শুক্রবার ১৯ অক্টোবর ২০১৮


কুমিল্লা বিসিকে রেনেটা ওষুধ কোম্পানির অফিস থেকে ৮২ লাখ টাকা লুট


আমাদের কুমিল্লা .কম :
09.10.2018


মাসুদ আলম
পরিকল্পিত ভাবে কুমিল্লা মহানগরীর বিসিক শিল্পনগরী এলাকায় রেনেটা ওষুধ কোম্পানির ডিপো থেকে ৮২ লাখ টাকা ডাকাতি ঘটনা ঘটেছে। লুট হওয়া টাকা এবং ডাকাত দলের সদস্যদের আইনের আওতায় আনতে পুলিশের একাধিক টিক মাঠে রয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিরাপত্তায় নিয়োজিত চার দারোয়ানকে আটক করা হয়েছে। রোববার রাতে রেনেটা ওষুধ কোম্পানির কুমিল্লার ডিপো ম্যানেজার শেখ জহির হাসান বাদী হয়ে কুমিল্লা কোতয়ালী মডেল থানায় অজ্ঞাত ডাকাতদের অভিযুক্ত করে একটি মামলা দায়ের করেন। ডাকাতির ঘটনায় পর কুমিল্লা জেলা পুলিশ, ডিবি, সিআইডি এবং পিবিআই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
পিবিআই কুমিল্লা অঞ্চলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ওসমান গণি জানান, রেনেটা ওষুধ কোম্পানিতে ডাকাতির ঘটনাটি পরিকল্পিত। ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে প্রাথমিক ভাবে যততুটু তথ্য উঠে এসেছে, তাতে বুঝা যাচ্ছে দীর্ঘদিনের পরিকল্পনার পর ডাকাতির ঘটনাটি ঘটেছে। আমরা পৃথকভাবে তদন্ত করছি।
সূত্রে জানা যায়, বিসিক শিল্পনগরী এলাকায় রেনেটা নামের ওষুধ কোম্পানির ডিপোতে শনিবার রাত আড়াইটার দিকে ডাকাত দলের সদস্যরা ডিপোর নিরাপত্তায় থাকা দারোয়ানদের মুখে স্কচটেপ লাগিয়ে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ফেলে। তারপর তারা ডিপোর দোতলায় উঠে দরজার তালা ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করে।
পরবর্তীতের ভল্টের প্রত্যেকটি বক্সের তালা ভেঙ্গে নগদ ৮২ লাখ ৫০ হাজার টাকা লুটসহ আসবাবপত্র ভাংচুর করে।
ডিপো ম্যানেজার শেখ জহির হাসান জানান, ডাকাতির ঘটনায় আমরা থানায় একটি অজ্ঞাত মামলা করেছি। কে বা কারা ডাকাতির ঘটনাটি ঘটিয়েছে এখনও বলতে পারবো না। পুলিশের বিভিন্ন বিভাগ থেকে তদন্ত করছে। ডাকাত দলের সদস্যরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে অনেক ভাংচুর করেছে। এছাড়া নগদ ৮২ লক্ষ টাকা লুট করেছে। সব মিলিয়ে আমাদের কোম্পানির প্রায় কোটি টাকার মতো ক্ষতি হয়েছে।
কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, ওষুধ কোম্পানির ডিপোতে নিরাপত্তায় থাকা জি-৪ এইচ গ্রুপ কোম্পানির চার সদস্যকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। ডাকাতির তথ্য উদঘাটনের জন্য আমাদের তদন্ত অব্যাহত রয়েছে। অভিযুক্তদের গ্রেফতার এবং লুট হওয়া টাকা উদ্ধারে পুলিশের একাধিক টিম মাঠে রয়েছে।