শনিবার ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭
  • প্রচ্ছদ » sub lead 2 » কুমিল্লা সীমান্তে বাংলাদেশ-ভারতের সৌহার্দ্য সম্মিলন


কুমিল্লা সীমান্তে বাংলাদেশ-ভারতের সৌহার্দ্য সম্মিলন


আমাদের কুমিল্লা .কম :
27.11.2017

স্টাফ রিপোর্টার।। কুমিল্লা সীমান্তে বাংলাদেশ-ভারত দুই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর উদ্যোগে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এই আনন্দ আয়োজনে বাংলাদেশ-ভারতের দুই দেশের ঘোমটা টানা বধূ আর লুঙ্গি পরা কৃষকরাও এসেছেন। হাফ প্যান্ট পরা শিশুরাও উৎসবে অংশ নেয়। রোববার বিকালে কুমিল্লার আদর্শ সদর উপজেলার গোলাবাড়ি নো-ম্যান্স ল্যান্ডে এ উৎসবের আয়োজন করা হয়। কেউ দাঁড়িয়ে,কেউ ঘাসে বসে সেখানে আনন্দ উপভোগ করেন। বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবি এবং ভারতের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবি বিএসএফের সদস্যরা এতে গান,নাচ ও জাদু পরিবেশন করে।
বিজিবির সূত্র জানায়,দুই দেশের মধ্যে সৌহার্দ্য এবং ভ্রাতৃত্ববোধ বৃদ্ধি করতে এই সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে বিজিবি ও বিসিএফের সদস্যরা বাংলা এবং হিন্দি ভাষায় গান পরিবেশন করেন। এছাড়া নাচ ও জাদু পরিবেশন করা হয়। শেষ দিকে গানের সাথে মঞ্চে উঠে দুই দেশের বিজিবি-বিএসএফ সদস্যরা এক সাথে নেচে আনন্দ প্রকাশ করে।
অনুষ্ঠানে বিজিবির পক্ষে উপস্থিত ছিলেন,বিজিবি-১০ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে.কর্নেল গোলাম সারোয়ার,কুমিল্লা সেক্টরের অতিরিক্ত পরিচালক মেজর সৈয়দ আনসার মো.কাউসার,বিজিবি-১০ ব্যাটালিয়নের উপ-অধিনায়ক মেজর শহীদুল আলম ও কুমিল্লা সেক্টরের সহকারী পরিচালক নজরুল ইসলাম।
বিএসএফের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন ১৪৫ ব্যাটালিয়নের কমান্ডেন্ট গণেশ কুমার,সহকারী কমান্ডেন্ট বিনয় চৌহান ও কুলুবাড়ি বিওপির কমান্ডেন্ট সন্তোষ কুমার।
কুমিল্লার গোলাবাড়ি এলাকার কৃষক জামাল হোসেন বলেন,এই এলাকায় এমন উদ্যোগ আর দেখা যায়নি। গানের অনুষ্ঠান দেখতে দুই দেশের মানুষ এসেছেন। এক সাথে বসে গান নাচ দেখতে দেখতে পরিচিত হয়েছেন।
ভারতের সোনামুড়া থেকে সংবাদ সংগ্রহে আসা স্থানীয় দৈনিক সংবাদের সিনিয়র রিপোর্টার আবদুস সাত্তার বলেন,সীমান্তে দুই দেশের এমন সাংস্কৃতিক উৎসব আয়োজন একটি ইতিবাচক উদ্যোগ। এতে দুই দেশের মধ্যে সংস্কৃতির বিনিময় হয়, একে অপরকে জানতে পারে। মনের দূরত্ব ঘুচে যায়।