বৃহস্পতিবার ১৪ নভেম্বর ২০১৯


কুমিল্লার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি ১০৭ জন


আমাদের কুমিল্লা .কম :
07.08.2019

বাড়ছে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা

আবু সুফিয়ান রাসেল।।
কুমিল্লায় ক্রমশ বাড়ছে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা। দৈনিক যে পরিমাণ রোগী ছাড়পত্র নিচ্ছে তার থেকে প্রায় দেড়গুণ রোগী হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে। কুমেক হাসপাতাল, জেলা সদর ও বেসরকারি হাসপাতালে মোট ভর্তি আছে ১০৭ জন। কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালে এক বছরের কম বসয়ী শিশুদের ডেঙ্গু আক্রান্তের খবর পাওয়া গেছে। শিশুরা কুমিল্লা থেকেই আক্রান্ত হয়েছে দাবি পরিবারের।
কুমেক হাসপাতাল আবাসিক চিকিৎসক ডা. অরুপ কুমার রায়ের প্রদত্ত ডেঙ্গু মনিটরিং প্রতিবেদন মতে, গত ৬,৫,৪,৩ তারিখ চিকিৎসাধীন রোগী যথাক্রমে ৮১,৭৮,৭০,৬৮ জন। ছাড়পত্র পেয়েছে ১৬২ জন।
কুমিল্লায় শিশু ডেঙ্গু আক্রান্তের খবর পাওয়া গেছে। ৩ মাসের শিশু সাফিসা গত ৪ তারিখ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার বাবা মো. নাছির উদ্দিন জানান, নাঙ্গলকোটে একটি ক্লিনিকে পরীক্ষা করে ডেঙ্গু ধরা পড়লে এ হাসপাতালে নিয়ে আসি। অবস্থার তেমন কোন পরিবর্তন নেই। গত ৩ মাসে পরিবারের কেউ কুমিল্লার বাইরে যাতায়াত করেনি।
মুরাদনগর থেকে আসা ৯ মাসের শিশু জান্নাতের মা জানান, শিশুর বাবা

ঢাকায় থাকেন। তবে তিনি ডেঙ্গু আক্রান্ত নন। গত কয়েক মাসে শিশু ও আমি নিজ কোথাও বেড়াতে যাইনি।
কুমেক হাসপাতাল পরিচালক ডা. স্বপন কুমার অধিকারি জানান, ডেঙ্গু রোগীর স্বজনদের সাথে মতবিনিময় সভা করা হয়েছে। ডাক্তার, নার্সসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে দিকনির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। ডেঙ্গু রোগীদের পৃথক ফ্লোরে রাখা হয়েছে। দু’টি ডেঙ্গু আক্রান্ত শিশু আছে। তারা প্রথমে শিশু বিভাগে ছিলো, এখন সংক্রামক বিভাগে আছে। যদি সুস্থ হয়ে যায়, রিলিজ পাবে শিগ্রই অন্যথায় ডেঙ্গু কর্নারে স্থানান্তর করা হতে পারে। হাসপাতালের জরুরি বিভাগ ও ডেঙ্গু কর্নার ইনচার্জ সালমা আক্তার ও মহিলা ওয়ার্ড থেকে প্রাপ্ত সর্বশেষ তথ্য মতে,গতকাল সকাল থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত মোট ভর্তি ৩৩ জন।
জেলা সিভিল সার্জন ডা. মুজিবুর রহমান জানান, কুমেক হাসপাতাল, জেলা সদর ও বেসরকারি হাসপাতালে মোট ভর্তি আছে ১০৭ জন। এ পর্যন্ত ছাড়পত্র পেয়েছে ২৮৯ জন। গতকাল ছাড়পত্র পেয়েছে ৪০ রোগী।

ক্যাপশন: সিট না পেয়ে হাসপাতালের বারান্দায় চিকিৎসাধীন ডেঙ্গু রোগী। কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে তোলা ছবি।