রবিবার ১৭ ডিসেম্বর ২০১৭


দাউদকান্দি টোল প্লাজায় অনিয়মে মহাসড়কে দীর্ঘ যানজট


আমাদের কুমিল্লা .কম :
09.10.2017

আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় বক্তারা

মাহফুজ নান্টু
ঢাকা- চট্টগ্রাম মহাসড়কে দীর্ঘ যানজটের জন্য কুমিল্লার দাউদকান্দি ব্রিজের টোল প্লাজার অনিয়মকে দায়ী করেছেন জেলার বিভিন্ন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানরা। টোলপ্লাজায় বিভিন্ন অনিয়ম দুর্নীতির কারণে প্রায়ই টোল প্লাজা এলাকায় যানজট সৃষ্টি হয়ে তা দীর্ঘস্থায়ী রুপ নিচ্ছে।
রোববার কুমিল্লা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে মাসিক আইনশৃংখলা কমিটির সভায় এ বক্তব্য রাখেন উপস্থিত কমিটির সদস্যরা।
সভায় উপস্থিত দাউদকান্দি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মেজর (অব) মোহাম্মদ আলী সুমন বলেন,টোলপ্লাজায় মাইকিং করে গাড়ি প্রতি ২ হাজার টাকা করে টোল আদায় করা হচ্ছে। এতে করে মহাসড়কে দীর্ঘ হচ্ছে যানবাহনের সারি। এখানে ওজন বড় কথা নয়,টাকা পরিশোধ করতে পারলে গাড়ি ছাড়া হয়, নতুবা গাড়ি আটকে যানজট তৈরি করা হয়। এগুলো বন্ধে সরাসরি প্রশাসনের হস্তক্ষেপ প্রয়োজন। নতুবা কোনদিনও এসব সমস্যার সমাধান হবে না।
এ প্রসঙ্গে আইনশৃংখলা কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো:মনিরুজ্জামান তালুকদার জেলা সড়ক ও জনপদের নির্বাহী প্রকৌশলীর প্রতিনিধিকে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে আহবান জানান।
এদিকে জেলার মাদকের বিস্তার এবং তার ক্ষতিকর প্রভাবের বিষয়ে বক্তব্য রাখেন কুমিল্লার সিভিল সার্জন ডা.মজিবুর রহমান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো:আবদুল্লাহ আল মামুন, ব্রাক্ষণপাড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী জাহাঙ্গীর খান চৌধুরী,সদর দক্ষিণ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল হাই বাবলু,সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এড.আমিনুল ইসলাম টুটুল,দাউদকান্দি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মেজর(অব)মোহাম্মদ আলী সুমন,মেঘনা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এড.আজিজুর রহমান মোল্লা ও হোমনা পৌরসভার মেয়র এড.নজরুল ইসলাম।
সভায় উপস্থিত অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো:আবদুল্লাহ আল মামুন তার বক্তব্য বলেন, জেলায় মাদকের প্রসারতা হ্রাস করতে পুলিশ পপ্রশাসন বদ্ধপরিকর। এখন পুলিশ শুধু মাদক বহনকারীদেরই আটক করছে না, এ কাজে সংশ্লিষ্টদের খুঁজে বের করতে কাজ করছে। এছাড়াও গত মাসে জেলায় প্রায় ১২টি খুনের ঘটনার কথা উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, খুনের কারণ ও রহস্য উদঘাটনের নেপথ্যে পারিবারিক কলহ এবং দ্বন্দ্ব। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিগণ যদি স্থানীয় নাগরিকদের সাথে নিয়ে উঠোন বৈঠকের মাধ্যমে জনসচেতনতা বৃদ্ধি করতে পারেন, তাতে হত্যা খুনের মত ঘটনা হ্রাস হবে বলে মনে করেন।
সভায় উপস্থিত জেলা সিভিল সার্জন ডা:মজিবুর রহমান বলেন, দাউদকান্দিতে যে ভয়াবহ যানজট সৃষ্টি হচ্ছে তা নিরসনে প্রশাসনের সরাসরি হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

জনপ্রতিনিধিগণ বলেন, যে হারে জেলায় মাদকের বিস্তার লাভ করেছে তাতে জেলার প্রায় অর্ধেক তরুণ আজ বিপদগামী হয়ে গেছে। এখনই যদি মাদকের করালগ্রাস থেকে যুব সমাজকে ফিরিয়ে আনা না যায় তাহলে অতিশীঘ্রই তা সমাজের জন্য ভয়াবহ বিপর্যয় বয়ে আনবে।
সভায় অন্যান্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট মো:আজিজুর রহমান,সিটি কর্পোরেশনের সচিব মো:হেলাল উদ্দিন, জেলা তথ্য অফিসার মীর হোসেন আহসানুল কবীর, জেলা সমাজ সেবার উপ-পরিচালক হাসিনা মোর্শেদ, সড়ক ও জনপদের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী রেজা-ই রাব্বি, জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ভিকারুন্নেচ্ছা, জেল সুপার মো: নাশির আহমেদ,আনসার ভিডিপির জেলা কমান্ডেন্ট মো:আবদুল মান্নান, বুড়িচং উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফজলুল জাহিদ পাবেল,র‌্যাব ১১ এর প্রতিনিধি ডিএডি মো:রবিউল হক, সদর দক্ষিণ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা রুপালী মন্ডল,চান্দিনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএসম জাকারিয়া, মহানগর আ’লীগের সহ-সভাপতি আইনশৃংখলা কমিটির সদস্য জিএম সিকান্দার,বিআর টিএ উপ-পরিচালক মো:নুরুজ্জামান, জেলা ট্রাক মালিক সমিতির সভাপতি মো:মুসলিম,সাধারণ সম্পাদক আবদুস ছালাম প্রমুখ।