শনিবার ২১ অক্টোবর ২০১৭


চাঁদপুরে বর-কনের পিতাকে কারাদণ্ড, ইউপি সদস্য ও ইমামকে জরিমানা


আমাদের কুমিল্লা .কম :
09.10.2017

স্টাফ রিপোর্টার,চাঁদপুর।।
চাঁদপুর সদর উপজেলার শাহমাহমুদপুর ও মৈশাদী ইউনিয়নে বাল্যবিবাহকে কেন্দ্র করে বর ও কনের প্রত্যেককে সাত দিন করে বিনাশ্রম কারাদ- এবং মৈশাদী ইউপি সদস্য বজলুল গনি জিলন ও এক মসজিদের ইমাম মাও.ওমর ফারুককে এক হাজার টাকা করে ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা করা হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কানিজ ফাতেমা ।
গত ৫ অক্টোবর গোপনে ৪নং শাহমাহমুদপুর ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের লোধেরগাঁও গ্রামের আবিল গাজীর মেয়ে ও জোহরা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে দশম শ্রেণির ছাত্রী আসমা আক্তারের (১৪) সাথে মৈশাদী ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের মৈশাদী গ্রামের রহমান ভূইয়ার ছেলে মো.আল-আমিনের (২২) সাথে রাতে ছেলের বাড়িতে বাল্যবিবাহ হয়।
গতকাল সোমবার ৯ অক্টোবর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কানিজ ফাতেমা ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে মাও মো. ওমর ফারুককে ১ হাজার টাকা করেন।
এই ঘটনায় গত ৮ অক্টোবর রাতে বরের পিতা রহমান ভূইয়ার ও কনের পিতা আবিল গাজীরকে সাত দিন করে বিনাশ্রম কারাদ- দেয় ভ্রাম্যমাণ আদালত।
এছাড়াও গতকাল চাঁদপুর সদর উপজেলা নিবাহী কর্মকর্তা কানিজ ফাতেমা ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে বাল্যবিবাহে সহযোগিতা করার কারণে বজলুল গনি জিলন মেম্বারের বিরুদ্ধে ইউনিয়ন পরিষদ সভায় নিন্দা প্রস্তাব এনে রেজুলেশন কপি উপজেলা নিবাহী কর্মকতার্র কাছে জমা দেওয়ার জন্য নির্দেশ প্রদান করেন।
বিষয়টি রোববার তাৎক্ষণিক চাঁদপুর জেলা প্রশাসক মো. আব্দুস সবুর মন্ডল, পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার পিপিএম, চাঁদপুর সদর উপজেলা নিবাহী অফিসার কানিজ ফাতেমা, চাঁদপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ ওয়ালি উল্লাহ অলীকে জানানো হয়।
চাঁদপুর জেলা প্রশাসক মো. আব্দুস সবুর মন্ডল সদর নির্বাহী কর্মকর্তা কানিজ ফাতেমাকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নিদেশ দেন। তিনি রোবরাব তাৎক্ষণিক মডেল থানর অফিসার ইর্নচার্জকে জানালে তিনি এসআই জাফরকে দ্রুত ঘটনাস্থল মৈশাদীতে পাঠান। সেই সাথে বর ও কনের পিতা-মাতাকে ইউএনও অফিসার হাজির করেন। পরদিন কাজীর সহকারি কাজী ওমর ফারুককে হাজির করা হয়।
এ ব্যাপারে শাহমাহমুদপুর সচিব এম এ কুদ্দুস রোকন ও মৈশাদী ইউপি সচিব মানিক উপজেলা প্রশাসনকে সার্বিক সহযোগিতা করেন। এদিকে এ প্রথম কোনো ইউপি মেম্বারকে বাল্যবিবাহের কারণে জরিমানা করা হলো। এ ঘটনায় তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণ করায় মৈশাদী ও শাহমাহমুদপুর ইউনিয়নের জনগণ চাঁদপুর জেলা ও উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ বিভাগকে স্বাগত জানিয়েছেন।