মঙ্গল্বার ২৪ অক্টোবর ২০১৭


কুমিল্লার সবজি বাজারে অস্থিরতা


আমাদের কুমিল্লা .কম :
07.08.2017

বেগুন ৬০ -বরবটি ৭০ টাকা!

 

মাসুদ আলম ॥
সিমলা রাণী দাস। পেশায় ধোপা। দুই মেয়েসহ একটি পরিবার। শনিবার দুপুরে নগরীর রাণীর বাজার, নিউ মার্কেট কাঁচা বাজার ঘুরে রাজগঞ্জ বাজারে গিয়ে সবজি দোকানে তার সাথে দেখা। হাতের নিচে কিছু পুরোনো কাপড় আর ব্যাগ হাতে একটি সবজি দোকানের সামনে দাঁড়িয়ে আছেন। দর কষাকষি করছেন সবজি দোকানির সাথে। সবজির বাজার বেসামাল হয়ে উঠায় সিমলা রাণী দাস সাহস করছেন না এক কেজি সবজি ক্রয় করতে। কারণ দাম লাগামহীন। ৪৫ টাকা থেকে ৫০ টাকার নিচে কোন সবজি পাওয়া যাচ্ছে না। এতে করে কুমিল্লার মধ্যম ও স্বল্প আয়ের মানুষরাই সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়ছেন।
শনিবার সরেজমিনে গিয়ে কুমিল্লার প্রধান সবজি বাজার রাজগঞ্জ, রাণীর বাজার ও নিউমার্কেট সবজি বাজারগুলো ঘুরে দেখা যায়, ২/১ সপ্তাহের ব্যবধানে কাঁচা মরিচ, টমেটো, সিম, করলা, বেগুন ও শসাসহ সবধরনের সবজির দাম প্রায় দ্বিগুণ হারে বেড়েছে। খুচরা বাজারে কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ১৩০-১৫০ টাকায়, টমেটো ১৪০ টাকা, কাকরোল ৬০ টাকা, কচুর লতি ৪০ টাকা, চাল কুমড়া ৪৫ থেকে ৫০ টাকা, ঢেঁড়স ৫৫ টাকা, করলা প্রতি কেজি ৬০ টাকা, পটল ৬৫ টাকা, কচুমুখী ৫০, ধুন্দল ৫৫, ঝিঙ্গা ৬০, পেঁপে ৪০ টাকা, বরবটি ৭০ টাকা, চিচিঙ্গা ৬৫ টাকা, মিষ্টি কুমড়া ৬৫-৭০ টাকা, শসা আকারভেদে ৫০ থেকে ৭০টাকা, বেগুন ৬০ টাকা, ধনিয়া পাতা ২৩০টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
নিত্যদিনের এসব সবজির দাম কুমিল্লার সাধারণ মানুষের নাগালের বাইরে। চালের বাজার ও সবজির বাজার দিন দিন বেসামাল হয়ে উঠায় নি¤œ-মধ্য ও খেটে খাওয়া মানুষরা তিন বেলা খাবার নিয়ে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন। পরিবহন ব্যবস্থা খারাপ ও বৃষ্টির কারণে পর্যাপ্ত জোগান না থাকার পণ্যের দাম বাড়ছে বলে বিক্রেতারা জানান।
কুমিল্লা রাজগঞ্জ বাজারের সবজি ব্যবসায়ী মোঃ শামীম বলেন, আমরা বেশির ভাগ সবজি উত্তর অঞ্চল থেকে সরবরাহ করি। এবারের টানা বৃষ্টি ও বন্যার কারণে অনেক সবজি ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। তাই আমাদের চাহিদা অনুসারে আমদানি কম। এছাড়া এক গাড়ি সবজি উত্তর অঞ্চল থেকে কুমিল্লায় আনা পর্যন্ত পরিবহন খরচ দিতে হয় ১৫ হাজার টাকা। তার মধ্যে টোল, চাঁদা ও ট্রাফিক পুলিশের হয়রানিতো আছেই। সব খরচ আমরাই দিতে হয়।
বাজারে সবজি ক্রয় করতে আসা সিমলা রাণী দাস বলেন, চালের দর যে হারে বেড়েছে দুই মুঠো ভাত খেতেও কষ্ট হচ্ছে। এখন আবার দেখছি ৪৫ থেকে ৫০ টাকার নিচে কোন সবজি নেই।
বাংলাদেশ ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর কুমিল্লা জেলার সহকারী পরিচালক মোঃ আসাদুল ইসলাম বলেন, সবজি বাজারে আমাদের নিয়মিত মনিটরিং রয়েছে। আমরাও বুঝতে পারছি বাজারে সবজির দর প্রতিদিন বাড়ছে। কেন বা কি কারণে সবজির দর এভাবে বাড়ছে তার সু-নির্দিষ্ট কারণ আমরা এখনো পাইনি। তবে কোন আড়ৎ বা পাইকারি ব্যবসায়ী সবজির দাম নিয়ে কারসাজি করছে এমন অভিযোগ ফেলে ক্ষতিয়ে দেখবো এবং ব্যবস্থা নিব।