শনিবার ৩০ †g ২০২০


কুমিল্লায় উপসর্গ নিয়ে তিনজনের মৃত্যু


আমাদের কুমিল্লা .কম :
11.05.2020

স্টাফ রিপোর্টার।।
কুমিল্লার দেবিদ্বারে করোনা উপসর্গ নিয়ে শনিবার দিবাগত রাত থেকে রোববার পর্যন্ত তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। এরা হলেন, উপজেলার বরকামতা ইউনিয়নের জাফরাবাদ গ্রামের মৃত; চান মিয়ার ছেলে লাল মিয়া(৮০), নবিয়াবাদ গ্রামের হেলাল উদ্দিন ভূঁইয়া(৩৫), দেবিদ্বার পৌর এলাকার অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য নয়ন মিয়া(৬০)।
লাল মিয়া শনিবার ি রাত সাড়ে ১১টায় কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ(কুমেক) হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে মারা যান। কুমেক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ মৃত লাল মিয়ার করোনা নমুনা সংগ্রহ করে রাখেন। রোববার নিজ গ্রামের বাড়িতে তার দাফন সম্পন্ন করা হয়।
হেলাল উদ্দিন ভূঁইয়া রোববার ভোর ৪টায় নিজ বাড়িতে ইন্তেকাল করেন। তিনি নবীয়াবাদ গ্রামের ঈদগাহ সংলগ্ন ভূঁইয়া বাড়ির সাবেক কৃষি কর্মকর্তা ছায়েদ আলী ভূঁইয়ার ছোট ছেলে। স্থানীয়রা জানান, তিনি কয়েক দিন ধরে করোনা উপসর্গ নিয়ে বাড়িতেই গোপনে চিকিৎসা নিয়ে আসছিলেন, রোববার বিকালে তার নিজ বাড়িতেই দাফন সম্পন্ন করা হয়।
দেবিদ্বার গ্রামের (পাঠানবাড়ি সংলগ্ন) অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য নয়ন মিয়া(৬০) করোনা উপসর্গ নিয়ে শনিবার দিবাগত রাতে কুমিল্লা মুন হসপিটালে মারা যান। সেখান থেকে দেবিদ্বার উপজেলার ৪নং সুবিল ইউনিয়নের শিবনগর গ্রামে তার শ্বশুর মমতাজ উদ্দিনের বাড়িতে লাশ নিয়ে আসেন। শ্বশুর বাড়ির লোকজন আপত্তি জানালে এখানে দাফন সম্পন্ন করা সম্ভব হয়নি। নিহত নয়ন মিয়ার গ্রামের বাড়ি মুরাদনগর উপজেলার ছিলমপুর গ্রামে হলেও তিনি দেবিদ্বার পৌর এলাকার দেবিদ্বার গ্রামে পাঠানবাড়ি সংলগ্নে বাড়ি করেছিলেন। রোববার সন্ধ্যায় নিহতের মরদেহ নিজ গ্রাম মুরাদনগর উপজেলার ছিলমপুর নিয়ে দাফন করা হয়।
উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ আহমেদ কবির জানান, জাফরাবাদ গ্রামের লাল মিয়ার মৃত্যুর বিষয়টা নিশ্চিত হয়ে তার গ্রামের বাড়ি জাফরাবাদ থেকে চার স্বজনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। অপর দু’জন হেলাল উদ্দিন ও নয়ন মিয়া সম্পর্কে কেউ আমাদের অবগত করেননি। তাই তাদের নমুনা বা তাদের সংস্পর্শে থাকা স্বজনদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়নি।