শুক্রবার ২২ নভেম্বর ২০১৯


অরক্ষিত কুমিল্লার শাহসুজা মসজিদ


আমাদের কুমিল্লা .কম :
30.10.2019

মো.আবুল বাশার রানা: পথিকৃৎ কুমিল্লা ও ঐতিহাসিক শাহসুজা মসজিদ একই সূত্রে গাঁথা। প্রায় পৌনে চারশত বৎসরের পুরনো নান্দনিক এ মসজিদটি শুধু কুমিল্লা নয় বাংলাদেশ তথা বিশ্ব মুসলিম স্থাপত্যকীর্তির এক অনন্য নিদর্শন। ১৬৫৮ সনে নির্মিত এ প্রাচীন মসজিদটি কুমিল্লাবাসীর হৃদয়ের স্পদন হিসেবে টিকে আছে আজও। মূল মসজিদের পাশাপাশি দুটি ছোট গম্বুজের মাঝে রয়েছে একটি বড় আকারের গম্বুজ। পরবর্তীতে মসজিদ কর্তৃপক্ষ তার উত্তর দক্ষিণের খালি জায়গা আয়ত্বে নিয়ে মসজিদ বর্ধিতকরণের কাজ সম্পন্ন করেন। পূর্বদিকে বাউন্ডারি নির্মাণের মাধ্যমে পুরো অংশকে কাজে লাগিয়ে নামাজ পড়ার সুন্দর ব্যবস্থা করেন। ফলে বর্তমানে প্রায় ১৫০০ মুসল্লী একসাথে নামাজ পড়তে পারেন। মসজিদের পশ্চিমাংশে কোন বাউন্ডারি না থাকায় সেটা আজও অরক্ষিত।
সম্প্রতি মসজিদের পশ্চিমাংশের জায়গা স্থানীয় প্রভাবশালীরা দখল করে বহুতল ভবন নির্মাণে পাইলিং শুরু করে। এর ফলে মসজিদের গায়ে ফাটল দেখা দেয়। মসজিদ কমিটির পদক্ষেপে তারা কাজ বন্ধ রাখে। এ বিষয়ে প্রতœতত্ত¡ অধিদপ্তরের কুমিল্লা অঞ্চলের পরিচালক ড. আতাউর রহমান জানতে পেরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তিনি আশ্বাস দেন ঐতিহাসিক এই মসজিদটি রক্ষায় যা করা দরকার তাই করা হবে।
কিছুদিন পর উক্ত দখলীয় স্থানে কাজ শুরু করে। পরবর্তীতে সিটি কর্পোরেশনের নোটিশের কারণে কাজ বন্ধ রাখে। সিটি কর্পোরেশন বিধি মোতাবেক মসজিদের ৮ ফুট রাস্তা জায়গা রক্ষিত না রেখে পাইলিং করছে যা নিয়মবহির্ভূত। উল্লেখ্য- মসজিদের জায়গা ও রাস্তা নিশ্চিত করার জন্য ২০১৭ সালে মসজিদ কমিটি ও সিটি কর্পোরেশন যৌথ উদ্যোগ নেন। দীর্ঘদিন জায়গা যাছাই বাছাই করার পর বিগত ২৮/১২/২০১৭ তারিখ ভূমি পরিমাপকারী ম্যাপসহ একটি রিপোর্ট পেশ করেন। আর এস, টি এস (দাগ নং৩০/৩১) ম্যাপ অনুযায়ী মসজিদের মূল জায়গার পরিমাণ ৩৫.৯৬ শতক । বিএস(খতিয়ান নং ২৫২ দাগ নং ৪৬) ম্যাপ অনুযায়ী জায়গার পরিমাণ ৩৪.৪০ শতক। সরেজমিনে উক্ত জায়গার পরিমাণ পাওয়া যায় ৩২.০৮ শতক। আর এস অনুযায়ী মসজিদের ভূমির জায়গা কমে যায় ৩.৮৮ শতক। মসজিদের পশ্চিমাংশের জায়গায় ১৩.৫ ফুট রাস্তা দখল করে প্রভাবশালীরা বহুতল ভবন নির্মাণের জন্য কাজ করে যাচ্ছে। মসজিদের উত্তরে রয়েছে আদি পৌর ড্রেন, দক্ষিণে রয়েছে পাকা রাস্তা এবং পূর্বে রয়েছে মহানগর পাকা রাস্তা। পশ্চিমে কোন সীমানা প্রাচীর না থাকায় মসজিদের প্রভাবশালীদের দখলের পরিধি দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।
স্থানীয় ও মুসল্লীদের দাবি মসজিদের পশ্চিমের প্রকৃত জায়গা ও রাস্তা উদ্ধার করতে পারলে শতবছরের ঐতিহ্য কুমিল্লা শাহসুজা মসজিদটি অরক্ষিত অবস্থা থেকে রক্ষা পাবে। মসজিদ কমিটি, সিটি কর্পোরেশন এবং প্রতœতত্ব বিভাগের বলিষ্ঠ ভূমিকায় ঐতিহ্যবাহী এ মুসলিম স্থাপনাটি সুরক্ষিত ও সুন্দর থাকবে।