সোমবার ২০ অগাস্ট ২০১৮
  • প্রচ্ছদ » sub lead 1 » দেবিদ্বারে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে কিশোরীকে গণধর্ষণ : ৩ ধর্ষক গ্রেফতার


দেবিদ্বারে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে কিশোরীকে গণধর্ষণ : ৩ ধর্ষক গ্রেফতার


আমাদের কুমিল্লা .কম :
03.08.2018

দেবিদ্বার প্রতিনিধি।।

দেবিদ্বারে ১৬ বছর বয়সী এক কিশোরীকে তার পূর্ব পরিচিত এক যুবক বিয়ের প্রলোভনে মুরাদনগর উপজেলার বাবুটিপাড়া গ্রাম থেকে ডেকে নিয়ে তার অপর দু’সহযোগীসহ ৩ বখাটে যুবক রাতভর পালাক্রমে ধর্ষণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটে গত ২৯ জুলাই রোববার রাতে দেবিদ্বার উপজেলার ভাণী ইউনিয়নের খাদঘর গ্রামে।এ ঘটনায় বুধবার আটককৃত ৩ ধর্ষককে বৃহস্পতিবার আদালতে প্রেরণ করলে আদালতে ধর্ষণের কথা স্বীকার করে ১৪৪ ধারায় জবানবন্দি প্রদান করে।

পুলিশ, ভিক্টিম ও স্থানীয়রা জানান, মুরাদনগর উপজেলার বাবুটিপাড়া গ্রামের ভিক্টিম কিশোরী (১৬) গত রোববার বিকেলে তার মায়ের সাথে রাগ করে চান্দিনা উপজেলায় নানার বাড়ির উদ্দেশ্যে বের হয়। এ সময় পূর্ব পরিচিত দেবিদ্বার উপজেলার ভাণী ইউনিয়নের খাদঘর গ্রামের বাতেন (২৫) নামে এক যুবকের সাথে ফোনে কথা বলার এক পর্যায়ে মায়ের সাথে রাগ করে নানার বাড়ির উদ্দেশ্যে বেড়িয়ে যাওয়ার বিষয়টি জানতে পারে। এ সুযোগে ভিক্টিম কিশোরীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে রাত ৮টায় নিজ গ্রামে ডেকে নিয়ে যায়। ভিকটিম খাদঘর ব্রিজের কাছে পৌঁছলে ওখান থেকে কিছুটা দূরে জাহাঙ্গীর চৌকিদারের বাড়ির পার্শ্বে একটি নির্জন ভরাট জমিতে রাত সাড়ে ৮টায় তাকে নিয়ে যায়। ওখানে কিশোরীকে ধর্ষণ করে বাতেন।

রাত সাড়ে ৯টায় খাবার নিয়ে আসার কথা বলে বাতেন ভিক্টিমের কাছ থেকে কৌশলে সটকে পড়ে এবং তার অপর ২ সহযোগী মনির(২৮) ও কাশেমকে(৩৬) ডেকে এনে মেয়েটির কাছে পাঠায়। মনির ও কাশেম রাত আনুমানিক সাড়ে ১০টায় তাদের এক নিকট আত্মীয়ের বাড়ির কথা বলে ঘটনাস্থল থেকে প্রায় দেড়শত গজ দূরে সুরাইয়া বেগম নামে এক মহিলার বাড়িতে ভিক্টিমকে রাত্রী যাপনের জন্য নিয়ে যায়। ওখানে তাদের টিনশেড ঘরের একটি কক্ষে রাত্রী যাপনের ব্যবস্থা করে সুরাইয়া বেগম পাশের নিজ কক্ষে ঘুমিয়ে পড়েন। এ সুযোগে পাশের কক্ষে অবস্থানরত মনির প্রথমে এবং পরে কাশেম পালাক্রমে ভিকটিম কিশোরীটিকে ভয়ভীতি দেখিয়ে ধর্ষণ করে। এ সময় ভিকটিম অনেক কান্নাকাটি ও অনুনয় বিনয় করেও আসামিদের থেকে নিজেকে রক্ষা করতে পারেনি।

