শনিবার ৩০ †g ২০২০


কারো খাবার নেই-কারো নেই ঘর


আমাদের কুমিল্লা .কম :
01.04.2020

মহিউদ্দিন মোল্লা।। হারাখাল। কুমিল্লার লাকসাম উপজেলার উত্তরদা ইউনিয়নের একটি গ্রাম। ওই ইউনিয়নের মধ্যে এই গ্রামে ভিক্ষুক বেশি। ২০জনের মতো মানুষ হাত পেতে জীবন ধারণ করেন। তাদের মধ্যে ১০জনের সাথে কথা হয়েছে প্রতিবেদকের। এই ১০জনের মধ্যে কারো মাথা গোঁজার ঘর নেই। কারো ভিক্ষে না করলে চুলা জ্বলে না। তারা বয়স্ক ও বিধবা তালিকায় ভাতা পাওয়ার উপযুক্ত হলেও তা পাচ্ছেন না। অভিযোগ রয়েছে ভাতা দেয়ার কার্ড দিবে বলে নেতারা কয়েকজন থেকে টাকাও নিয়েছেন। যদিও তারা ভাতা পাননি।
স্থানীয় সূত্র জানায়,পেয়ারা বেগম (৬৫), স্বামী: মৃত: আবদুস সালাম, এক ছেলে, এক মেয়ে, কোন ভাতা পান না,একটি ঝুপড়ির মতো ঘর আছে। মনোয়ারা বেগম (৬৩), স্বামী: মৃত: মোসলেম মিয়া, একটি ছেলে, কোন ভাতা পান না। ফাতেমা বেগম (৬০), স্বামী: মৃত এছাক মিয়া, একটি ছেলে, দুইটি মেয়ে, কোন ভাতা পান না। আসিয়া বেগম (৬২), স্বামী:মৃত: গোলাম মিয়া, একটি ছেলে, দুইটি মেয়ে, ছেলে কোমর ভেঙ্গে ঘরে পড়ে আছে, কোন ভাতা পান না। ভানু বিবি (৪০), স্বামী: জাহাঙ্গীর আলম, স্বামী একটি কন্যা সন্তান রেখে পালিয়ে যায়, থাকার কোন ঘর নেই, কোন ভাতা পান না। আকলিমা বেগম (৪০), স্বামী মৃত: আবুল কালাম। তার তিনটি ছেলে, ছেলেরা ছোট, কোন ভাতা পান না। জোসনা বেগম (৩২), স্বামী:-আলমগীর হোসেন, ছেলে তিনটি, কোন ভাতা পান না। আব্দুর রহমান (৪০), মৃত: আইয়ুব আলী, তিনটি ছেলে, চারটি মেয়ে, তার একটি ভাতা কার্ড আছে, তবে থাকার ঘর নেই। ফুল হক (৭৫), পিতা: মৃত: আইযুব আলী। একটি ছেলে, চারটি মেয়ে। কোন ভাতা পান না। হালিমা খাতুন (৩২), স্বামী মৃত: জসিম উদ্দিন। একটি মেয়ে, তার থাকার ঘর নেই, কোন ভাতা পান না।
পেয়ারা বেগম বলেন,হাত পেতে জীবন চলে। বয়স হয়েছে। এখন আর পা চলে না। একটি ঘর আর ভাতা পেলে শান্তিতে থাকতে পারতাম।
ওই গ্রামের ইউপি সদস্য মাসুদুল হক বলেন,এ গ্রামে আগের মতো অভাবী লোক নেই। এদিকে সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে ভিন্ন চিত্র।
লাকসাম উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা উপন্যাস চন্দ্র দাস বলেন,ভিক্ষুকদের জন্য ভাতার ব্যবস্থা নেই। তবে তাদেরকে বয়স্ক তালিকায় অগ্রাধিকার দিচ্ছি। অসহায় লোকজন যোগাযোগ করলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।