শনিবার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮
  • প্রচ্ছদ »জাতীয় » মহীউদ্দীন খান আলমগীরের হলফনামায় নেই স্থাবর-অস্থাবর সম্পদের বিবরণ


মহীউদ্দীন খান আলমগীরের হলফনামায় নেই স্থাবর-অস্থাবর সম্পদের বিবরণ


আমাদের কুমিল্লা .কম :
05.12.2018


চাঁদপুর প্রতিনিধি
চাঁদপুর-১ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রাপ্ত সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীরের হলফনামায় স্থাবর ও অস্থাবর সম্পত্তির বিবরণ খুঁজে পাওয়া যায়নি। হলফনামার ৫নং টেবিলে প্রার্থীর আয়ের উৎসগুলোতে বার্ষিক আয়ের উল্লেখ রয়েছে। তবে ৬নং টেবিলের ছকে প্রার্থীর অস্থাবর-স্থাবর সম্পদের বিবরণ লেখা হয়নি।

হলফনামায় শুধু বার্ষিক আয়ের উৎস দেখানো হয়েছে ১৬ কোটি ৫৮ লাখ ৩৮ হাজার ৭৩৩ টাকা। এর মধ্যে কৃষিখাতে প্রার্থীর বার্ষিক আয় দেখানো হয়েছে ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা, বাড়ি/এপার্টমেন্ট/দোকান বা অন্যান্য ভাড়া থেকে আয় ১০ লাখ ২০ হাজার ৯৮৪ টাকা, ব্যবসা থেকে বছরে আয় ১৫ কোটি ৩৬ লাখ ৩০ হাজার ৭৫০ টাকা, শেয়ার/সঞ্চয়পত্র/ব্যাংক আমানত/ব্যাংক সুদ/এফডিআর সুদ বাবদ আয় ২৮ লাখ ৪ হাজার ৯৯৯টাকা এবং অন্যান্য বেতন থেকে বার্ষিক আয় ৭৯ লাখ ৩২ হাজার টাকা।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২৬০ চাঁদপুর-১ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে নির্বাচন করতে হলফনামায় এ তথ্য দেওয়া হয়েছে।

অর্থনীতিতে পিএইচডিধারী এ সাবেক আমলার বিরুদ্ধে ২০০১ সাল থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত নির্বাচনি এলাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে দুর্নীতি, হত্যার চেষ্টা, চুরি, অপরাধমূলক বিশ্বাসভঙ্গ, বিপজ্জনক উপায়ে গুরতর আঘাতসহ বেশ কিছু অভিযোগে ৮টি মামলা দায়ের করা হয়। পরবর্তীতে বিভিন্ন সময় এসম মামলা থেকে অব্যাহতি পান। এর মধ্যে ২০০৭ সালে তেজগাঁও থানায় দুর্নীতি দমন আইনে দায়েরকৃত মামলাটি হাইকোর্ট বাতিল করেন।

এ বিষয়ে ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীরের হলফনামা শনাক্তকারী আইনজীবী হেলাল উদ্দিন বলেন, ‘হলফনামাটি সম্পাদন হয় ইনকাম টেক্সের ফাইল অনুযায়ী। সেখানে যেভাবে আছে হলফনামাতেও সেভাবেই তথ্য উপস্থাপন করা হয়েছে। ওনার রিটার্নে যা আছে তাই দেওয়া হয়েছে।’

গত রবিবার বাছাইয়ে চাঁদপুরের ৫টি আসনে মনোনয়নত্র দাখিল করা ৫৯ জন প্রার্থীর মধ্যে ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীরসহ ৫১ জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করেন জেলা রিটার্নিং অফিসার মো. মাজেদুর রহমান খান।