মঙ্গল্বার ১৯ নভেম্বর ২০১৯
  • প্রচ্ছদ » sub lead 2 » মুরাদনগরে ১৫দিনেও আটক হয়নি শেলী হত্যার আসামী


মুরাদনগরে ১৫দিনেও আটক হয়নি শেলী হত্যার আসামী


আমাদের কুমিল্লা .কম :
04.10.2019

এন এ মুরাদ, মুরাদনগর।। মুরাদনগরে স্বামীর হাতে স্ত্রী খুনের ঘটনার ১৫দিন পেরিয়ে গেছে এখনো আটক হয়নি হত্যার মূল আসামি নিহতের স্বামী আব্দুল কাদের জিলানী (৩২)।
নিহতের বড় ভাই জসিম উদ্দিন জানায়, আমার বোন সেলিনা আক্তার শেলিকে (৪) চার বছর পূর্বে ভালবেসে বিয়ে করেন নবীপুর গ্রামের মৃত শাহজাহান মিয়ার ছেলে আঃ কাদের জিলানী । বিবাহিত জীবনে তাদের ৩ বছরের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে।
বিয়ের পর শেলি জানতে পারেন তার স্বামী আগেও একটি বিয়ে করেছেন, এবং ওই বউ রেখেই তাকে বিয়ে করেন। শেলীর পছন্দের বিয়ে বলে সব মেনে নিয়ে জিলানীর সাথে ঘরবাঁধে আমার বোন । প্রথম সন্তানের ৩ বছর পর আবারও শেলির পেটে জিলানির ২য় সন্তান আসে। মৃত অবস্থায় তার পেটের অনাগত সন্তানের বয়স হয়েছিল ৪ মাস। ওই সন্তান দুনিয়ার আলো দেখার আগেই ঘাতক পিতা তার মাকে হত্যা করে পালিয়ে যায়।
উক্ত ঘটনায় ১৮ সেপ্টেম্বর মুরাদনগর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়।
মামলার সূত্রে জানাযায়, রহিমপুর গ্রামের আব্দুস সোবহানের মেয়েকে ভালবেসে বিয়ে করেন জিলানী। বিবাহের পর থেকেই নিহত শেলির জামাই শশুর বাড়িতে থাকত। টাকা পয়সা নিয়ে ওদের মাঝে প্রাই ঝগড়া হতো। ছোট খাট বিষয়ে জিলানী তার স্ত্রী শেলিকে মারধর করত। ঘটনার দিন ১৭ সেপ্টেম্বর রাত ১১টায় শেলী ও তার স্বামীর মাঝে একটি সিমকাট নিয়ে কিছু কথা কাটাকাটি চলে। একপর্যায়ে তাদের ঝগড়া চরমে পৌছলে নিহতের পিতা আব্দুস সোবহান পাশের ঘর থেকে উঠে এসে সকালে এর মিমাংশা করে দিবেন বলে আশ^াস দেন। তারপর গভীর রাতে ঘাতক স্বামী তার স্ত্রী শেলিকে শ^াসরোধ করে হত্যা করে পালিয়ে যায়।
সকাল বেলা মেয়ে ও মেয়ের জামাইর কোন সাড়া শব্দ না পেয়ে তাদের শয়ন কক্ষে ডাকতে গিয়ে দেখেন জামাই নাই মেয়ের লাশ খাটের উপর পড়ে আছে।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই নাজমূল আলম বলেন, আসামীকে আটক করার জন্য বেশ কয়েকবার অভিযান করা হয়েছে সে পলাত থাকায় তাকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। ধূর্ত ওই আসামীকে ধরতে পুলিশের সর্বাত্বক চেষ্টা অবহ্যাত রয়েছে।###