মঙ্গল্বার ২৪ অক্টোবর ২০১৭


৫ শত বেডের বিপরীতে ৮ শতাধিক রোগীর চাপ কুমেকে


আমাদের কুমিল্লা .কম :
10.08.2017

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)’র অনুপ্রেরণায় গঠিত সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক), কুমিল্লার যৌথ আয়োজনে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের(কুমেক) স্বাস্থ্যসেবায় স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা বৃদ্ধির মাধ্যমে সুশাসন প্রতিষ্ঠা এবং সেবার মানোন্নয়নে সেবাগ্রহীতাদের মুখোমুখি হয়েছে কুমেক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। সনাক সভাপতি বদরুল হুদা জেনুর সভাপতিত্বে গতকাল কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সেবাগ্রহীতাদের সাথে এক মতবিনিময় সভায় কুমিল্লা মেডিকেল হাসপাতালের পরিচালক ডা: স্বপন কুমার অধিকারী বলেন, ইউনিটভিত্তিক প্রশাসন চালু এবং জোরদাকরণের মাধ্যমে হাসপাতালের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করে সেবার মানোন্নয়নে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। হাসপাতালের গাইনী, শিশু, কার্ডিওলজি, আউটডোরসহ বিভিন্ন বিভাগের সেবাগ্রহীতাদের অংশগ্রহণে মতবিনিময় সভায় উপস্থিত বেশকিছু সেবাগ্রহীতা হাসপাতালের সেবা প্রাপ্তি, ডাক্তারদের পরামর্শ ও ব্যবাহার, নার্স ও অন্যান্য স্টাফদের সহযোগিতা বিষয়ে ইতিবাচক বক্তব্যের পাশাপাশি সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন। তবে, রোগীরা হাসপাতালের সেবার সার্বিক মানোন্নয়নে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার ঘাটতি, হাসপাতালের ভেতরে প্রবেশ করতে গেটম্যান কৃর্তক টাকা দাবি, দালাল চক্রের উপস্থিতি, নেবুলাইজার মেশিন কম থাকা, রোগীর তাৎক্ষণিক সেবা প্রাপ্তিতে সীমাবদ্ধতা, একাধিক সিজারিয়ান রোগীর ইনফেকশনে জরুরি সেবা প্রাপ্তিতে জটিলতা, বিভিন্ন পরীক্ষা বাইরে থেকে করানোসহ বিভিন্ন বিষয় কর্তৃপক্ষের নজরে আনেন এবং বিষয়সমূহের দ্রুত সমাধান করার অনুরোধ জানান। উত্থাপিত বিষয়ের পরিপ্রেক্ষিতে হাসপাতালের পরিচালক ডা: স্বপন কুমার অধিকারী বলেন, রোগীরা যাতে শতভাগ ঔষধ হাসপাতাল থেকে পায় সে বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে, বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষার যন্ত্রপাতির চাহিদা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রেরণ করা হয়েছে এবং সেগুলো পাওয়া গেলে রোগীর প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা হাসপাতাল থেকেই করা সম্ভব হবে, এছাড়াও গেটম্যান কে কোনো অবস্থাতেই কাউকে টাকা না দেয়ার পরামর্শ প্রদানের পাশাপাশি এ বিষয়ে তার পক্ষ থেকে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের প্রতিশ্রুতি প্রদান করেন। তিনি আরো বলেন, ৫ শত বেডের বিপরীতে প্রতিদিন ৮ শতাধিক রোগীর চাপ সামলাতে অনেক সময় ডাক্তার ও নার্সদের আচরণে কেউ কেউ কষ্ট পেয়ে থাকেন, বিষয়টি স্পর্শকাতর এবং হাসপাতালের সংশ্লিষ্টদের এ বিষয়ে বিভিন্ন সময় বলা হয়েছে তিনি অনিচ্ছকৃত