সোমবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২০


কুমিল্লায় বছরের প্রথম দিনে পৌনে ৩৭ লাখ নতুন বই


আমাদের কুমিল্লা .কম :
19.12.2019

খায়রুল আহসান মানিক : ২০২০ শিক্ষা বর্ষের প্রাক প্রাথমিক হতে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত বিনামূল্যের পাঠ্যপুস্তুক কুমিল্লার ১৭টি উপজেলার সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পৌঁছছে। এ সকল পাঠ্য পুস্তুক আগামী ১ জানুয়ারি শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেয়া হবে।
জেলার ১৭টি উপজেলার ২ হাজার ১ শ’ ৭টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ১ হাজার ৭শ’ ৮১টি কিন্ডার গার্টেন , ৩৯৪টি এন জি ও পরিচালিত বিদ্যালয়সহ ৪ হাজার ৪৪৭টি বিদ্যালয়ের ৭ লাখ ৭১ হাজার ৩১৪ জন শিক্ষার্থীর বিপরীতে ৩৬ লাখ ৭৬ হাজার ৪২৮টি পাঠ্য পুস্তুক পাওয়া গেছে। এ ছাড়াও প্রাক Ñ প্রাথমিক শ্রেণীর চাহিদা অনুযায়ি ১ লাখ ৩৯ হাজার ৮৯৭টি পাঠ্য পুস্তুক পাওয়া গেছে। প্রাক প্রাথমিক এবং প্রথম শ্রেনী থেকে পঞ্চম শ্রেনীর শতভাগ বই পাওয়া গেছে জানিয়েছেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা।
প্রাপ্ত বইয়ের উপজেলা ভিত্তিক প্রাপ্তি হচ্ছে, আদর্শ সদরে ৪ লাখ ৩ হাজার ১০৯টি। লাকসামে ২ লাখ ৫ হাজার ৮০টি। দেবিদ্বারে ৩ লাখ ২০ হাজার ৮৫০টি। মুরাদনগরে ৪ লাখ ১৭ হাজার ৩০টি। দাউদকান্দিতে ২ লাখ ২১ হাজার ৭৯৬টি। চৌদ্দগ্রামে ২ লাখ ৪৭ হাজার ৪৭৬টি। ব্রাহ্মণপাড়ায় ১ লাখ ৭৭ হাজার ১৫০টি। বরুড়ায় ২ লাখ ৩৮ হাজার ৫শ’টি। বুড়িচংয়ে ২ লাখ ৪৫ হাজার ৪৩০টি। চান্দিনায় ১ লাখ ৬২ হাজার ৮ শ’টি। হোমনায় ১ লাখ ৪৯ হাজার ১৭২টি। নাঙ্গলকোটে ২ লাখ ৫১ হাজার ১ শ’টি। মেঘনায় ৫৮ হাজার ৫ শ’টি। মনোহরগঞ্জে ১ লাখ ৩৯ হাজার ২শ’টি। তিতাসে ১ লাখ ৪৯ হাজার ৬শ’ টি। সদর দক্ষিণে ১ লাখ ৯২ হাজার ১৪৩টি এবং লালমাইয়ে ৯৭ হাজার ৪৯২টি।
জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আবদুল মন্নান বলেন, কিছুদিন আগে এসব বই সকল উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে পোঁছে। বর্তমানে সেখান থেকে উপজেলার প্রতিটি বিদ্যালয়ে পৌঁছানো হচ্ছে। সরকারি নীতিমালা অনুযায়ী প্রতিজন শিক্ষার্থী নতুন বই পাবে। আগামী ১ জানুয়ারি উৎসবমুখর পরিবেশে সংশ্লিষ্ট এলাকার সংসদ সদস্য, জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সভাপতি এবং প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারগণ বই বিতরণে অংশ নেবেন।