শুক্রবার ১৪ অগাস্ট ২০২০


লাকসাম জংশনে অপরিকল্পিত কার্পেটিং!


আমাদের কুমিল্লা .কম :
13.06.2020

লাকসাম প্রতিনিধি।।

লাকসাম রেলওয়ে জংশনে নিম্ন মানের পাথর ও বিটুমিন দিয়ে জংশন পাকিং এলাকায় তড়িঘড়ি করে চলছে (কার্পেটিং) পিস ঢালাইয়ের কাজ। এতে স্থানীয়দের মাঝে বিরুপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।
সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, জনচলাচলে জন্য উপযুক্ত হলেও লাকসাম রেলওয়ে জংশন পার্কিং এলাকায় গত দুদিন ধরে বৃষ্টির মধ্যেই চলছে পিস ঢালাইয়ের কাজ। পার্কিং এলাকার কোথাও কোন খানাখন্দ কিংবা গর্ত ও ক্ষতিগ্রস্তের দৃশ্য দেখা যায়নি। পিস ঢালাইয়ের আগে ঠিকাদারের নিয়োজিত শ্রমিকেরা ঝাড়– দিয়ে নাম মাত্র পরিস্কার করে পানির উপর ঢালাই কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক রেল কর্মকর্তা জানান, রেলওয়ের প্রকৌশল বিভাগ অনেকটা অপরিকল্পিতভাবে এই পাকিংয়ে পিস ঢালাইয়ের কাজ করছে। অথচ ফ্লাটফর্মের উপরে যাত্রীরা চলাচল করতে পারে না, একটু বৃষ্টি হলেই পানি পড়ে। পাশাপাশি রেলওয়ে জংশন থেকে যাত্রীরা বের হলেই পড়ে দুর্ভোগে। কারণ কুমিল্লা-নোয়াখালী সংযোগ সড়কটি একেবারেই চলাচলের অযোগ্য।
লাকসাম রেলওয়ে উর্দ্ধতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী পূত (আইডব্লিওডি) আতিকুর রহমানের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি প্রয়োজন অনুযায়ী এখানে পিস ঢালাইয়ের কাজ চলছে বলে জানান। তবে কত টাকার কাজ, কবে দরপত্র আহবান হয়েছে তা জানতে চাইলে সহকারী প্রকৌশলী কুমিল্লা মোরসালিন এ বিষয়টিকে অফিসিয়াল ব্যাপার উল্লেখ করে বলেন, করোনা ভাইরাসের কারণে কাজটি করতে দেরি হয়েছে। বিস্তারিত জানতে তথ্য অধিকার আইনে আবেদন করার পরামর্শ দেন।
এদিকে স্থানীয়রা জানান, জুন ক্লোজিংয়ের কারণেই বিল উঠানোর জন্য ঠিকাদার এ কাজটি দায়সারা গোছে কোন মতে করে যাচ্ছেন। এতে রেলওয়ের আর্থিক ক্ষতি ছাড়া যাত্রীদের কোন উপকারে আসবেনা।
অপরদিকে লাকসাম রেলওয়ে জংশন স্টেশন মাস্টার শাহাবুদ্দীন জানান, জংশন প্লাট ফরমে পার্কিং এ কাজের বিষয়ে তার কাছে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের লিখিত কিংবা মৌখিক কোন নির্দেশনা নেই।