শনিবার ৩০ †g ২০২০


অসুস্থ বাবাকে দেখতে যাওয়ার পথে প্রাণ গেল স্বামী-চালকসহ মেয়ের


আমাদের কুমিল্লা .কম :
01.04.2020

# স্বামীসহ মেয়ের মৃত্যুর একঘন্টা পর না ফেরার দেশে চলে যান পিতাও

এম এন মুরাদ,মুরাদনগর।।
অসুস্থ বাবাকে দেখতে প্রাইভেটকারে করে স্বামীকে নিয়ে চট্রগ্রাম থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগরের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন মেয়ে পারভীন আক্তার।দ্রæত গতিতে চালিয়ে আসার কারণে কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার বাঙ্গরা বাজার থানার কোরবানপুরে গাড়িটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পড়ে যায় রাস্তার পাশের খালে।এতে ঘটনাস্থলেই গাড়ির ভিতর পানিতে ডুবে মারা যায় স্বামী,স্ত্রী ও গাড়ির চালক। এই খবর নিহতের বাড়িতে পৌঁছলে এর এক ঘন্টা পড়েই না ফেরার দেশে চলে যায় পারভীন আক্তারের পিতাও।গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে এই দূর্ঘটনাটি ঘটে।
নিহতরা হলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগর উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নের জুলাইপাড়া গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছেলে সাদ্দাম হোসেন (২৭), তার স্ত্রী পারভীন আক্তার(২৪) ও গাড়ির চালক আব্দুর রহমান (২৮)। চালক আবদুর রহমান নোয়াখালীর কবিরহাট উপজেলার সোনাদিয়া গ্রামের আবুল বাশারের ছেলে।
স্থানীয় গোলাম মোস্তফা ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, প্রায় ১২টার সময় একটি কালো রংয়ের প্রাইভেটকার (চট্রঃ মেট্রো-গ ,১২-৩৬৯৯) মাধবপুর-দৌলতপুর সড়কের কোরবানপুর সিএনজি স্টেশনের সামনে এসে নিয়ন্ত্রন হারিয়ে খালের ভিতর পড়ে পানিতে ডুবে যায়। খবর পেয়ে বাঙ্গরা বাজার থানা পুলিশ এবং ফায়ার সার্ভিসের লোকজন স্থানীয়দের সহায়তায় গাড়ীটি উদ্ধার করেন । পড়ে গাড়ি দড়জা খুলে দেখেন পানিতে ডুবে তিনজনই মারা যায়।
নিহত পারভীনের চাচাত ভাই জাকির হোসেন জানায়, আমার ভগ্নিপতি সাদ্দাম হোসেন বোন পারভীনকে নিয়ে চট্রগ্রামে চাকুরির সুবাধে সেখানে ভাড়া বাসায় থাকত। চার বছরের সংসার জীবনে তাদের কোন সন্তান ছিলনা। আমার চাচা (নিহত পারভীনের বাবা) আবু বকরের অসুস্থতার খবর শুনে মঙ্গলবার সকালে স্ত্রী পারভীন আক্তারকে নিয়ে চট্টগ্রাম থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগর উপজেলার বাগাউড়া শ্বশুর বাড়িতে যাচ্ছিলেন। পথি মধ্যে তারা দূর্ঘটনায় মারা যায়।
এদিকে আমার চাচাত বোন এবং ভগ্নিপতির মৃত্যুর এক ঘন্টা পরেই আমার চাচা আবুবকর বার্ধক্য জনিত কারনে মৃত্যুবরন করেন। চাচা আবুবকর , চাচাত বোন ও বোন জামাইর মৃত্যুতে এলাকায় শোকের মাতম চলছে।
এবিষয়ে বাঙ্গরা বাজার থানার অফিসার ইনচার্জ কামরুজ্জামান তালুকদার জানান, লাশ উদ্ধার পূর্বক থানায় নিয়ে আসা হয়েছে।
নবীনগরের দুটি লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। নোয়াখালীর গাড়ীর ড্রাইভারদের লোকজন এখনো এসে পৌছায়নি।