির্বাচনে প্রার্থীতার বিষয়ে জানান দিচ্ছি।কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দদের সাথে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলাপ আলোচনা করছি। আগামীকাল প্রতীক বরাদ্দের পর আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচার-প্রচারণা করবেন বলে জানান এড.টুটুল। তিনি আরো বলেন, আমার নির্বাচনী ইশতিহারে কিছু নতুন বিষয় অর্ন্তভুক্ত করেছি। যার মধ্যে উপজেলার বেকার তরুণ-যুবকদের মৌলিক প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা করবো। প্রশিক্ষনপ্রাপ্ত তরুণ-যুবকরা দেশে বিদেশে যেখানেই অবস্থান করুক না কেন তারা যেন স্বাবলম্বী থাকে এটাই আমার লক্ষ্য থাকবে। এছাড়া মাদকের ব্যাপারে আগেও আমার অবস্থান ছিল কঠোর ভবিষ্যতেও আরো কঠোর হবে।
এদিকে, কুমিল্লা সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপনির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক রেজাউল কাইয়ুমকে বিজয়ী করতে দলের মধ্যে বিরাজ করছে ঐক্যর সুর। দলীয় নেতাকর্মী প্রচার-প্রচারনাসহ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীকে বিজয়ী করতে মুখিয়ে আছে। নির্বাচন উপলক্ষে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। কোতয়ালী বিএনপির সভাপতি এড.আলী আক্কাসকে সভাপতি করে নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠন করা হয়েছে। যেখানে উপদেষ্টা হিসেবে রয়েছেন কুমিল্লা (দ:) জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হাজী আমিনুর রশীদ ইয়াছিন, সাবেক মেয়র মনিরুল হক সাক্কু, কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাক মিয়া, জেলা বিএনপির সহ সভাপতি হাজী ফজলুল হক ফজলু,মাহবুবুর রহমান ভুইয়া, জেলা বিএনপি নেতা আবদুর রউফ চৌধুরী ফারুক, ।
গতকাল নির্বাচন সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয়ে মুঠোফোনে বিএনপি প্রার্থী রেজাউল কাইয়ুম জানান,নির্বাচন নিয়ে দলীয় নীতি-নির্ধারকরা যথেষ্ঠ উৎসাহ উদ্দীপনায় রয়েছে। নির্বাচন কমিশন যদি অবাধ, সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে পারে আর ভোটাররা যদি প্রফুল্লচিত্তে ভোট দিতে পারে তাহলে বিজয় বিএনপির হবে। আর বিজয়ী হলে আমি উপজেলাবাসীর যে সমস্যাগুলো সাধারণ মানুষের জীবনযাপনে অন্তরায় সেগুলো আগে সমাধান করবো। পাশাপাশি বেকার যুবকদের জন্য নতুন কর্মসংস্থানের ব্যবস্থাসহ বাস্তবমূখী প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা করবো। বেকারত্ব দূর হলে সমাজের বহু সমস্যা এমনিতে সমাধান হয়ে যাবে,হ্রাস পাবে অপরাধ প্রবনতা। এছাড়াও বর্তমানে মাদকের বিরুদ্ধে সুস্পষ্ট ভাবে কিছু পদক্ষেপ নেব। আমার ঐকান্তিক প্রচেষ্টা থাকবে খুব কম সময়ের মধ্যে উপজেলাকে মাদকমুক্ত করা।
এদিকে নির্বাচনে জাপা মনোনীত প্রার্থী ওবায়দুল কবীর মোহন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী জামায়াতের কুমিল্লা মহানগর শাখার এসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি এ কে এম এমদাদুল হক মামুন স্ব-স্ব অবস্থান থেকে প্রচার-প্রচারনার জন্য অপেক্ষা করছেন বলে জানান তাদের দলীয় নেতা-কর্মীরা।