মঙ্গল্বার ২ জুন ২০২০


দুর্ভোগের অপর নাম কুমিল্লার-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়ক ১৮কিলোমিটার এলাকা জুড়ে যানজট


আমাদের কুমিল্লা .কম :
02.03.2020

মোঃ সাইফুল ইসলাম, দেবিদ্বার: দুর্ভোগের অপর নাম কুমিল্লা-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়ক। চলতি সপ্তাহে সড়কের সংস্কার কাজ দ্রæতগতিতে চালালেও, বিকল্প সড়ক উন্মুক্ত এবং সড়কের দু’পাশ দখলমুক্ত না করে কাজ করার কারণে দিনভর সীমাহীন দুর্ভোগে পড়েছে মানুষ। গত বছরের ৯ডিসেম্বর থেকে সড়ক সংস্কারের কাজ শুরু করার পর থেকে নাকাল হয়ে পড়েছে জনজীবন।
গন্তব্যে পৌঁছার অনিশ্চয়তার শংকা নিয়ে রাত- দিন যাত্রী ও মাল পরিবহনগুলো ঘন্টার পর ঘন্টা সড়কেই কাটাতে হচ্ছে। সড়কের দেবিদ্বারের চরবাকর থেকে মুরাদনগরের কোম্পানীগঞ্জ, বুড়িচং উপজেলার কংশনগর বাজার ও দেবপুর এলাকা পর্যন্ত প্রায় ১৮কিলোমিটার এলাকা জুড়ে কখনো ১০/১২ঘন্টা স্থায়ী জ্যামে শত শত পরিবহন আটকে থাকে।
শনিবার রাত থেকে রোববার বিকেল সাড়ে ৪টায় এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত মুরাদনগর উপজেলার গকুল নগর থেকে দেবিদ্বার উপজেলার চরবাকর বাস স্টেশন পর্যন্ত প্রায় কয়েকশত পরিবহন আটকে থাকতে দেখা যায়।
স্থানীয়দের দাবি অনুযায়ী ‘কুমিল্লা- সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়ক’র কুমিল্লা ময়নামতি থেকে মুরাদনগর উপজেলার কোম্পানীগঞ্জ বাজার ব্রিজ পর্যন্ত হালকা ও দূরপাাল্লার যাত্রীবাহী যানবাহন চলাচলে গোমতী নদীর বেড়ি বাঁধের উপর দিয়ে বিকল্প সড়ক তৈরি ও আভ্যন্তরী যানবাহন বিশেষ করে সিএনজি চালিত অটো রিক্সা, ট্রাক্টর, মাইক্রোবাস,এ্্যাম্ব্যুলেন্স চলাচলে ফাঁড়ি সড়কগুলো বিকল্প হিসেবে সংস্কার না করে এবং সড়কের দু’পাশের বৈদ্যুতিক খুঁটি ও সওজ’র জায়গায় গড়ে তোলা অবৈধ স্থাপনা, দৈনিক বাজার, সিএনজি ও অটো রিকসা স্ট্যান্ড না সরিয়ে, একপাশ সম্পূর্ণ বন্ধ করে সড়ক সংস্কার কাজ করার কারণে জনদুর্ভোগ চরম আকারে দেখা দিয়েছে। গত মঙ্গল ও বুধবার সড়ক ও জনপদ বিভাগের পক্ষ থেকে মাইকিং করে শুক্রবারের মধ্যে সওজের জায়গা থেকে সকল প্রকার অবৈধ স্থাপনা, দৈনিক বাজার, সিএনজি ও রিক্সা ষ্ট্যান্ড সরিয়ে নেয়ার ঘোষণা দিলেও অজ্ঞাত কারণে সবই বহাল রয়েছে।
দেশের উত্তর ও পূর্বাঞ্চল এবং রাজধানীর সাথে যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম এ সড়কের সংস্কার কাজ চলছে অনেকদিন ধরে। যানজটের স্থবিরতায় চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন রোগী বহনকারী এ্যাম্ব্যুলেন্স, অফিস, স্কুল-কলেজ ও জরুরী কাজে গমনকারী নারী-শিশু-বৃদ্ধ যাত্রীসহ মালবাহী পরিবহনগুলো। এছাড়াও সড়কটি দেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক, বিশেষ করে দেশের উত্তর ও পূর্বাঞ্চলের মানুদের একমাত্র যোগাযোগ মাধ্যম। চট্টগ্রাম বন্দরসহ বাখরাবাদ, গোপালনগর, বাঙ্গরা, তিতাস, হবিগঞ্জ প্রভৃতি গ্যাস ফিল্ডের সঙ্গে এবং আখাউড়া বন্দরের সাথে যোগাযোগে সড়কটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। ক্রমবর্ধমান ভারী যানবাহনের চাপে সড়কটির বিভিন্ন অংশে খানাখন্দের সৃষ্টি, ধেবে যাওয়ার যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী ও বিপদসঙ্কুল হয়ে ওঠেছে।

দেবিদ্বার অংশের নিউমার্কেট বাসস্ট্যান্ড এবং জেলা পরিষদের ডাকবাংলোর সামনের দু’টি বৈদ্যুতিক খুঁটি, সড়কের দেবিদ্বার অংশের নিউমার্কেট স্বাস্থ্যকমপ্লেক্স থেকে সাবরেজিষ্টার অফিস পর্যন্ত থানা ও আরপি উচ্চ বিদ্যালয়ের সীমানা প্রাচীর থাকায় সড়কটি সরু হওয়ায় দু’টি গাড়ি পারাপারের সমস্যা পূর্ব থেকেই, তার উপর জমি অধিগ্রহণ ও সওজের জায়গা উদ্ধার না করে ২৪ ফুট সড়ক সংস্কারের ফলে ফুটপাতও বিলিন হয়ে গেছে।
ন্যাশনাল সার্ভে এন্ড ডিজাইন কনসালটেন্ট’র পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার মাহবুব মোরশেদ ভূঁইয়া বলেন, বিকল্প সড়ক তৈরি, সড়কের দু’পাশের জায়গা উদ্ধার এবং সড়কের উপর থেকে বৈদ্যুতিক খুঁটিগুলো না সরিয়ে সড়ক সংস্কারের কাজ ধরা ঠিক হয়নি।

এ ব্যাপারে দেবিদ্বার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাকিব হাসান ক্ষোভের সাথে বলেন, যদিও সড়কটি ‘সড়ক ও জনপদ বিভাগ নিয়ন্ত্রণ করেন। জনদুর্ভোগের বিষয় বিবেচনা করে সংশ্লিষ্টদের সাথে যোগাযোগ করে সংস্কার কাজটি দ্রæত শেষ করার অনুরোধ জানিয়েছি।
সড়ক ও জনপদ বিভাগ কুমিল্লার নির্বাহী প্রকৌশলী ড. মোহাম্মদ আহাদ উল্লাহ বলেন, জনদুর্ভোগ বিবেচনা মাথায় রেখেই সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারদের বলেছি ৩মাসের মধ্যে কাজ সম্পন্ন করতে।