শুক্রবার ২৪ জানুয়ারী ২০২০


আমরা আর বিরক্ত হবো না !


আমাদের কুমিল্লা .কম :
26.11.2019

মহিউদ্দিন মোল্লা : হেনা ভাই। লেখক আবদুল আউয়াল হেনা। চলে গেলেন মহাকালের পথে।শনিবার লাকসাম ছিলাম। তার জানাযায় থাকতে পারিনি। বিকালে তার পরিচিত অনেকের ফেসবুকের ওয়ালে ঘুরেছি। তখনও কেউ তাকে নিয়ে একটা স্ট্যাটাস দেননি। তিনি বিত্তবান ছিলেন না। ছিলেন চিত্তবান। চিত্তবানদের খবর কয়জনে রাখে। অসম্ভব সমাজ দরদী ছিলেন। কোন একটা অসংগতি দেখলেই ফোন করতেন। একবার রানীর দিঘির পূর্ব পাড় ভেঙ্গে পড়ে। দীর্ঘদিন সংস্কারের কোন খবর নেই।এটা নিয়ে নিউজ করতে বললেন। সেটা আমাদের দিয়ে করিয়ে ছাড়লেন। কুমিল্লায় নজরুলের স্মৃতি চিহ্ন হারিয়ে যাচ্ছে। সংরক্ষণ নিয়ে নিউজ করার কথা বললেন।লেখার বানানের বিষয়ে খুব খুঁতখুঁতে ছিলেন। এক লেখার বানান তিনবার করে দেখতেন। একবার সাংবাদিক মাহফুজ নান্টুকে তার কাছে পাঠিয়েছি দৈনিক আমাদের কুমিল্লার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর লেখার জন্য। নান্টুকে প্রুফ দেখিয়ে নিতে বার বার তাগিদ দিচ্ছিল। প্রুফ দেখানোর পর বললেন আবার দেখাতে। আমরা তখন বিরক্ত বোধ করেছিলাম। হেনা ভাই আমরা আর বিরক্ত হবো না ! সাপ্তাহিক আমোদ-এর খুব ভক্ত ছিলেন। বৃহস্পতিবার আমোদ পেতে দেরি হলে ফোন শুরু করে দিতেন। আমাদ-এর রঙিন অবয়বের নতুন যাত্রায় তার তার প্রচুর উৎসাহ ছিলো। একবার তার লেখার সাথে আমোদ সম্পাদক বাকীন রাব্বীর তোলা একটি ছবি দিতে বললেন। তিনি প্রিন্ট করা ছবিটি আমাকে দিলেন। কাজের চাপে ছবিটি ফেরত দিতে ভুলে গেছি। ছবিটি ফেরত নিতে কমপক্ষে পাঁচদিন ফোন করেছেন। এক পর্যায়ে রাগ করলেন। পরে খুঁজে পেয়ে ফেরত দিয়েছি। ভিক্টোরিয়া কলেজের শিক্ষক মাসুম মিল্লাত কলেজ প্রতিষ্ঠাতা আনন্দ চন্দ্র রায়কে নিয়ে কিছু কাজ করেছেন। তাদের স্বজনদের খোঁজে কয়েকবার ভারতে গিয়েছিলেন। তার সাথে প্রতিষ্ঠাতার লাকসামের গোবিন্দপুর বাড়িতে গিয়েছিলাম। তারপরে কিছু লেখালেখি করি। সেটি দেখে হেনা ভাই জানালেন- তিনি অনেকদিন আগে সেই বাড়িতে গিয়ে প্রতিষ্ঠাতার স্মৃতিকে জাগ্রত করেছিলেন। তার দাফনও হলো ভিক্টোরিয়া কলেজের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর দিনে। আর বার্ড প্রতিষ্ঠাতা ড. আখতার হামিদ খানকে নিয়ে তিনি প্রায়ই লিখতেন। তাকে তিনি বিস্ময় মানব বলে জানতেন। হেনা ভাইয়ের পরিবারের আয়ের তেমন উৎস নেই। তিনি জেলা প্রশাসনে এক সময় চাকুরি করতেন। বার্ডের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথে তার অনেক জানাশোনা। তারা পরিবারের একজন সদস্যকে কাজের ব্যবস্থা করে দিলে হেনা ভাইয়ের আত্মা শান্তি পাবে। অল্প দিনের পরিচয়ে কত কথা-কত স্মৃতি। তার আত্মার শান্তি কামনা করছি। তার পরিবারের সদস্যদের জন্য শুভ কামনা।

লেখক: বার্তা সম্পাদক,দৈনিক আমাদের কুমিল্লা।