শনিবার ২৪ অক্টোবর ২০২০
  • প্রচ্ছদ » sub lead 1 » নাঙ্গলকোটে মা-বাবার সাথে অভিমান করে গলায় ফাঁস দিয়ে এসএসসি পরীক্ষার্থীর আতহত্যা


নাঙ্গলকোটে মা-বাবার সাথে অভিমান করে গলায় ফাঁস দিয়ে এসএসসি পরীক্ষার্থীর আতহত্যা


আমাদের কুমিল্লা .কম :
22.01.2019

 

নাঙ্গলকোট প্রতিনিধি-

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে বিয়েতে রাজী না হওয়ায় মা-বাবার মারধরের শিকার হয়ে অভিমান করে এসএসসি পরীক্ষার্থী জেসমিন আক্তার (১৬) গলায় ফাঁস দিয়ে আতœহত্যা করার অভিযোগ উঠেছে । গত সোমবার রাতে উপজেলার জোড্ডা পূর্ব ইউনিয়নের আটঘরা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত জেসমিন আক্তার ওই গ্রামের মফিজুর রহমানের মেয়ে। সে পানকরা হাফেজা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত সোমবার বিকেলে উপজেলার জোড্ডা পূর্ব ইউনিয়নের নোয়াপাড়া গ্রাম থেকে পাত্রপক্ষ বিয়ের জন্য জেসমিন আক্তারকে দেখতে আসে। জেসমিন সামনে এসএসসি পরীক্ষাসহ অল্পবয়সে বিয়ে করতে রাজি না বলে মা-বাবাকে জানিয়ে দেয়। এনিয়ে জেসমিনের বাবা মফিজুর রহমান ক্ষুদ্ধ হয়ে জেসমিনকে মারধর ও বকুনি দিয়ে তার কর্মস্থল চট্রগ্রামে চলে যায়। পরে ওইদিন রাতে জেসমিন নিজের রুমের বুতুরের সাথে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে।
এদিকে, জেসমিন আক্তারের মা ফাতেমা বেগম বলেন, আমার মেয়ে জেসমিন আক্তার আসন্ন এসএসসি পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য সোমবার গভীর রাত পর্যন্ত পড়ালেখা করে নিজের রুমে ঘুমাতে যায়। গতকাল মঙ্গলবার ভোরে ফজরের নামায আদায়ের জন্য জেসমিনকে ঘুম থেকে ডাকতে গেলে রুমে দরজা না খোলায়, জানালার পাশে গিয়ে জেসমিনকে ঘরের বুতুরের সাথে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় ঝুঁলতে দেখা যায়। পরে আমরা ঘরের দরজা ভেঙ্গে ভেতরে প্রবেশ করি। এ ঘটনায় পুলিশকে খবর দেয়া হলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।
নাঙ্গলকোট থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম জানান, পুলিশ জেসমিনের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছি। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা যায়, মেয়েটি আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্ট পাওয়া গেলে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।