শনিবার ২৩ জানুয়ারী ২০২১
  • প্রচ্ছদ » sub lead 3 » এমন কোন শক্তি নেই কুমিল্লায় আ’লীগকে হারাতে পারবে – জাফর উল্লাহ


এমন কোন শক্তি নেই কুমিল্লায় আ’লীগকে হারাতে পারবে – জাফর উল্লাহ


আমাদের কুমিল্লা .কম :
15.03.2017

মাসুদ আলম।।
কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে সামনে রেখে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষে বিরোধ মিটে যাওয়ার দাবি করেছেন দলের সভাপতি ম-লীর সদস্য কাজী জাফর উল্লাহ। তিনি বলেন, এই নির্বাচনকে সামনে রেখে আমাদের বাহার ভাই, কামাল ভাই ও মুজিব ভাইসহ সকলে ঐক্যবদ্ধ হয়েছি। এমন কোন শক্তি নেই, যা আওয়ামী লীগকে হারাতে পারবে।
বুধবার বিকালে কুমিল্লা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে এক অনুষ্ঠানে জাফর উল্লাহ এসব কথা বলেন। আগামী ৩০ মার্চের ভোটকে সামনে রেখে প্রতীক বরাদ্দের পর এদিন দুপুর থেকেই সেখানে আনুষ্ঠানিক প্রচার শুরু হয়। আর আওয়ামীলীগের প্রার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমার পক্ষে প্রথম দিনের প্রচারেই পাশে দাঁড়ালেন কেন্দ্রীয় নেতারা।
কুমিল্লায় আওয়ামীলীগের দুই নেতা আফজল খান ও আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারের মধ্যে বিরোধ দীর্ঘদিনের। দুই নেতাই নানা সময় নির্বাচনে একে অপরের বিরোধিতা করেছেন এবং এ কারণেই কুমিল্লায় শক্ত অবস্থান থাকার পরও সেখানে আওয়ামী লীগ নির্বাচনে হেরেছে বলে ধারণা করা হয়।
২০১২ সালের নির্বাচনে বিএনপি নেতা মনিরুল হক সাক্কুর কাছে আওয়ামী লীগ সমর্থিত আফজল খানের বড় ব্যবধানে পরাজয়ের জন্যও এই বিরোধকে দায়ী করা হয়।
এবার আওয়ামী লীগ প্রার্থী করেছে আফজল খানের মেয়ে সীমাকে। এবারও বাহারের সঙ্গে আফজলের বিরোধ দলের ক্ষতির কারণ হয় কি না এ নিয়ে ক্ষমতাসীন দলের সমর্থকদের মধ্যে প্রশ্ন আছে।
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের অবশ্য বলেছেন, নারায়ণগঞ্জে শামীম ওসমান ও সেলিনা হায়াৎ আইভীর বিরোধ যেমন মিটেছে, তেমনিভাবেই আফজল ও বাহারের বিরোধ মিটবে। আর এই চেষ্টার অংশ হিসেবে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা কুমিল্লায় কাজ করছেন।
দুই নেতার বিরোধ মিটে গেছে দাবি করে কাজী জাফর উলাহ বলেন, ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ও তার নৌকাকে ভালবেসে আজ আমরা সকলে ঐক্যবদ্ধ হয়েছি। ৩০মার্চ আমরা বিশাল বিজয়মিছিল করবো। তিনি বলেন, কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আমাদের নৌকার প্রার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমা একজন সৎ, যোগ্য ও উচ্চ শিক্ষিত প্রার্থী। মেয়র নির্বাচিত হলে কুমিল্লার জনগণ ও নগরের উন্নয়নে শক্ত হাতে কাজ করবেন তিনি। কুমিল্লাবাসীর দীর্ঘদিনে সমস্যা শক্ত হাতে সমাধান করবেন তিনি এবং আমরাও দলীয়ভাবে তাকে সহযোগিতা করবো।
কর্মীসভায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী সীমা ছাড়াও দলের সংস্কৃতি সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক বাবু সজিত রায় নন্দী, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আবদুর সবুর, কেন্দ্রীয় মহিলা লীগের নেত্রী মেরিনা জাহান, এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী নুর উর রহমান মাহমুদ তানিম প্রমূখ বক্তব্য রাখেন।
এর আগে বিকাল চারটায় নৌকার প্রার্থী সীমা কেন্দ্রীয় নেতাদেরকে সঙ্গে নিয়ে লিফলেট বিতরণের মাধ্যমে গণসংযোগ শুরু করেন। এরপর দলীয় কার্যালয় থেকে মিছিল বের হয়।
বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফর উল্লাহ বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার নৌকাকে ভালবেসে আজ আমরা সকলে অক্যবদ্ধ হয়েছি। কুসিক নির্বাচকে সামনে রেখে আমাদের বাহার ভাই, কামাল ভাই ও মজিব ভাইসহ সকলে অক্যবদ্ধ হয়েছি। এমন কোন শক্তি নেই কুমিল্লা সিটি নির্বাচনে আ’লীগকে হারাতে পারবে না। ৩০মার্চ আমরা বিশাল ভাবে বিজয় মিছিল করবো। বুধবার বিকেলে কুমিল্লা আওয়ামীলীগের দলীয় কার্যালয়ে কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম এনামুল হক শামীমের সভাপতিতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাফর উল্লাহ এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন, কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আমাদের নৌকার প্রার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমা একজন যোগ্য ও উচ্চ শিক্ষিত প্রার্থী। সীমা প্রার্থী হিসেবে একজন সৎ ও শান্ত ধরনের মহিলা। কুসিকের মেয়র নির্বাচিত হলে কুমিল্লার জনগণ ও নগর উন্নয়নে শক্ত হাতে কাজ করবে। এমনকি কুমিল্লাবাসীর দীর্ঘদিনে সমস্যা শক্ত হাতে সমাধান করবেন তিনি এবং পিছে থেকে আমরা দলীয়ভাবে সহযোগিতা করবো।
কর্মী সভায় এসম বক্তব্য রাখেন কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমা, আওয়ামীলীগের সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক বাবু অসীম কুমার উকিল, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক বাবু সজিত রায় নন্দি, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক প্রকৌশলী আবদুর সবুর, কেন্দ্রীয় মহিলালীগের নেত্রী ডা. মেরিনা জাহান, ছাত্রলীগের সাবেক ভারপাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সাইফুজ্জামান শেখর, কেন্দ্রীয় মহিলালীগের সভাপতি সাফিয়া খাতুন, সাধারণ সম্পাদক মাহমুদা বেগম ক্লিক প্রমুখ।
এর আগে বিকাল ৪টায় আওয়ামীলীগ মনোনীত নৌকা প্রতীক প্রার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমা কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দদের সাথে নিয়ে লিফলেট বিতরণের মাধ্যমে গণসংযোগ করেন। এরপর কার্যালয় থেকে বিকাল ৫টায় মিছিল বের করে। মিছিলটি নগরীর প্রধান প্রধান সড়কগুলো প্রদর্শন করে আবারো দলীয় কার্যালয়ে এসে শেষ হয়। এসময় মিছিলে জন সমুদ্রে পরিণত হয়।
এসময় আরো বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় যুব মহিলালীগের সভাপতি নাজমা আক্তার, সাধারণ সম্পাদক অপু উকিল, কুমিল্লা জেলা পরিষদের সাবেক প্রশাসক আলহাজ্ব ওমর ফারুক, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক শফিকুল ইসলাম সিকদার, কুমিল্লা সদর উপজেলার চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম টুটুল, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা মহিলালীগের সভাপতি জাবেদা খানম পারুল, যুবলীগ নেতা আবুল কাশেম রওশন, আওয়ামীলীগ নেতা পার্থ সারথি দত্ত, চিত্ত রঞ্জন ভৌমিক, আওয়ামী লীগ নেতা সাজ্জাদ হোসেন স্বপন, যুবলীগ নেতা আরফানুল হক রিফাত, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের সাবেক ভিপি নুর উর রহমান মাহমুদ তানিম, যুবলীগ নেতা কবিরুল ইসলাম সিকদার, সদর দক্ষিণ উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল হাই বাবলু, কুমিল্লা জেলা আইন সম্পাদক আতিকুর রহমান বিশ্বাস, যুবলীগ নেতা শাহীদুল ইসলাম শাহিন, ভিক্টোরিয়া কলেজের সাবেক ছাত্রলীগ নেতা জাকির হোসেন, ছাত্রলীগ নেতা মহিউদ্দিন ফারুকী মহি, যুবলীগ নেতা এড. আনিছুর রহমান মিটু, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম রতন, কুমিল্লা মহানগর শ্রমীক লীগের আহ্বায়ক আবদুল কাইয়ুম, যুগ্ম আহবায়ক আনিছুর রহমান ভূইয়া, জেলা মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক কহিনুর বেগম, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের সাবেক ছাত্রলীগ নেতা এড. আশিকুর রহমান জুয়েলসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।