বুধবার ২৩ †g ২০১৮
  • প্রচ্ছদ » sub lead 2 » ময়ানামতিতে চুরি-ডাকাতি বেড়ে যাওয়ায় জনমনে আতঙ্ক


ময়ানামতিতে চুরি-ডাকাতি বেড়ে যাওয়ায় জনমনে আতঙ্ক


আমাদের কুমিল্লা .কম :
16.05.2018

বুড়িচং প্রতিনিধি:
বুড়িচং উপজেলার ময়নামতি ইউনিয়নের ময়নামতি সাহেবের বাজার ও আশে পাশে চুরি ডাকাতি বেড়ে যাওয়ায় ব্যবসায়ী ও এলাকার জনমনে আতঙ্ক বিরাজ করেছে। ময়নামতি সাহেবের বাজারে গত ২-৩মাসে বেশ কয়েকটি দোকানের শার্টার,টিনের চাল কেটে দুঃসাহসিক চুরি করে মালামাল নগদ টাকা চুরির ঘটনা ও আশে পাশের এলাকায় ডাকাতির ঘটনায় এলাকার মানুষ অজানা ভয়- ভীতিতে রাত কাটাচ্ছে। সম্প্রতি এলাকার কুখ্যাত ডাকাত আব্দুল হালিম পুলিশের সঙ্গে বন্দুক যুদ্ধে মারা গেলেও কিছু দিন চুরি ডাকাতি বন্ধ ছিল। কিন্তু কিছুদিন যেতে না যেতে এলাকায় শুরু হয়েছে চুরি-ডাকাতি ।
গত ১১ মে রাত ৯টায় ময়নামতি ইউনিয়নের সাহেবের বাজারের কাজী মো: অলি উল্লাহ ভূঁইয়া (৫০) অফিস কক্ষে তালা লাগিয়ে তার নিজ বাড়ি সিন্ধুরিয়া পাড়া গ্রামে চলে যায়। সকাল ৭টায় অফিসের কাজে এসে দেখতে পান অফিসের দুটি তালা কাটা এবং শার্টার লাগানো অবস্থায় আছে। অফিসের ভিতরে প্রবেশ করে দেখেন তিনটি স্টিলের আলমারি ভাঙা এবং সিলিং ও ওপরের টিন কাটা রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে সংঘবদ্ধ ডাকাত দল সু-কৌশলে রাতে তালা ও টিন কেটে কাজি অফিসে প্রবেশ করে সমস্ত কাগজপত্র ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রেখেছে এবং কিছু অংশ ছিড়ে ফেলেছে। মূল্যবান কাগজপত্র,বালামবই ও সূচিপত্র এবং স্টিলের আলমারিতে রক্ষিত মোটা অংকের টাকা লুট করে নিয়ে যায় ডাকাত দল। মো. অলি উল্লাহ অলি জানান, ময়নামতি সাহেবের বাজারে ৪জন নাইট গার্ড থাকার পরও এখানে ডাকাতির ঘটনায় ব্যবসায়ীরা আতঙ্কগ্রস্থ হয়েছে।এঘটনায় গত ১২ মে বুড়িচং থানায় অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ বাজারের ৪নাইট গার্ডকে জিজ্ঞাসা বাদের জন্য আটক করে পরে ছেড়ে দেয়।
১৩মে রাতে দেবপুর ফাঁড়ি পুলিশ ময়নামতি বাজার এলাকায় অভিযোন চালিয়ে ২৭পিস ইয়াবাসহ সমেষপুর গ্রামের ডাকাত মনু মিয়ার ছেলে ডাকাত শাহীনকে আটক করে এবং সঙ্গে ইয়াবা ব্যবসায়ী খলিলকে আটক করে।
বাজারের একাধিক ব্যবসায়ী জানান, গত কয়েক মাসে এবাজারের ৫-৭টি শার্টার ও টিনের চাল কেটে চুরি ঘটনা ঘটেছে। এরমধ্যে কেউ কেউ থানায় অভিযোগ ও সাধারণ ডায়েরি করলেও অনেকে থানায় অভিযোগ দায়ের করেননি।একাধিক সূত্র আরো জানায়, ডাকাত হালিম বন্দুক যুদ্ধে মারা গেলেও তার সঙ্গীরা অপর্কমগুলো চালিয়ে যাচ্ছে। গত ২ এপ্রিল ও১০ ফেব্রুয়ারি একই বাজারের ফেন্ডস লাইব্রেরি এন্ড টেলিকম ব্যবসায়ী মো. সফিকুল ইসলামের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে টিনের চাল ও সার্টার কেটে দোকানে প্রবেশ করে নগদ টাকা বিভিন্ন মালামাল ৩ লক্ষাধিক টাকা লুট করে নিয়ে যায়। উভয় ঘটনায় পৃথক ২টি অভিযোগ বুড়িচং থানায় দায়ের করা হয়।এছাড়াও বেশ কিছু দিন পূর্বে একই বাজারের ব্যবসায়ী ডা. আমিনুল হক শামীমের দোকানে একই কায়দায় নগদ টাকা ওষুধসহ প্রায় ৪০হাজার টাকার মালামাল নিয়ে যায়।একই রাতে ডা. মামুনুর রশিদের হোমিও দোকানে সংঘবদ্ধ চোরের দল নগদ টাকা সহ ৩০টাকা হাজার চুরি করে নিয়ে যায়। এছাড়া এবাজারের ব্যবসায়ী খোরশেদ আলমের মুদি দোকানে একই কায়দায় প্রবেশ করে নগদ ৫০হাজার টাকা ও মালামাল সহ প্রায়৭০- ৮০ হাজার টাকা লুট করে নিয়ে যায় এবং একই রাতে বাজারের ব্যবসায়ী প্রদীপ দেবনাথের মালামালের গোডাউন কেটে মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।
এব্যাপারে দেবপুর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মো. ইউসুফ ফসিউজ্জামান বলেন, চুরির এবিষয়গুলো আমরা শুনেছি ।এব্যাপারে অলি উল্লাহ অলি অভিযোগ দায়ের করেছেন। অন্য কেউ কোন অভিযোগ দায়ের করেননি। গত রাতে আমরা ২জনকে আটক করেছি। আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে ।