সোমবার ২৪ †m‡Þ¤^i ২০১৮
  • প্রচ্ছদ » sub lead 1 » প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে আজ থেকে কোচিং সেন্টার বন্ধ


প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে আজ থেকে কোচিং সেন্টার বন্ধ


আমাদের কুমিল্লা .কম :
26.01.2018

স্টাফ রিপোর্টার।।
আসন্ন মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) ও সমমানের পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধে আজ শুক্রবার থেকেই দেশের সবগুলো কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। দেশের আটটি সাধারণ শিক্ষাবোর্ডে অভিন্ন প্রশ্নপত্রে এ বছর এসএসসি পরীক্ষা নেয়া হবে। এ ছাড়া প্রশ্ন ফাঁসের প্রমাণ পাওয়া গেলেই সে পরীক্ষা বাতিল করা হবে।
গতকাল বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে এসএসসি পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে জাতীয় মনিটরিং কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সভায় বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।
আগামী ১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া এই পাবলিক পরীক্ষায় ১৭ লাখ শিক্ষার্থী অংশ নেবে। তত্ত্বীয় পরীক্ষা শেষ হবে আগামী ২৪ ফেব্রুয়ারি। বিগত কয়েক বছর ধরে ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রশ্নপত্র ফাঁস নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। পরীক্ষা শুরুর তিন দিন আগে থেকে পরীক্ষা শেষ হওয়া পর্যন্ত কোচিং সেন্টারগুলো বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছিল মন্ত্রণালয়। এখন সেই সিদ্ধান্ত এগিয়ে এনে সাত দিন আগে থেকে শেষ হওয়া পর্যন্ত কোচিং সেন্টারগুলো বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।
শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, কোচিং সেন্টার হচ্ছে প্রশ্নপত্র ফাঁসের আখড়া। এ কারণে পরীক্ষার সাত দিন আগে থেকে এই কার্যক্রম শেষ না হওয়া পর্যন্ত দেশের সব কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে। প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে আমরা মরিয়া ও কঠোর। কারণ আমাদের দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে। আগে বিজি প্রেস থেকে প্রশ্নফাঁস হতো, সেটা বন্ধ করেছি। কিন্তু এখন শিক্ষকরাই প্রশ্নফাঁস করছেন। তবে সব শিক্ষক নন, কিছু শিক্ষক এসবের সঙ্গে জড়িত বলে তিনি মন্তব্য করেন।
পরীক্ষার সময় একটি সীমিত সময়ের জন্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক বন্ধ রাখার বিষয়ে কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলাপ আলোচনা চলছে বলেও জানান মন্ত্রী।
শিক্ষামন্ত্রী বলেন, পরীক্ষা শুরু হওয়ার আধা ঘণ্টা আগে পরীক্ষার্থীদের শুধু কেন্দ্রেই নয়, তাদের নিজ নিজ আসনে গিয়ে বসতে হবে। পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগেই প্রশ্নের প্যাকেট খোলা হবে। এর আগে কেউ প্রশ্নের প্যাকেট খুললে তার বিরুদ্ধে তাত্ক্ষণিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তিনি বলেন, কেন্দ্রসচিব একটি সাধারণ ফোন সঙ্গে রাখতে পারবেন। অন্য কেউ কোনো ধরনের মোবাইল সঙ্গে রাখতে পারবেন না।
মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ সচিব সোহরাব হোসাইন বলেন, পরীক্ষার পরেও যদি প্রমাণ পাওয়া যায়, পরীক্ষার আগে প্রশ্ন ফাঁস হয়েছে সেক্ষেত্রে সে পরীক্ষা বাতিল হবে। কোনো অবস্থাতেই ফাঁস হওয়া প্রশ্নে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে না।
প্রশ্ন ফাঁস হওয়ার মতো যত পথ আছে তা বন্ধের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে দাবি করে শিক্ষা সচিব বলেন, কোনো অবস্থাতেই আমরা আমাদের এই প্রজন্মকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দেয়ার জন্য কাউকে সে পথে এগোতে দেব না। সব শিক্ষা বোর্ডে অভিন্ন প্রশ্নপত্রে এবার থেকে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।
অভিন্ন প্রশ্নে পরীক্ষা অনুষ্ঠানে কোনো ঝুঁকি থাকছে কি না- এ প্রশ্নে সচিব বলেন, আমরা বিভিন্ন কারণে এই ঝুঁকিটা নিচ্ছি। অনেক সময় অনেকে আমাদের অভিযুক্ত করছেন যে বিভিন্ন বোর্ডে বিভিন্ন মানের প্রশ্ন হচ্ছে, সারাদেশে একভাবে পরীক্ষা নেয়া হচ্ছে না। ওই সমস্যা মেটাতেই সারা দেশে এক প্রশ্নে পরীক্ষা নেয়ার উদ্যোগের কথা জানান তিনি।