সোমবার ২২ জানুয়ারী ২০১৮


নগরীতে গ্যাসের সংকটে দুর্ভোগে মানুষ


আমাদের কুমিল্লা .কম :
10.01.2018

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লা নগরীসহ আশ-পাশের এলাকায় গ্যাসের চরম সংকট চলছে। মাস খানেক ধরে চলা সংকটে মানুষের দিন কাটছে দুর্ভোগে। চুলা রেখে পাশে সিলিন্ডার দিয়ে কিংবা মাটির চুলায় রান্না করছেন গৃহিনীরা। বাখরাবাদ গ্যাস সিস্টেম কোম্পানির অফিস ক্যাম্পাসেও গ্যাস নেই। সেখানের ক্যান্টিনেও সিলিন্ডার দিয়ে রান্নার কাজ করা হয়।
গ্যাস না থাকায় তীব্র শীতের মধ্যে দুর্ভোগে পড়ছেন সাধারণ মানুষ।
নগরীর বিভিন্ন এলাকা গিয়ে জানা যায়, নগরীর বাগিচাগাঁও,নতুন চৌধুরীপাড়া,চর্থা, হজরতপাড়া,নুরপুর,সদর উপজেলার শিমপুর,ভুবনঘর,রতœবতী, চাঁন্দপুর, বালুতুপা,চাঁপাপুর, বিবির বাজার এলাকায় গ্যাসের বেশি সংকট। ভোর ৬টায় গ্যাস চলে যায়। কখনও সন্ধ্যা ৭টায়,কখনও রাত ১০টায় গ্যাস আসে। রান্নার সময় গ্যাস না থাকায় মানুষ বিভিন্ন পন্থা অবলম্বন করছেন। এছাড়া বেশি শীতের দিন নগরীর বিভিন্ন এলাকায় সকাল বেলায় গ্যাস থাকে না।
বাখরাবাদ গ্যাস সিস্টেম কোম্পানির একটি সূত্র জানায়,৩০বছর আগের চাহিদা আর এখনকার চাহিদা এক নয়। যে পাইপে ১০হাজার গ্রাহকের গ্যাস আসতো,সেই পাইপে ৩০হাজার গ্রাহকের চাহিদা মেটানো যায় না। এছাড়া অবৈধ গ্যাস সংযোগ এবং অপচয়ের কারণে সংকটের সৃষ্টি হচ্ছে।
চাঁন্দপুর এলাকার কালাম হোসেন নামের এক গ্রাহক বলেন,গ্যাস সংকটের কারণে বাসায় সকালে রান্না হয়না। রেস্টুরেন্টের খাবার দিয়ে কাজ চালিয়ে নিতে হয়।
চাঁপাপুর এলাকার গৃহিনী জুঁই ফারজানা শাম্মি বলেন,‘কাজের সময় গ্যাস থাকে না, মানুষ যখন ঘুমাতে যায় তখন গ্যাস আসে। রান্না করে পরিবারের সদস্যদের খাওয়ানো কষ্টকর হয়ে দাঁড়িয়েছে। মাসে আট শত টাকা বিল দেই,কিন্তু গ্যাস নেই। আবার মাসে আড়াই হাজার টাকার সিলিন্ডার গ্যাস কিনতে হয়।’
বাখরাবাদ গ্যাস সিস্টেম কোম্পানির উপ-মহাব্যবস্থাপক(বিক্রয় ও বিপণন) আবদুর রাজ্জাক বলেন,‘শীতে গ্যাসের চাপ কমে যায়। তাই কিছু সংকট সৃষ্টি হয়। অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হলে এবং লাইন সংস্কারের পর পরিস্থিতির উন্নতি হবে।’