শনিবার ৬ gvP© ২০২১


মানবেতর জীবন যাপনে কুমিল্লার সহস্রাধিক সাংবাদিক-কর্মচারী


আমাদের কুমিল্লা .কম :
30.04.2020

ফাইল ছবি

মহিউদ্দিন মোল্লা।।
মানবেতর জীবন যাপন করছেন কুমিল্লার সহস্রাধিক সাংবাদিক, সংবাদপত্র সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও কর্মচারী। স্থানীয় অধিকাংশ সংবাদপত্র বন্ধ ও জাতীয় গণমাধ্যমের অধিকাংশ বেতন না দেয়ায় এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। কুমিল্লার একাধিক গণমাধ্যম কর্মী বেতন না পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
সূত্রমতে,কুমিল্লার ১৭টি উপজেলা। রয়েছে সিটি কর্পোরেশন। জেলা প্রশাসনের ওয়েব সাইটের সূত্র জানায়,জেলা থেকে ৫২টি সংবাদপত্র প্রকাশিত হয়। এছাড়া ঢাকায় ডিক্লারেশন নেয়া সংবাদপত্রও এখানে প্রকাশিত হচ্ছে। তার মধ্যে দৈনিক পত্রিকা রয়েছে ১০টির মতো। বেশির ভাগ সাপ্তাহিক পত্রিকা। রয়েছে পাক্ষিক,মাসিক ও ত্রৈমাসিক পত্রিকা।
নাম প্রকাশ না করে একজন সংবাদকর্মী বলেন,জেলা প্রতিনিধিদের অধিকাংশ স্বাভাবিক সময়েও বেতন পেতেন না। তারা বিজ্ঞাপন সংগ্রহ করে পরিবার চালাতেন। যারা বেতন দিতেন তাদের মধ্যে অধিকাংশ প্রতিষ্ঠান এখন বেতন বন্ধ করে দিয়েছে। স্থানীয় ভাবে প্রকাশিত সংবাদপত্র গুলোর ৬০ভাগ সাংবাদিকদের বেতন দেয় না। তারাও বিজ্ঞাপন নির্ভর। জেনারেল ম্যানেজার,বিজ্ঞাপন ম্যানেজার,ডিজাইনার,অপারেটর,কর্মচারীরা বেতন পেলেও এখন তা বন্ধ। যাদের আলাদা পেশা আছে বা পরিবারের স্বামী-স্ত্রী চাকরিজীবী তারা খেয়ে পরে চালিয়ে যাচ্ছেন।
সাংবাদিকরা সবার কথা বললেও তাদেও কথা বলার কেউ নেই। অনেকে চোখ লজ্জায় কারো নিকট বলতে পারছেন না।
সাংবাদিক মজিবুর রহমান মোল্লা বলেন,উপজেলা পর্যায়ে সংবাদকর্মীরা কখনই তেমন মূল্যায়ন পায়নি। এখন তারা বেশি কষ্টে আছে। তাদের পাশে প্রতিষ্ঠান ও সরকার দাঁড়াতে পারে।
কুমিল্লার প্রবীণ সাংবাদিক খায়রুল আহসান মানিক বলেন,চিকিৎসক ও পুলিশের জন্য বিশেষ সুবিধা দেয়ার কথা বলা হয়েছে। সাংবাদিকরা মাঠে থেকে মানুষকে সচেতন করছেন। অনেক সাংবাদিক আক্রান্ত হয়েছেন। একজন মারাও গেছেন। তাদের চিকিৎসা,বিশেষ সুবিধা নিয়ে সরকার বা প্রতিষ্ঠান কারো পক্ষ থেকে কোন ঘোষণা নেই।
সিনিয়র জেলা তথ্য কর্মকর্তা মীর হোসেন আহসানুল কবীর বলেন,অনেক গণমাধ্যমকর্মী মানবেতর জীবন যাপন করছেন এটা সত্য। তাদের সহযোগিতা করা হতে পারে এমন ঘোষণা বিভিন্ন মাধ্যমে শুনেছি। আমরা এখনও কোন চিঠি পাইনি।