এই আচরণে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখার জন্য প্রতিষ্ঠান প্রধান হিসেবে ভূক্তভোগীদের অনুরোধ জানান এবং সেবা প্রদানের স্বার্থে রোগী ও দর্শনার্থীদেরেকে আরো দায়িত্বশীল হওয়ার আহ্বান জানান। তিনি হাসপাতালে বিভিন্ন তথ্য উন্মুক্ত করার বিষয় উল্লেখ করে বলেন, হাসপাতালের প্রবেশপথ থেকে শুরু করে বিভিন্ন স্থানে সেবা সম্পর্কে রোগীদের জন্য জ্ঞাতব্য বিষয়গুলো তুলে ধরা হয়েছে, তিনি রোগীদের প্রতারক চক্র থেকে সাবধান থাকার আহবান জানান প্রয়োজনে কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ জানান। অনুষ্ঠানে উপস্থিত গাইনী বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডা: করুণা রানী কর্মকার গাইনী বিভাগের সমস্যাসমূহ দ্রুততার সাথে সমাধান করার আশ^াস প্রদান করেন। সনাকের সাবেক সভাপতি আলী আকবর মাসমু বলেন, রোগীরা হাসপাতালের অন্যতম অংশীজন, তাদের কথা শোনা এবং প্রতিকার নিশ্চিত করতেই সনাক ধারাবাহিকভাবে বিভিন্ন কর্মসূচি আয়োজন করছে। কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের উপাধ্যক্ষ ডা: জাহাঙ্গীর হোসেন ভূঞা, সনাক এর উদ্যোগের প্রশংসা করে বলেন, আলোচনা সমস্যা সমাধানের দিকে নিয়ে যায়। তিনি রোগীদের স্বার্থে টমছমব্রিজ হতে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পর্যন্ত রাস্তাটি অবিলম্বে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে সংস্কার করার আহবান জানান। সনাকের স্বাস্থ্য বিষয়ক উপ-কমিটির আহবায়ক আলহাজ¦ শাহ মো: আলমগীর খান বলেন, কুমেক হাসপাতাল এই অঞ্চলের অন্যতম স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান। তিনি বলেন, সনাক সুশাসন প্রতিষ্ঠানকেই সর্বাধিক গুরুত্ব প্রদান করে এবং এর মাধ্যমেই উন্নত সেবা প্রদানের পাশাপাশি রোগীদের আস্থা অর্জন করা করা যায়। সনাক সভাপতি বদরুল হুদা জেনু, উত্থাপিত সমস্যাসমূহ সমাধানের মাধ্যমে হাসপাতালের সুশাসন এবং সেবার মানের ক্ষেত্রে নতুন মাত্রা যোগ করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। মতবিনিময় সভায় অন্যান্যেও মধ্যে বক্তব্য রাখেন ডা: মো: মিজানুর রহমান, বিভাগীয় প্রধান, কার্ডিওলজি বিভাগ, ডা: আবুল বাশার, বিভাগীয় প্রধান, এ্যানেসথেশিয়া, সাবেক অধ্যক্ষ শফিকুর রহমানসহ প্রমুখ। মতবিনিময় সভায় গত ৩১ ডিসেম্বর ২০১৬ তারিখে প্রথমবারের মত অনুষ্ঠিত কুমেক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও সেবাগ্রহীতাদের মধ্যে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় রোগীদের উত্থাপিত বিষয়সমূহের আপডেট প্রদান করেন হাসপাতালের পরিচালক। সভায় বিভিন্ন সীমাবদ্ধতার মধ্যে দায়িত্ব পালন করার পাশাপাশি রোগীদেরকে জরুরি মুহূর্তে রক্তদান ও গরিব-অসহায় রোগীদেরকে হাসপাতালের ডাক্তার ও বিভিন্ন পর্যায়ের স্টাফদের আর্থিক সহায়তা প্রদানের দৃষ্টান্তকে বিশেষভাবে স্বাগত জানানো হয়। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন, টিআইবি’র এরিয়া ম্যানেজার আশরাফ মাহমুদ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।