শুক্রবার ৬ ডিসেম্বর ২০১৯


পূর্বাঞ্চলে ১১ মাসে ১৯ ট্টেন দুর্ঘটনা


আমাদের কুমিল্লা .কম :
16.11.2019

দেশে একের পর এক ট্টেন দুর্ঘটনা ঘটছে। এরইমধ্যে মৌলভীবাজারের কুলাউড়া, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবাসহ ঢাকা-চট্টগ্রম-সিলেট রেলপথে ১১ মাসে অন্তত ১৯টি ছোট-বড় ট্রেন দুর্ঘটনার কবলে পড়েছে। এর মধ্যে রয়েছে যাত্রীবাহী ও মালবাহী ট্রেন। এতে ২০ যাত্রী নিহতসহ রেলওয়ে বিভাগের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এসব ঘটনায় দেড় শতাধিকের বেশি যাত্রী আহত হয়েছেন।
আখাউড়া রেলওয়ে জংশন স্টেশনের তথ্যানুযায়ী, চলতি বছরের ১২ নভেম্বর ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবার মন্দাবাগে রাতে চট্টগ্রাম থেকে আসা ঢাকাগামী আন্তঃনগর তুর্ণা নিশীথা ও সিলেট থেকে আসা চট্টগ্রামগামী উদয়ন এক্সপ্রেসে ট্রেনের সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় ১৬ যাত্রী নিহত ও প্রায় শতাধিক যাত্রী আহত হয়েছেন। ২৪ সেপ্টেম্বর আখাউড়া জংশন ইয়ার্ডে কুশিয়ারা ট্রেন লাইনচ্যুত হয়। ৪ সেপ্টেম্বর আখাউড়া জংশন ইয়ার্ডে জালালাবাদ ট্রেনটিও লাইনচ্যুত হয়।
১০ অক্টোবর ভৈবর বাজারে যাত্রীবাহী লোকাল ট্রেন লাইনচ্যুতির ঘটনা ঘটে। তবে কোনো যাত্রী হতাহত হননি। ১ অক্টোবর একই স্থানে একই ট্রেন লাইনচ্যুত হয়।
আরো জানা যায়, ২৭ আগস্ট ময়মনসিংহের গছিহাটে মালবাহী ট্রেন লাইনচ্যুতির ঘটনা ঘটে। ৮ অক্টোবর হরেষপুরে মালবাহী ট্রেন লাইনচ্যুত হয়। এর আগে ১৪ জুন মনতলা যাত্রীবাহী কুশিয়ারা ট্রেন লাইনচ্যুত হয়েছে। ১৩ জুলাই আশুগঞ্জের মালবাহী একটি ট্রেনের ইঞ্জিন লাইনচ্যুত হয়।
এছাড়া ২৪ জুন কুলাউড়ার বরমচান এলাকায় উপবন ট্রেন লাইনচ্যুতির ঘটনা ঘটে। এতে চার যাত্রী নিহত ও প্রায় অর্ধশতাধিক যাত্রী আহত হন। তাছাড়া ২৬ জুন কিশোরগঞ্জ এলাকায় ঈশাখা ট্রেন লাইনচ্যুতির ঘটনা ঘটে।
১১ জুন মনতলা এলাকায় সুরমা মেইল লাইনচ্যুত হয়। ২ জুন রশিদপুর এলাকায় কুশিয়ারা ট্রেনের লাইনচ্যুতির ঘটনা ঘটে। ২০ মে তালশহর এলাকায় মালবাহী ট্রেন লাইনচ্যুত হয়। ৩০ মে ভৈবর বাজার এলাকায় লাইনচ্যুত হয় একটি মালবাহী ট্রেন। ১২ এপ্রিল আখাউড়া জংশন ইয়ার্ডে আরেকটি মালবাহী ট্রেনের ইঞ্জিন লাইনচ্যুত হয়। ১৩ ফেব্রুয়ারি মানিকখালি এলাকায় অপর একটি মালবাহী ট্রেনের ইঞ্জিন লাইনচ্যুত হয়।
তারও আগে ২ ফেব্রুয়ারি আশুগঞ্জ এলাকায় মালবাহী ট্রেনের ইঞ্জিন লাইনচ্যুতির ঘটনা ঘটে। ১৩ জানুয়ারি আশুগঞ্জ এলাকায় আরেকটি মালবাহী ট্রেন লাইনচ্যুত হয়।
আখাউড়া রেলওয়ে জংশন (লোকো ইনচার্জ) প্রকৌশলী মো. দেলোয়ার হোসেন জানান, চলতি বছরে দুটি বড় দুর্ঘটনা ঘটেছে। পৃথক দুর্ঘটনার কারণ আলাদা ছিল। প্রাথমিক অনুসন্ধানে অসাবধানতা থাকায় এসব ট্রেন দুর্ঘটনা ঘটছে। প্রতিটি দুর্ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।