বৃহস্পতিবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০
  • প্রচ্ছদ » sub lead 3 » তরুণ প্রজন্মের মধ্যে সততা ও সুশাসনের চর্চা বৃদ্ধি করতে হবে: জেলা প্রশাসক


তরুণ প্রজন্মের মধ্যে সততা ও সুশাসনের চর্চা বৃদ্ধি করতে হবে: জেলা প্রশাসক


আমাদের কুমিল্লা .কম :
10.12.2019

‘অন্তর্ভুক্তিমূলক টেকসই উন্নয়ন: দুর্নীতির বিরুদ্ধে একসাথে’ এই প্রতিপাদ্যকে ধারণ করে ৩য় বারের মতো রাষ্ট্রীয় উদ্যোগের অংশ হিসেবে কুমিল্লায় মানববন্ধন, দুর্নীতিবিরোধী গণস্বাক্ষর সংগ্রহ ও আলোচনা সভাসহ বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে গতকাল ৯ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস উদযাপিত হয়। কুমিল্লা জেলা প্রশাসন ও দুর্নীতি দমন কমিশন’র সমন্বিত জেলা কার্যালয়, ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)’র অনুপ্রেরণায় গঠিত সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) ও জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি’র যৌথ উদ্যোগে জেলার টাউন হলের সম্মুখে আয়োজিত মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করেন আদর্শ সদর উপজেলার, চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আমিনুল ইসলাম টুটুল, অতি: পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ্ আল-মামুন, আর্দশ সদর উপজেলার, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাকিয়া আফরিন ও জেলা শিক্ষা অফিসার আবদুল মজিদ। মানববন্ধন কর্মসূচির পর অতিথিবৃন্দ বেলুন উড়িয়ে দিনব্যাপি কর্মসূচির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। পরে বীরচন্দ্র গণপাঠাগার ও নগর মিলনায়তনে সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) কুমিল্লা’র সভাপতি বদরুল হুদা জেনু’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে কুমিল্লার জেলা প্রশাসক মো: আবুল ফজল মীর বলেন, দুর্নীতির ইতিহাস এই উপমহাদেশে নতুন নয়, কিন্তু এই দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রথম সোচ্ছার হয়ে প্রতিবাদ শুরু করেন স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান। তারই যোগ্যকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার দেশকে দুর্নীতিমুক্ত করতে ২০০৯ সালে তথ্য অধিকার আইন মহান জাতীয় সংসদে পাশ করেন, যার ফলে নাগরিকরা আজ যে কোন বিষয়ে সংশ্লিষ্ট অফিসে তথ্য চেয়ে আবেদন করে দুর্নীতিমুক্ত সোনার বাংলা গড়তে ভূমিকা রাখছে। এছাড়াও সরকারি বিভিন্ন সেবাসমূহ ডিজিটাল সুবিধার আওতায় নিয়ে আসার ফলে জনগণ খুব সহজে নাগরিক সেবাসমূহ ভোগ করছে। এতে জনদুর্ভোগ ও দুর্নীতি অনেকাংশে হ্রাস পেয়েছে। তিনি দুর্নীতিপ্রতিরোধে তরুণ প্রজন্মের মধ্যে সততা ও সুশাসনের চর্চার বৃদ্ধি করা জরুরী বলে মনে করেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বলেন, দুর্নীতিমুক্ত দেশ গড়তে এবং উন্নত বিশে^ বাংলাদেশকে নিয়ে যেতে আমাদের একসাথে কাজ করতে হবে। তিনি বিজয়ের মাসে দুর্নীতিমুক্ত, স্বচ্ছ ও সুন্দর বাংলাদেশ বিনির্মাণে শপথ গ্রহণের জন্য সবার প্রতি আহবান জানান। অ্যাডভোকেট আমিনুল ইসলাম টুটুল বলেন, আমাদের আজকের দিনে এই শপথ করতে হবে আমরা দুর্নীতি করবো না, দুর্নীতিবাজদের সাথে আপোষ করবো না, তাহলেই আমাদের দেশকে দুর্নীতিমুক্ত করতে পারব। মূখ্য আলোচক হিসেবে প্রবীণ শিক্ষাবিদ অধ্যক্ষ আমীর আলী চৌধুরী, তরুণ প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানা এবং তাদেরকে দুর্নীতির বিরুদ্ধে একসাথে রুখে দাঁড়ানোর আহবান জানান। অনুষ্ঠানের সভাপতি বদরুল হুদা জেনুর সরকারি ও বেসকারি সমন্বিত উদ্যোগের জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত এই দেশ দুর্নীতির কারণে পিছিয়ে থাকতে না। সুশাসনের চাহিদাকে আরো জোরালো করে একটি কার্যকর দুর্নীতিবিরোধী আন্দোলনের জন্য তরুণ প্রজন্মসহ সকলের প্রতি আহবান জানান। তিনি আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবসকে রাষ্ট্রীয়ভাবে পালনের সরকারের এই সিদ্ধান্তের জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, রাষ্ট্রীয়ভাবে এ দিবস পালনের সিদ্ধান্ত দুর্নীতি প্রতিরোধে বাংলাদেশ সরকারের প্রদত্ত জাতীয় ও আন্তর্জাতিক প্রতিশ্রুতি রক্ষায় রাজনৈতিক সদিচ্ছার বহিঃপ্রকাশ। জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্য আলী আকবর মাসুমের সঞ্চালনায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, দুদক কুমিল্লার সমন্বিত কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মো: হেলাল উদ্দিন শরীফ, মো: আবদুল মজীদ, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা, এইড কুমিল্লার নির্বাহী পরিচালক রোকেয়া বেগম শেফালী, দুপ্রক কুমিল্লার সহ-সভাপতি অধ্যাপক শান্তিরঞ্জন ভৌমিক, জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ¦ শাহ মো: আলমগীর খাঁন, সনাক সদস্য দিলনাশিঁ মোহসেন, অধ্যক্ষ কবীর আহমেদ, অধ্যাপক শফিকুর রহমান, নারী নেত্রী জহুরা আনিছ প্রমুখ। -প্রেস বিজ্ঞপ্তি।