বৃহস্পতিবার ১৭ অক্টোবর ২০১৯


কুমিল্লার ৭৯৬টি পূজা ম-প থাকবে গোয়েন্দা নজরদারীতে


আমাদের কুমিল্লা .কম :
24.09.2019

স্টাফ রিপোর্টার।। হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা সুষ্ঠু, সুন্দর ও উৎসবমুখর পরিবেশে উদযাপনের লক্ষে গতকাল সোমবার বিকেলে কুমিল্লা জেলাপ্রশাসনের কার্যালয়ে এক প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সভায় জানানো হয়- এ বছর কুমিল্লা জেলা ৭৯৬টি পূজামণ্ডপে শারদীয় দুর্গোৎসব অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলায় ৬৭টি, চৌদ্দগ্রাম উপজেলায় ২৪টি, তিতাস উপজেলায় ১৫টি, মেঘনা উপজেলায় ০৬টি, দাউদকান্দি উপজেলায় ৫৩টি, সদর দক্ষিণ উপজেলায় ৪৩টি, মুরাদনগর উপজেলায় ১৫৫টি, হোমনা উপজেলায় ৫০টি, নাঙ্গলকোট উপজেলায় ০৮টি, চান্দিনা উপজেলায় ৬৬টি, মনোহরগঞ্জ উপজেলায় ১৩টি, দেবিদ্বার উপজেলায় ৯৫টি, ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলায় ১৪টি, বরুড়া উপজেলায় ৯৭টি, লাকসাম উপজেলায় ৩৪টি, বুড়িচং উপজেলায় ৪১টি ও লালমাই উপজেলায় ১৫টি।
প্রস্তুতিমূলক সভায় কুমিল্লার জেলা প্রশাসক আবুল ফজল মীর বলেন, ধর্ম-বর্ণ-নির্বিশেষে সকল সম্প্রদায়ের মধ্যে সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতির সর্ম্পক গড়ে তুলতে প্রশাসন বদ্ধপরিকর। আসন্ন শারদীয় দুর্গোৎসবকে সার্বজনীন উৎসবে রূপ দিতে সকল প্রকার অশুভ ও সাম্প্রদায়িক শক্তির বিরুদ্ধে সজাগ থাকার জন্য সকলের প্রতি আহবান জানান জেলা প্রশাসক। এ ছাড়াও আসন্ন শারদীয় দুর্গাপূজা সুন্দর ও সুষ্ঠুভাবে উদ্যাপনে উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে ভিজিলেন্স টিম গঠন এবং ইভটিজিং ও মাদক সেবন প্রতিরোধকল্পে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসারগণকে সচেষ্ট থাকতে হবে।
কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুল্লাহ্-আল-মামুন বলেন- আসন্ন শারদীয় দুর্গোৎসবকে সার্বজনীন উৎসবে রূপ দেয়াসহ যে কোন ধরনের নাশকতা ঠেকাতে কুমিল্লার পুলিশ সুপার মোঃ সৈয়দ নূরুল ইসলাম বিপিএম (বার) পিপিএম এর নির্দেশক্রমে
কুমিল্লার ১৭ উপজেলায় নেয়া হবে সর্বাত্মক নিরাপত্তা ব্যবস্থা। তিনি বলেন- পূজা মণ্ডপগুলোর নিরাপত্তার স্বার্থে মণ্ডপগুলোতে সিসি ক্যামেরা/আই.পি ক্যামেরা স্থাপনসহ দর্শনার্থীদের প্রবেশপথে মেটাল ডিটেক্টর বা মেটাল ডিটেক্টর গেট এর ব্যবস্থা রাখতে হবে। এ ছাড়াও মাঠে থাকবে র‌্যাব ও বিজিবিসহ গোয়েন্দা নজরদারীতে।
কুমিল্লার জেলা প্রশাসক মো: আবুল ফজল মীর সভাপতিত্বে আয়োজিত সভায় বক্তব্য রাখেন- কুমিল্লার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) কাইজার মোহাম্মদ ফারাবী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (দক্ষিণ) আব্দুল্লাহ্-আল-মামুন, বাংলাদেশ পূজা উদ্যাপন পরিষদ কুমিল্লা জেলা শাখার সভাপতি ও চান্দিনা উপজেলা চেয়ারম্যান তপন কুমার বকসী, বাংলাদেশ পূজা উদ্যাপন পরিষদ কুমিল্লা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক ট্রাস্টি র্নিমল পাল, বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ কুমিল্লা জেলা শাখার সভাপতি চন্দন কুমার রায়, সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ তাপস কুমার বকসী, তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট তাপস চন্দ্র সরকার, বাংলাদেশ পূজা উদ্যাপন পরিষদ কুমিল্লা মহানগর শাখার সভাপতি শিবু প্রসাদ রায়, সাধারণ সম্পাদক অচিন্ত্য দাশ টিটু, সাংগঠনিক সম্পাদক ডি.কে নাগ (কানাই), বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট কুমিল্লা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মানিক কুমার ভৌমিকসহ বিভিন্ন উপজেলা হতে আগত পূজা উদযাপন কমিটির নেতৃবৃন্দ।

এদিকে শুভ মহালয়ার মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকতা শুরু হলেও মূলতঃ আগামী ৪ঠা অক্টোবর শুক্রবার মহাষষ্ঠী তিথিতে দেবী দুর্গার বোধন, আমন্ত্রণ ও অধিবাসের মধ্যদিয়ে শুরু আর ৮ অক্টোবর মঙ্গলবার বিজয়া দশমীর পর প্রতিমা বির্সজনের মধ্যদিয়ে শেষ হবে সনাতনী ধর্মাবলম্বীদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গোৎসব।