বৃহস্পতিবার ৪ জুন ২০২০
  • প্রচ্ছদ » sub lead 2 » চান্দিনায় ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ভিজিডি’র চাল আত্মসাতের অভিযোগ


চান্দিনায় ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ভিজিডি’র চাল আত্মসাতের অভিযোগ


আমাদের কুমিল্লা .কম :
21.05.2020

মাসুমুর রহমান মাসুদ, চান্দিনা ।।
কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার বরকইট ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আবুল হাশেম এর বিরুদ্ধে সরকারি বরাদ্দকৃত ভিজিডি কার্ডের চাল আত্ম্যসাৎ এর অভিযোগ উঠেছে। ওই ইউনিয়নের বরকইট গ্রামের আনোয়ার হোসেন এর স্ত্রী মোসা. হাছিনা আক্তার ওই আত্ম্যসাৎ এর বিষয়টি উল্লেখ করে কুমিল্লা জেলা প্রশাসক বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।
অভিযোগটি তদন্তের জন্য বুধবার (২০ মে) চান্দিনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার এর কার্যালয়ে প্রেরণ করেন জেলা প্রশাসক। এর আগে গত ১০ মে অভিযোগটি দায়ের করেন ওই অসহায় গৃহিনী।
অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, গত ২০১৯ সালের জানুয়ারি মাসে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয় থেকে বরকইট ইউনিয়নের ভিজিডি কার্ডের সুবিধাভোগীদের যে তালিকা অনুমোদন দেওয়া হয় ওই তালিকার ক্রমিক নং- ৯৫ এ তার নাম রয়েছে। চেয়ারম্যান ওই কার্ড এর চাউল-গম ভুয়া লোক দিয়ে আত্ম্যসাৎ করে। এছাড়া ওই তালিকার ক্রমিক নং- ১০৬ এ ৮নং ওয়ার্ডের মোসা. শাহিনুর আক্তার নামের যে মহিলার নাম রয়েছে প্রকৃতপক্ষে ওই ওয়ার্ডে এই নামে কোন মহিলাই নেই। ওই নামের চালও ইউপি চেয়ারম্যান আত্ম্যসাৎ করেন। এভাবে প্রত্যেকটি ওয়ার্ডে ভিজিডি’র ভুয়া কার্ড তৈরী করে চেয়ারম্যান মো. আবুল হাশেম সরকারি বরাদ্দকৃত চাল আত্মৎসাৎ করে আসছে বলেও অভিযোগে উল্লেখ করা হয়। এছাড়াও ওই চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ভুয়া কৃষকের তালিকা তৈরী করে সরকারি ধান বিক্রির অভিযোগও আনা হয়।
এব্যাপারে অভিযোগকারী মোসা. হাছিনা আক্তার বলেন- ’চেয়ারম্যান সাহেবের কাছে আমি অনেকবার গেছি। আমার কার্ডও দেয়না, চালও দেয়না। আমি এর বিচার চাই।’
এ বিষয়ে ৮নং ওয়ার্ড মেম্বার মো. ফরিদ মিয়া বলেন- ’ভাই আমি ৯৫ ও ১০৬ ক্রমিক নাম্বারের দুইজন মহিলাকে খুঁজে পাই নি। তাদের চাল কে বা কারা নেয় আমি জানি না।’
বরকইট ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আবুল হাশেম বলেন- ’হাছিনা আক্তার চাল পায় না, এই বিষয়টিতো তিনি কখনোই আমাকে জানান নি। গতকাল আমি বিষয়টি জানতে পেরে ওই ওয়ার্ডের মহিলা মেম্বার নূরজাহান এর সাথে কথা বলে কেন চাল পাচ্ছেনা বিষয়টি খতিয়ে দেখতে বলেছি।’
এব্যাপারে চান্দিনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) স্নেহাশীষ দাশ বলেন- ’অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’