রবিবার ৩১ †g ২০২০


আইজ ঘরে চাল নাই !


আমাদের কুমিল্লা .কম :
30.03.2020

মাহফুজ নান্টু :  নিখিল ঋষি। কুমিল্লা কান্দিরপাড়ে জুতা সেলাই করেন। থাকেন নগরীর ঋষিপট্টিতে। করোনার প্রভাবে কাজ নেই বললেই চলে। তাই অর্ধাহারে জীবন চলছে। ঘরে স্ত্রী ও দুই সন্তান রয়েছে। গত কয়েকদিন আগে দুই কেজি চাল এক কেজি আলু ও এক কেজি টমেটো দিয়ে যায় একটি সংগঠন। তা চার দিন পার করেন। আজ ঘরে চাল নেই। সকাল থেকে কান্দিরপাড় এসে বসে আছেন। বাক্সটা সামনে রেখে চটের বস্তায় বসে আছেন। দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত ২০ টাকার কাজ করতে পেরেছেন। নিখিল ঋষি বলেন, দুই কেজি চাউল দিয়া চাইরজন মানুষ চাইর দিন খাইছি- আইজ ঘরে চাল নাই !
পাশে বসা ঠাকুর দাশেরও একই অবস্থা। গত পনের বছরেও এত অভাবে পড়েননি। ঘরে খাবার নেই। কান্দিরপাড়ে কাজ নেই। তবুও আশায় বসে আছেন যদি কাজ হয়। ঠাকুরদাসও থাকেন ঋষিপট্টিতে। ঘরে বৃদ্ধ মা-বাবা,স্ত্রী ও তিন সন্তান আছে। দুপুরের কড়া রোদে ছাতার নিচে বসে আছেন। দৃষ্টি পড়ে থাকে পোষাকী মানুষের জুতার দিকে। সকাল থেকে বসে আছেন। কেউ জুতা বাড়িয়ে দেয়নি। সবাই ধুলা উড়িয়ে সামনে দিয়ে চলে যায়।
কান্দিরপাড় লিবার্টি মোড়ে নিখিল ঋষি ও ঠাকুর দাশের পাশে দাঁড়িয়ে যাত্রীর অপেক্ষায় সড়কের উপর অপলক তাকিয়ে ছিলেন রিকসা চালক জমির হোসেন। স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে থাকেন নবাববাড়ী চৌমুহনীতে । ভাড়া কমে গেছে। আগের তুলনায় আয় নেই। কথা বলার সময় জমির হোসেন এগিয়ে এসে প্রতিবেদককে বলেন, বাবা নামের লিস্টি (তালিকা) করলে আমার নামডাও দিয়েন বলে নিজের নাম বাবার নাম ঠিকানা বলতে থাকেন।
কান্দিরপাড় লিবার্টি মোড়ে অন্তত ৩০ জন জুতা সেলাইয়ের কাজ করেন। কাজ না থাকায় সবার একই অবস্থা। সরকারি বেসরকারি সহয়তার জন্য অপেক্ষা করলেও এখনো এসে তাদের হাতে পৌঁছেনি উল্লেখ করার মত কোন সহযোগিতা। যা এসেছে তা সাবান ,মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার।
কান্দিরপাড় লিবার্টি মোড় এলাকা কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের ১১ নং ওয়ার্ডের অর্ন্তগত। নি¤œ আয়ের মানুষদের শুকনো খাবার বিষয়ে ১১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর হাবিবুল আল আমিন সাদি জানান,সোমবার থেকে তাদের হাতে খাবার পৌঁছে যাবে।
কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মো:আবুল ফজল মীর জানান,নি¤œ আয়ের মানুষদের জন্য সর্বমোট ১২ লাখ টাকা বরাদ্দ এসেছে। আমরা নি¤œ আয়ের মানুষজনের জন্য ঘরে খাবার পৌঁছে দেয়ার কার্যক্রম চলছে।