বুধবার ১২ অগাস্ট ২০২০


‘সরানো হবে চকবাজার বাসস্ট্যান্ড: উচ্ছেদ করা হবে অবৈধ স্থাপনা’


আমাদের কুমিল্লা .কম :
14.01.2019


মাহফুজ নান্টু।।

কুমিল্লা মহানগরীকে সাধারণ মানুষের বসবাস উপযোগী সুন্দর-পরিচ্ছন্ন এবং যানজটমুক্ত করে গড়ে তোলার লক্ষ্যে শীঘ্রই উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হবে। নগরীর চকবাজার বাসস্ট্যান্ডকে সরিয়ে আরো পূর্ব দিকে নিয়ে যাওয়া হবে। পাশাপাশি নগরীর ভেতর ও বাইরে প্রধান, সংযোগ সড়কে অবৈধ সিএনজি স্ট্যান্ডসহ সড়কগুলোর পাশে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হবে। গতকাল জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে মাসিক আইনশৃংখলা কমিটির সভায় সভাপতির বক্তব্য কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মো:আবুল ফজল মীর এ কথা বলেন।
এ সময় তিনি আরো বলেন, কুমিল্লার সদর আসনের সাংসদ বীরমুক্তিযোদ্ধা আ.ক.ম বাহাউদ্দিন বাহার,সিটি মেয়র মো:মনিরুল হক সাক্কুসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গের সাথে সমন্বয় করে এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করা হবে। অন্যথায় শুধু আইনশৃংখলা বাহিনীর মাধ্যমে নগরীকে যানজটমুক্ত করা যাবে না।
সভায় উপস্থিত কুমিল্লা জেলা পুলিশ সুপার সৈয়দ মো:নুরুল ইসলাম তার বক্তব্য বলেন, কুমিল্লা শান্তির শহর। তবে এখানে প্রধান সড়ক-সংযোগ সড়কে অবৈধ সিএনজি স্ট্যান্ড,অটোবাইক স্ট্যান্ড গড়ে উঠেছে। এছাড়াও বিভিন্ন সড়কের পাশে দোকানের সামনে দোকান ভাড়া দিয়ে সড়কগুলোকে সংকীর্ণ করা হয়েছে। এতে করে যানবাহন ও পথচারীদের চলাচল বিঘœ হচ্ছে।
পুলিশ সুপার যানজটের মূল বিষয়গুলো উপস্থাপনের জন্য সভায় উপস্থিত ট্রাফিক ইন্সপেক্টর কামাল উদ্দিনকে বলেন। কামাল উদ্দিন জানান, নগরীতে যে পরিমাণ ট্রাফিক সদস্য কাজ করে তা যথেষ্ট না হলেও অবৈধ বাসস্ট্যান্ড, নগরীর প্রধান সড়কের ব্যস্ততম মোড়ে সিএনজি স্ট্যান্ড-ইজিবাইকের দৌরাত্বের কারণে দিনভর যানজট লেগে থাকে। একজন ট্রাফিক পুলিশের কাজ হলো সিগনাল দিয়ে সুশৃংখলভাবে যানবাহন চলাচলে সহয়তা করা। কিন্তু নগরীতে গড়ে উঠা অবৈধ সিএনজি স্ট্যান্ডের কারণে লাঠি দিয়ে দিনভর সিএনজি অটোরিক্সার পেছনে পেটাতে হয় ট্রাফিক সদস্যদের। এটা কিন্তু ট্রাফিক পুলিশের কাজ নয়। এছাড়া নগরীর প্রধান সড়কের পাশে দোকান খুলে সে দোকানের সামনে আবার দোকান ভাড়া দিয়ে সড়কগুলোকে সংকীর্ণ করা হয়েছে। এছাড়া সড়কের পাশে গাড়ি পার্কিং করে মালামাল উঠানামা এবং শপিংমলের সামনে ব্যক্তিগত গাড়ি পাকিং নগরীর পুরোনো চিত্র। যার ফলে নগরীতে নিয়মিত যানজট লেগে থাকে। এভাবে থাকলে কোনদিন যানজট নিরসন সম্ভব নয়। তাই যানজট নিরসন কল্পে সড়কের পাশে অবৈধ স্থাপনা-বাসস্ট্যান্ড-সিএনজি ও অটোবাইক স্ট্যান্ড উচ্ছেদ করে টাউন সার্ভিস শুরু করলে যানজট শূন্যও কোঠায় নেমে আসবে।

শাসনগাছা রেলওয়ের ওভারপাস নির্মাণ হলেও ওভারপাসের নীচে সড়ক দখল করে গড়ে তোলা হয়েছে দোকানপাট। যা রেলওয়ে ওভারপাস নির্মাণের উদ্দেশ্যকে ম্লান করে দেয় উল্লেখ করে সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এড. আমিনুল ইসলাম টুটুল ফুটপাতের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
এদিকে চান্দিনা ও বুড়িচং এলাকায় রেজভীয়া মতাদর্শীদের নিজস্ব ফতোয়া জারির মাধ্যমে নামাজ আদায় করা নিয়ে অন্যান্য মুসুল্লিদের সাথে দূরত্ব তৈরি হয়ে সংঘর্ষে রুপ নিতে পারে। সে জন্য চান্দিনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম জাকারিয়া এবং জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক শাহ মো:আলমগীর খান জেলা প্রশাসক মো: আবুল ফজল মীরের প্রতি বিষয়টি নজরদারীর আহবান জানান।
পুলিশ সুপার মো:নুরুল ইসলাম তার বক্তব্য বলেন, আমরা কুমিল্লা জেলায় বিক্ষিপ্ত কিছু ঘটনা ছাড়া শান্তিপূর্ণভাবেই একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সম্পন্ন করতে পেরেছি। এ জন্য কুমিল্লাবাসীর প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) কায়জার মোহাম্মদ ফারাবীর সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপপরিচালক সরকার সারোয়ার আলম,সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোফাজ্জল হায়দার,সিটি কর্পোরেশনের সচিব হেলাল উদ্দিন, বিআরটিএর সদ্য বিদায়ী সহকারী প্রকৌশলী নুরুজ্জামান,সদ্য যোগদান করা সহকারী প্রকৌশলী আশরাফ সিদ্দিকি প্রমুখ।