শনিবার ১৬ জানুয়ারী ২০২১


বুড়িচংয়ে ত্রাসের সুলতান ‘সোলায়মান’


আমাদের কুমিল্লা .কম :
18.11.2018


স্টাফ রিপোর্টার:

রাত পৌনে বারোটা। কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলার গোমতী পালপাড়া ব্রিজের উপর নিয়মিত টহল দিচ্ছিল কোতয়ালী মডেল থানার পুলিশ সদস্যরা। এ সময় শাসনগাছা থেকে একটি প্রাইভেটকার দ্রুত বেগে আসতে দেখে টহলরত পুলিশ সদস্যরা গাড়িটিকে থামার জন্য সিগনাল দেয়। পুলিশের সামনে এসে গাড়িটি থামে। পুলিশ কাছে গিয়ে নাম জিজ্ঞেস করতেই গাড়ির দরজা খুলেই দৌঁড়ে পালিয়ে যায় ষোলনল গ্রামের সাকু মিয়ার ছেলে সোলায়মান (৩০) ও তার সঙ্গী বুড়িচং উপজেলার ছয়ঘড়িয়া এলাকার ওসমান মিয়ার ছেলে লিটন(৩২) । ঘটনাটি গত শুক্রবার রাতের।

কোতয়ালী ও বুড়িচং মডেল থানার সূত্র অনুযায়ী, সোলায়মান পুলিশের তালিকাভুক্ত অন্যতম সন্ত্রাসী। গত ২০১৭ সালের ১১ এপ্রিল আদর্শ সদর উপজেলার জামবাড়ী এলাকার আবদুল মান্নানের ছেলে হকার ফারুক মিয়া (২৮) হত্যার প্রধান আসামি। এ হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কোতয়ালী মডেল থানার ছত্রখিল ফাঁড়ির ইনচার্জ বর্তমানে বুড়িচং উপজেলার দেবপুর ফাঁড়িতে কর্মরত উপ-পরিদর্শক শাহিন কাদির তথ্যনুসন্ধানে জানতে পারেন, এ হত্যা মামলার সাথে সোলায়মান জড়িত এ মর্মে আদালতে তিনি তথ্যানুসন্ধানের বিষয়টি উপস্থাপন করেন। পরে মামলাটি আরো অধিক তদন্তের জন্য পিবিআইতে পাঠানো হয়। বর্তমানে হকার ফারুক হত্যা মামলাটি পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের পরিদর্শক ইখতিয়ারের তদন্তে রয়েছে।

এক সময়ের ছাত্রদলের সক্রিয় কর্মী বর্তমানে ছাত্রলীগের নাম ভাঙ্গিয়ে চলা সোলায়মান বুড়িচং উপজেলায় ত্রাসের রাজত্ব সৃষ্টি করেছে। এমন অপরাধ নেই যা সোলায়মান করে না, এমনই অভিযোগ বুড়িচং উপজেলার ভরাসার বাজারের অর্ধশতাধিক ব্যবসায়ীর। নাম না প্রকাশের শর্তে বুড়িচং উপজেলা ও ভরাসার বাজারের ব্যবসায়ীরা জানান, রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে সোলায়মান প্রায়ই তাদের কাছে চাঁদা দাবি করে। দাবিকৃত চাঁদা না পেলে সোলেমান ও তার সঙ্গীরা হামলা চালায়।
গত ২০১৬ সালের ৫ মে উপজেলার ভরাসার বাজারের অদূরে সোলায়মান ও সঙ্গীরা মৃত আবিদ আলীর ছেলে মো:মনিরুল ইসলামের উপর হামলা চালায়। হামলার কারণ অনুসন্ধানে মো:মনিরুল ইসলাম জানান, সোলেমানের দাবিকৃত চাঁদা না দেয়ায় এ আক্রমণ করা হয়েছে। আক্রমনের সময় অভিযুক্ত সোলায়মান মো:মনিরকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। স্থানীয়রা গুলিবিদ্ধ মনিরকে উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। এ বিষয়ে বুড়িচং থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়।
নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়,সোলায়মান নম্বরপত্রবিহীন একটি সাদা রংয়ের আর ওয়ান ফাইভ মোটর বাইক নিয়ে বুড়িচং উপজেলার ভারত বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী নবিয়াবাদ,শংকুচাইল পাহাড়পুর এলাকায় গিয়ে মাদক ব্যবসায়ীদের থেকে চাঁদা আদায় করে।
এদিকে গত বছর ভরাসার বাজার থেকে র‌্যাব সোলায়মানকে আটক করলে ভরাসার বাজারের ব্যবসায়ীরা বাজারে সকলের মাঝে মিষ্টি বিতরণ করেন।
অভিযুক্ত সোলায়মানের বক্তব্য নেয়ার জন্য ফোনে যোগাযোগ করা হলে,সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে তিনি লাইন কেটে দেন।

কুমিল্লা কোতয়ালী থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক আলমগীর জানান, আদর্শ সদর উপজেলার গোমতীনদীর পালপাড়া ব্রিজের উপরে রাতে টহলরত অবস্থায় শাসনগাছা এলাকা থেকে একটি প্রাইভেটকার (ঢাকা-মেট্রো.ক ১১-৪১০১) দ্রুত গতিতে আসতে দেখে গাড়িটি থামানোর জন্য সিগন্যাল দেই। এ সময় গাড়িটি পুলিশের কাছে এসে থামে। পুলিশ সদস্যরা গাড়ির কাছে যাওয়ার মুহূর্তেই গাড়ির দরজা খুলে দৌঁড়ে পালিয়ে যায় গাড়িটির চালকের আসনে থাকা পুলিশের তালিকাভুক্ত অন্যতম সন্ত্রাসী সোলায়মান(৩০) ও তার সঙ্গী বুড়িচং উপজেলার ছয়ঘড়িয়া এলাকার ওসমান মিয়ার ছেলে লিটন (৩২)।
কোতয়ালী মডেল থানার ওসি আবু ছালাম মিয়া জানান, শুনেছি সোলায়মান একজন দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী। তার বিরুদ্ধে হত্যা মামলা রয়েছে, যা এখন (পিআইবিতে) তদন্তনাধীন। পরে গাড়িটির ভেতরে তল্লাসী চালিয়ে সোলায়মানের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন, গাড়ির চাবিসহ নগরীর কালিয়াজুড়ি এলাকার একজন তরুণীকে পাওয়া যায়। ডিউটিরত পুলিশ সদস্যরা গাড়িটিকে থানায় নিয়ে আসে। তরুণীকে তার বাবা মার হাতে তুলে দেয়া হয়। জব্দ করা প্রাইভেট কারসহ এ ঘটনার সাথে জড়িতদের বিষয়ে আমরা আরো ব্যাপক তথ্যানুসন্ধান করছি। অনুসন্ধানের পরে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেবো।