বৃহস্পতিবার ৪ জুন ২০২০


সারওয়ানের ওপর খেপেছেন গেইল


আমাদের কুমিল্লা .কম :
28.04.2020

স্পোর্টস ডেস্ক।।
বয়সভিত্তিক পর্যায় থেকে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে লম্বা সময় খেলেছেন একসঙ্গে। রামনরেশ সারওয়ানের সঙ্গে দারুণ কিছু মুহূর্তও ভাগাভাগি করেছেন ক্রিস গেইল। কিন্তু দুজনের সম্পর্ক কতটা তিক্ত, এতদিনে সেটি সামনে এলো। সাবেক সতীর্থের ওপর মনের সব রাগ উগড়ে দিলেন গেইল। এতটাই যে সারওয়ানকে ‘সাপের মতো বিষাক্ত’, ‘করোনার চেয়ে খারাপ’, ‘মানুষরূপী শয়তান’ বলে উপস্থাপন করেছেন তিনি!

কিন্তু গেইলের এতটা ক্ষোভের কারণ কী? ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (সিপিএল) দল জ্যামাইকা তাল্লাওয়াহস ঘিরেই উত্তপ্ত পরিস্থিতির জন্ম। সিপিএলের নতুন মৌসুমের আগে গত সপ্তাহে জ্যামাইকা ছেড়ে দিয়েছে গেইলকে। এই ফ্র্যাঞ্চাইজির সহকারী কোচ হলেন সারওয়ান। গেইল নিশ্চিত, সারওয়ানের কারণেই জ্যামাইকা ছেড়ে দিয়েছে তাকে।

জ্যামাইকার হয়ে প্র্রথম চার মৌসুমে দুটি শিরোপা জিতেছিলেন গেইল। ২০১৩ ও ২০১৬ সালে ট্রফি জয়ের স্মৃতি নিয়ে দুই আসর খেলেন সেন্ট কিটস অ্যান্ড নেভিস প্যাট্রিয়টসের জার্সিতে। গত বছর আবার ফেরেন জ্যামাইকায়, তিন বছর থাকার কথা ছিল ফ্র্যাঞ্চাইজিটিতে। কিন্তু এক বছর যেতেই তাকে ছেড়ে দিয়েছে জ্যামাইকা।

নতুন দল সেন্ট লুসিয়া জুকসের সঙ্গে অবশ্য এরই মধ্যে চুক্তি করে ফেলেছেন ৪০ বছর বয়সী বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। নতুন দল পাওয়ার পর ইউটিউবে দেওয়া ১৫ মিনিটের ভিডিওতে রীতিমতো ধুয়ে দিয়েছেন সাবেক সতীর্থ সারওয়ানকে।

গেইল বলেছেন, ‘সারওয়ান, তুমি এই মুহূর্তে করোনাভাইরাসের চেয়েও খারাপ। তাল্লাওয়াহসে (জ্যামাইকা) যা ঘটেছে, সেখানে তুমি বড় ভূমিকা রেখেছো, কারণ তুমি আর এটার (জ্যামাইকার) মালিক একই রকম। জ্যামাইকায় আমার সবশেষ জন্মদিন অনুষ্ঠানে কত বড় বড় কথা বলেছিলে, আমি আর তুমি নাকি অনেক দূরের পথ পাড়ি দিয়েছি।’

এখানেই শেষ নয়, রাগ আরও উগড়ে দিলেন টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের সর্বোচ্চ রানের মালিক, ‘সারওয়ান তুমি কী জানো, তুমি ক্যারিবিয়ান অঞ্চলে মোটেও ভালোবাসার পাত্র নও। তোমার নিজের দেশের মানুষই তোমাকে পছন্দ করে না। সারওয়ান, তুমি একটা সাপ। তুমি প্রতিহিংসাপরায়ণ। এখনও অপরিণত। এখনও পেছন থেকে ছুরি মারো। নিজেকে কবে বদলানোর পরিকল্পনা তোমার?’

সারওয়ানের সঙ্গে গেইলের সম্পর্কের টানাপোড়েন গল্পটা অনেক পুরোনো। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পা রাখার আগেই দ্বন্দ্ব শুরু তাদের। সারওয়ানের খারাপ দিক বোঝাতে একটি ঘটনাও সামনে এনেছেন গেইল, ‘১৯৯৬ সালের কথা, তখন আমরা একসঙ্গে বয়সভিত্তিক ক্রিকেট শুরু করেছিলাম। ওয়েস্ট ইন্ডিজ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের হয়ে খেলার সময় আমরা একই রুমে থাকতাম। তোমার কারণেই টিম ম্যানেজমেন্ট আমাকে বার্বাডোস থেকে বাড়ি পাঠিয়ে দিয়েছিল। আমি তোমাকে ক্ষমা করে দিয়েছি, কিন্তু ঘটনাটা কখনও ভুলব না।’

কী হয়েছিল, সেটাও জানালেন গেইল পরের কথায়, ‘টিম ম্যানেজমেন্টকে বলেছিলে, তুমি ঘুমাতে পারো না, কারণ ক্রিস গেইল অনেক রাত পর্যন্ত টিভি দেখে। এই কারণে আমাকে বাড়ি পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছিল।’

এরপর বললেন, ‘সবাইকে তুমি দেখাও তুমি কত ভালো একজন মানুষ। সারওয়ান, তুমি হলে শয়তান।’