বৃহস্পতিবার ১৯ †m‡Þ¤^i ২০১৯


কুমিল্লার ১১ আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী চূড়ান্ত !


আমাদের কুমিল্লা .কম :
11.11.2018


শাহাজাদা এমরান।।
আগামী ২৩ ডিসেম্বর রোববার জাতীয় সংসদের ১১তম নির্বাচনকে সামনে রেখে ইতিমধ্যে নির্বাচনী তফসিল ঘোষনা করেছে নির্বাচন কমিশন। নির্বাচনকে সামনে রেখে ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ গত শুক্রবার থেকে তাদের মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু করেছে আর আজ রোববার থেকে ক্ষমতাসীন দলের অন্যতম শরীক জাতীয় পার্টি তাদের মনোনয়নপত্র বিক্রি শুরু করবে। তবে দেশের অন্যতম প্রধান বিরোধীদল বিএনপির নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট এখনো নির্বাচনে যাওয়ার এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আনুষ্ঠানিক ঘোষণা না দিলেও ভিতরে ভিতরে প্রায় তিনশ আসনেই প্রার্থী চুড়ান্ত করে ফেলছে। এর মধ্যে রয়েছে কুমিল্লার ১১টি সংসদীয় আসনও।
শনিবার বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির একাধিক নেতার সাথে কথা বলে জানা যায়, আজ কালকের মধ্যেই নির্বাচনের যাওয়ার বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষনা দিবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। তবে পাশা পাশি তাদের চলমান আন্দোলনও কৌশলগত কারণে অব্যাহত থাকবে। নির্বাচনকে তারা চলমান আন্দোলনের অংশ হিসেবেই মনে করছে। শনিবার নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিএনপি দিনব্যাপী দফায় দফায় বৈঠক ও পরে রাতে দীর্ঘ দিনের শরীক ২০ দলের সাথেও বৈঠক করে। আজ রোববার সম্ভবত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সাথেও তাদের নির্বাচন সংক্রান্ত চুড়ান্ত বৈঠক হবে। সূত্র নিশ্চিত করে জানায়, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সাথে বৈঠকের মাধ্যমেই নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক ঘোষনা দেয়া হবে।
বিএনপির মনোনয়ন বোর্ডের (এখনো অঘোষিত) সাথে সম্পর্কিত একাধিক সদস্য ও লন্ডনে অবস্থানরত একাধিক বিশ্বস্ত সূত্র এবং একটি বেসরকারী টেলিভিশনের সংবাদকর্মী(যিনি লন্ডন বিএনপির লবিং এর সাথে জড়িত) এমন সূত্র গুলোর সাথে কথা বলে এবং তাদের কথা গুলো নানা ভাবে ক্রস চেক করে কুমিল্লার ১১টি সংসদীয় আসনের জন্য জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রায় চুড়ান্ত একটি প্রার্থী তালিকা পাওয়া গেছে। পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে কোন ব্যতিক্রম না ঘটলে এই তালিকাটিই চুড়ান্ত বলে জানা গেছে। তবে সূত্র গুলো এ ও জানিয়েছে, আওয়ামীলীগ-বিএনপির মত বড় দলে মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহারের আগ পর্যন্ত কাউকেই শতভাগ নিশ্চিত প্রার্থী বলা অনেকাংশেই মুশকিল। তাই প্রার্থী তালিকাটি যেন প্রায় বা ! বোধক চিহ্ন দিয়ে প্রকাশ করা হয়।
সূত্রে প্রাপ্ত কুমিল্লার ১১টি সংসদীয় আসনের বিএনপি তথা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আসনওয়ারী প্রার্থীরা হলেন, কুমিল্লা-১(দাউদকান্দি-হোমনা), ড. খন্দকার মোশারফ হোসেন , কুমিল্লা-২(হোমনা-তিতাস) মাহমুদ আনোয়ার কাইজার, কুমিল্লা-৩(মুরাদনগর) কাজী মজিবুল হক, কুমিল্লা-৪ দেবিদ্বার) ইঞ্জিনিয়ার মঞ্জুরুল আহসান মুন্সি, কুমিল্লা-৫(বুড়িচং-ব্রাক্ষণপাড়া) শওকত মাহমুদ, কুমিল্লা-৬(সদর উপজেলা ও কুসিকের ২৭টি ওয়ার্ড) হাজী আমিন উর রশীদ ইয়াছিন, কুমিল্লা-৭(চান্দিনা) এড.রেদোয়ান আহমেদ(এলডিপি),কুমিল্লা-৮(বরুড়া) জাকারিয়া তাহের সুমন, কুমিল্লা-৯(লাকসাম-মনোহরগঞ্জ) কর্নেল (অব.) এম আনোয়ারুল আজিম, কুমিল্লা-১০(নাঙ্গলকোট, সদর দক্ষিণ ও লালমাই) আবদুল গফুর ভুইয়া এবং কুমিল্লা-১১(চৌদ্দগ্রাম) ডা.সৈয়দ আবদুল্লাহ মোহাম্মদ তাহের(জামায়াত)।
এই তালিকা সম্পর্কে জানতে চাইলে বিএনপির কেন্দ্রীয় ত্রান ও পুনর্বাসন বিষয়ক সম্পাদক ও কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হাজী আমিন উর রশীদ ইয়াছিন বলেন, এখন তালিকা সম্পর্কে আমার কোন জানা নেই। আমার জানা মতে, আমাদের দল এখনো নির্বাচনে যাওয়ার বিষয়ে আনুষ্ঠানিক সিদ্ধান্ত জানায়নি। এ বিষয়ে আজ (শনিবার) সারা দিন আমাদের বৈঠক হয়েছে। অপেক্ষা করেন নির্বাচনে গেলে খুব শিগগিরই আপনারা জানতে পারবেন কে মনোনয়ন পেল আর কে পেল না।
একই বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির এক প্রভাবশালী সদস্য নিজের নামে এই মুহূর্তে কোন বক্তব্য প্রচার না করতে আহবান জানিয়ে বলেন, আমাদের চলমান আন্দোলন যেমন চলছে ঠিক তেমনি নির্বাচনের প্রস্তুতিও আমাদের রয়েছে। এ জন্য প্রার্থী মনোনয়ন থেকে শুরু করে দলীয় ইশতেহারসহ সার্বিক বিষয়েই আমাদের প্রস্তুতি আছে। সরকার প্রধান আশ্বাস দেওয়ার পরেও সারা দেশেই গায়েবী মামলা প্রতিদিন হচেছ আর নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করছে। আমরা সার্বিক বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করছি।