রবিবার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯


কুমিল্লার শপিং মল- ফুটপাতজুড়ে ঈদের আমেজ


আমাদের কুমিল্লা .কম :
23.05.2019


মাহফুজ নান্টু।।
ঈদুল ফিতরের এখনো বাকি ১৪দিন। তার আগেই উৎসবের আমেজে নিজেদের আমোদিত করতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন অনেকে। সারা দেশের ন্যায় আসন্ন পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে সেজে উঠেছে কুমিল্লা মহানগরীর অভিজাত বিপনী বিতান। সেই সাথে নিম্ন আয়ের মানুষজনদের জন্য বিক্রেতারা ফুটপাতজুড়েও বাঁশ- কাঠের ফ্রেমে থরে থরে সাজানো হয়েছে নতুন ঘ্রাণের বর্ণিল পোষাক।
কুমিল্লা মহানগরীর প্রাণকেন্দ্র কান্দিরপাড় এলাকায় সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, ক্রেতা আকর্ষণের জন্য অভিজাত বিপনী বিতানগুলোতে চোখ ধাঁধাঁনো আলোকসজ্জা ও বিপনী বিতানে প্রবেশদ্বারে নান্দনিক ইন্টেরিয়র ডিজাইন করা হয়েছে।
নগরীর কান্দিরপাড়ের অভিজাত বিপনী বিতান খন্দকার হক টাওয়ার, সাত্তার খান, সুফিয়া ম্যানশন,হিলটন টাওয়ার, নগরীর রেইসকোর্সের ইষ্টার্ণ ইয়াকুব প্লাজায় ঘুরে ক্রেতা-বিক্রেতাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, এ বছর দশ রমজান থেকেই বেচাকেনা শুরু হয়েছে। জমে উঠেছে প্রতিটি বিপনী বিতান।
নগরীর কান্দিরপাড়ের অভিজাত বিপনী বিতান খন্দকার হক টাওয়ার, সাত্তার খানে ঘুরে ঈদের নতুন পোষাক কিনেছেন একটি বেসরকারি ব্যাংকের এজিএম আবদুর রহমান। তিনি জানান, একটু আগেভাগেই পরিবার পরিজনসহ আত্মীয় স্বজনদের জন্য ঈদের নতুন পোষাক কিনেছেন। কারণ আর কয়েক দিন পরে ভীড় আরো বাড়বে। তাই একটু আগে ভাগেই কেনাকাটা শেষ করলেন এই ব্যাংক কর্মকর্তা।
ঈদে নিজের জন্য নিজের বাবা মা- স্বামী,সন্তান ও শ্বশুর শাশুড়ির জন্য নতুন পোষাক কিনেছেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের জীববিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মেহেরুন্নেচ্ছা। তিনি জানান, ঈদ যত ঘনিয়ে আসছে শপিং মলগুলোতে ভীড় তত বাড়ছে। শ্বশুরবাড়ি চাঁদপুরে ঈদ করবেন। তাই একটু আগে থেকে কেনাকাটা শেষ করে নিলেন।
এদিকে ক্রেতাদের কেনাকাটার সুবিধার কথা চিন্তা করে শপিংমলের আধুনিকায়ন,নিরাপত্তা ব্যবস্থাসহ আনুষাঙ্গিক কাজ করেছেন নগরীর রেইসকোর্সে অবস্থিত অন্যতম অভিজাত বিপনী বিতান ইষ্টার্ণ ইয়াকুব প্লাজার দোকান মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুরুল আলম ভূঁইয়া মঞ্জু। তিনি জানান, ঈদ উপলক্ষে ক্রেতারা যেন গুণগত মান সম্পন্ন পোষাক কিনতে পারে সে লক্ষে শপিংমলের সকল দোকানীকে বলে দেয়া হয়েছে। এছাড়াও জেলা পুলিশের কাছে ক্রেতা বিক্রেতাদের সার্বিক নিরাপত্তার জন্য পুলিশী টহল জোরদার করার জন্য বলেছি। সব মিলিয়ে বলা যায়, ব্যবসায়ী ও ক্রেতারা যেন নির্বিঘেœ ঈদে কেনাকাটা করতে পারে সে ব্যবস্থা করা হয়েছে।
এদিকে নগরীর প্রধান সড়কের পাশের ফুটপাতজুড়ে বাঁশ কাঠ ও পলিথিন দিয়ে অস্থায়ী দোকানঘর তৈরী করে নতুন পোষাক বিক্রি করছেন স্থায়ী ও মৌসুমি কাপড় বিক্রেতারা। তাদের হাকডাক ও ক্রেতাদের পদচারণায় মুখর হয়ে আছে নগরীর ফুটপাথগুলো। মধ্যরাত পর্যন্ত চলে বেচাকেনা। সব মিলিয়ে বলা যায় আসন্ন ঈদের আমেজকে আরো বাড়িয়ে নিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কুমিল্লাবাসী।
এদিকে ঈদে কেনাকাটা করতে আসা ক্রেতা বিক্রেতাদের সার্বিক নিরাপত্তার বিষয়ে জেলা পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম জানান,ঈদ উপলক্ষে যেন কোন প্রকার অপ্রীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি না হয় সে জন্য জেলা পুলিশ সর্বদা সতর্ক রয়েছে।