মনির কর্তৃক ভিকটিমকে ধর্ষণ করাকালে আসামি বাতেন ও কাশেম ঘরের বাইরে অপেক্ষায় থাকে। পরে রাত আনুমান ১২টার দিকে মনির ও বাতেন এবং রাত আনুমান পৌনে ১টায় কাশেম ভিকটিমকে আবারো ধর্ষণ শেষে ভিক্টিম যাতে কোথাও যোগাযোগ না করতে পারে তাই তার মোবাইল ফোনটি নিয়ে চলে যায়।
পরদিন (৩০জুলাই সোমবার) সকালে আশ্রিত বাড়ির মালিক সুরাইয়া বেগমকে ভিক্টিম ৩ বখাটে যুবক কর্তৃক ধর্ষণের শিকার হওয়ার তথ্য জানায়। পরে সুরাইয়ার চাপে আসামি কাশেম ভিকটিমের মোবাইল ফোনটি ফেরত দিলে ভিকটিম তার ভাবীকে মোবাইলে নিজের অবস্থানের সংবাদ দেয়। লোকজনের সহায়তায় ভিকটমকে খাদঘর গ্রামস্থ ঘটনাস্থলের ঘর থেকে বাড়ি ফিরিয়ে নিয়ে গেলে ভিকটিম তার মায়ের নিকট ঘটনার বিস্তারিত প্রকাশ করে।

ঘটনার দু’দিন পর ১আগস্ট বুধবার বিকেলে ভিক্টিম তার মা’কে নিয়ে দেবিদ্বার থানায় এসে লিখিত অভিযোগ করেন। ভিক্টিমের মা’ বাদী হয়ে গণধর্ষণের অভিযোগে নারী নির্যাতন দমন আইনের ৯(৩) ধারায় খাদঘর গ্রামের মৃত শাহ আলমের পুত্র আবদুল বাতেন(২৫), দুধ মিয়া’র পুত্র মনির(২৮), মৃত আবদুল ওহাবের পুত্র আবুল কাশেমসহ(৩৬) ৩ বখাটে যুবককে অভিযুক্ত করে মামলা দায়ের করেন।

মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক সরকার আব্দুল্লাহ-আল-মামুন জানান, বৃহস্পতিবার সকালে আসামিদের কুমিল্লা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রোকেয়া বেগমের আদালতে হাজির করলে আসামিরা ধর্ষণের ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে। স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি ১৬৪ধারায় রেকর্ড পূর্বক আসামিদের জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন। একই সাথে ভিক্টিমের ডাক্তারী পরীক্ষা শেষে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রোকেয়া বেগমের নিকট ভিক্টিমের ২২ধারায় জবানবন্দি রেকর্ড করেন।

ওই ঘটনায় দেবীদ্বার থানার অফিসার ইনচার্জ মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে তদন্ত পরিদর্শক সরকার আব্দুল্লাহ-আল-মামুন, উপ-পরিদর্শক প্রেমধন মজুমদার, উপ-পরিদর্শক খালেদ মোশারফ, উপ-পরিদর্শক মোশারফ হোসেনসহ টিম দেবীদ্বার ভানী ইউনিয়নের খাদঘর গ্রামে দ্রুতগতিতে অভিযান চালিয়ে ঘটনায় জড়িত অভিযুক্ত উল্লেখিত ৩ আসামিকেই গ্রেফতার করেন।

দেবিদ্বার থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মিজানুর রহমান জানান, ভিক্টিমের স্বীকারোক্তিতে তার মা বাদী হয়ে মামলা দায়ের’র কয়েক ঘন্টার মধ্যেই টিম দেবীদ্বার অভিযান চালিয়ে ৩ ধর্ষককে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছি এবং ধর্ষিতা ভিক্টিমকে সামনে রেখে ধর্ষকদের জিজ্ঞাসাবাদে ৩ আসামি অকপটে পালাক্রমে ধর্ষণের দায় স্বীকার করে ঘটনার বর্ণনা দেয়। বৃহস্পতিবার সকালে ভিক্টিমের ডাক্তারী পরীক্ষা এবং আসামিদের কোর্ট হাজতে চালান করা হয়েছে।