রবিবার ২১ GwcÖj ২০১৯


কুমিল্লায় বাস শ্রমিকদের অঘোষিত ধর্মঘট চলছে


আমাদের কুমিল্লা .কম :
05.08.2018


মাসুদ আলম।। রাজধানীসহ কুমিল্লা জেলার বিভিন্ন সড়কে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনকে ঘিরে শনিবারও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কসহ কুমিল্লা থেকে সকল সড়ক, মহাসড়কে বাস চলাচল বন্ধ রেখে অঘোষিত ধর্মঘট পালন করছে শ্রমিকরা। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়ে যাত্রী সাধারণ। সিএনজি, লেগুনাসহ হালকা যানবাহনে তিনগুণ ভাড়া দিয়ে যাতায়াত করছে হয়েছে বিভিন্ন পেশাজীবী মানুষদের।

শুক্রবার সকাল থেকে কুমিল্লার শাসনগাছা, জাঙ্গালিয়া এবং চকবাজার বাস টার্মিনালের চালক ও শ্রমিকরা এই ধর্মঘটের ডাক দেয় বলে জানান কুমিল্লা জেলা মোটর অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা বাস মালিক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক আলী মনসুর ফারুক। তিনি বলেন, শুক্রবার শনিবারের মতো রবিবারেও পরিবহন শ্রমিকদের অঘোষিত ধর্মঘট অব্যাহত থাকবে। তবে রাতে দূরপাল্লার বাসগুলো চলাচল করছে বলে তিনি জানান। পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত আমরা ঝুঁকি নিয়ে রাস্তায় বাস ছাড়তে পারবো না।

কুমিল্লা জেলা বাস মালিক সমিতি ও শ্রমিক ইউনিয়ন সূত্র জানায়, যানবাহন ভাঙচুর, চালকদের মারধর ও গাড়িতে আগ্নিসংযোগ করার ঘটনায় চালক ও হেলপারদের মধ্যে এক ধরনের ভয়ে ও আতঙ্ক কাজ করছে। অনিশ্চায়তার কারণে বাস মালিকরা রাস্তায় বাস নামাতে নিষেধ করছেন।

চৌদ্দগ্রাম মানিকপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা জাহেরা আক্তার নামের এক যাত্রী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক আন্দোলনকে বাধাগ্রস্ত করতে পরিবহন শ্রমিকরা বাস বন্ধ করে দিয়েছে। কুমিল্লা থেকে চৌদ্দগ্রাম যাবো, বাস বন্ধ থাকায় লেগুনায় করে বাড়তি ভাড়া ও ঝুঁকি নিয়ে যেতে হচ্ছে। গণ পরিবহন বন্ধ থাকায় যাত্রীরা চরম ভোগান্তিতে পড়েছে।

পাপিয়া বাসের চালক মহিবুর রহমান জানান, শনিবার সকালে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চান্দিনা এবং দাউদকান্দিতে সড়ক অবরোধ করে রেখেছে শিক্ষার্থীরা। এতে বাস নিয়ে সড়কে যেতে আতঙ্ক কাজ করছে। এই ধরণের অনিশ্চায়তার কারণে আমরা টার্মিনাল থেকে বাস বের করতে পারছি না।
কুমিল্লা জেলা বাস মালিক ও শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক কাজী মোতাহের হোসেন বলেন, আমাদের চালক ও শ্রমিকদের নিরাপত্তা নেই। তাই তারা ভয়ে ও আতঙ্কে বাস বন্ধ রেখে ধর্মঘট ডেকেছেন।

কুমিল্লা জেলা বাস মালিক সমিতির সচিব মো. তাজুল ইসলাম বলেন, বৃহস্পতিবার উপকূলের একটি বাসে হামলা চালিয়ে ভাংচুর চালানো হয়েছে। শনিবার সকাল থেকে জেলার বিভিন্ন সড়কে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করছে অবরোধ করে। তাই শুক্রবারের মতো শনিবার থেকে চালক ও শ্রমিকরা বাস বন্ধ রেখে ধর্মঘট পালন করছে। রাজধানীর পরিবেশ স্বাভাবিক হওয়া পর্যন্ত বাস চলাচলও স্বাভাবিক হবেনা বলে আমি মনে করি।