মঙ্গল্বার ১২ নভেম্বর ২০১৯


বুড়িচংয়ে সড়কে ডাকাতিকালে জনতা ধরল দুই ডাকাত


আমাদের কুমিল্লা .কম :
29.10.2019

মোঃ জহিরুল হক বাবু,বুড়িচং।। কুমিল্লার বুুড়িচং উপজেলার আরাগ আনন্দপুর-সাদকপুর সড়কে রোববার রাতে ব্যারিকেড দিয়ে ডাকাতির করার সময় জনতা দুই ডাকাতকে আটক করেছে। পরে আটককৃত ডাকাতদের গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপার্দ করেছে ।
স্থানীয়রা জানায়, জেলার বুড়িচং উপজেলার আরাগ আনন্দপুর – সাদকপুর নোয়াপাড়া সড়কে রোববার রাত ৯ টা থেকে একদল ডাকাত যানবাহনে গণ ডাকাতি শুরু হয়। এসময় আরাগ গ্রামের আবদুল খালেকের ছেলে রবিউল তার অটোরিকশা নিয়ে সাদকপুর নোয়াপাড়া থেকে বুড়িচং আসার পথে আরাগ পশ্চিমপাড়া ফিসারী এলাকায় আসলে মুখোশধারী ৪/৫ জনের একটি ডাকাত দল অটোরিকশার যাত্রীদের নামিয়ে মারধর করে এবং অটোরিকশা চালক রবিউলকে গাছের সাথে বেঁধে রাখে।
তাদের চিৎকার শুনে অপরদিক থেকে আসা অন্য একটি অটোরিকশা সিএনজির যাত্রী পীরযাত্রাপুর গ্রামের এনামুল হকসহ অন্যরা মোবাইল ফোনে চারদিকে ডাকাতি সংঘঠিত হচ্ছে জানালে এলাকাবাসী ঘেরাও করে ফেলে। তখন ডাকাত দলের ৩ সদস্য ডোবার পানিতে ঝাপ দেয় এবং আত্মগোপনের চেষ্টা করে। এ সময় এলাকাবাসী ও জনতা ঘেরাও করে ২ জনকে আটক করে গণধোলাই দেয়। পরে বুড়িচং থানার পুলিশকে খবর দিলে এসআই পুষ্প বরণ চাকমা, এসআই মোয়াজ্জেম হোসেন, এ এস আই মহিউদ্দিনসহ সঙ্গীয় ফোর্স ঘটনা স্থলে গিয়ে ২ ডাকাতকে উদ্ধার করে বুড়িচং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করে।
এক ডাকাতের বাড়ি বুড়িচং উপজেলার সদর ইউনিয়নের জগতপুর গ্রামের মৃত আব্দুর রশিদ এর ছেলে মোঃ সাইফুল ইসলাম (২৩) ও অপরজনের বাড়ি ময়মনসিংহ জেলার গৌরিপুর উপজেলার পাচকাহনিয়া গ্রামের হারুনুর রশিদ এর ছেলে মোঃ শামিম।
বুড়িচং থানার ওসি আকুল চন্দ্র বিশ্বাস জানান, আটক ডাকাতদের বুড়িচং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করানো হয়েছে। ঘটনার সময় ৩/৪ জন ডাকাত পালিয়েছে। এ ব্যাপারে বুড়িচং থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এঘটনার সঙ্গে জড়িত অন্য ডাকাতদের গ্রেফতারের অভিযান চলছে।