সোমবার ১৩ জুলাই ২০২০


চারদিকে শুধুই দুঃসংবাদের মিছিল


আমাদের কুমিল্লা .কম :
18.06.2020

তাহমিনা শবনম।।
মনটা বড়ই বিষন্ন, ভারাক্রান্ত ও হতাশায় নিমজ্জিত। চারদিকে শুধু দু:সংবাদের মিছিল। কি সাধারণ, কি অসাধারণ কেউই রেহাই পাচ্ছে না করোনা নামক অনুজীবের আক্রমন থেকে। যেন কারও রক্ষা নেই তান্ডবের এই বিভীষিকা থেকে। দিন শুরু হয় দু:শ্চিন্তা ঘিরে।টিভি খুললেই মৃত্যুর মিছিলের সংবাদ। মনটা ভাল নেই।
আমার খুব একটা লেখার অভ্যেস নেই। কিন্তুু তবুও এ করোনা কালে এত দুঃসংবাদের ভীড়ে নিজ থেকেই মনে হয় লেখা চলে আসে। অনেক দিন পর মনে হয় কলম হাতে নিয়েছি, আজকের দিনটি আমার জন্য একটি বেদনায় ভারাক্রান্ত দিন।
বাবা দিবসে আমার সন্তান যখন তার বাবাকে রান্না করে খাওয়াচ্ছে, ঠিক এ রকম ভাবে কারো না কারো আদরের সন্তান হয়ত তার বাবাকে প্রত্যাশা করছে তারই পাশে পাবার জন্য। কিন্তু তখন তার বাবা লড়ছে জীবন মৃত্যুর সাথে হাসপাতালে এক বৈরি পরিবেশে। আসলে যার কথা বলছি তিনি আগানগর ডিগ্রী কলেজের ইংরেজীর শিক্ষক আজিজুল হক। তিনি আমার বাচ্চাদেরও গুরুজী। তিনি আমার রক্ত সম্পর্কীয় কেউ না হলেও আমাদের একজন পারিবারিক আপনজন, আতœার আত্মীয়। তিনি আমাকে যেমন শ্রদ্ধা করেন, তেমনি ব্যক্তি জীবনে তিনি আমাকে একজন অভিভাবক হিসেবেও মান্য করেন। আর
আজিজুল হক আমাদের পারিবারিক জীবনের পছন্দের মানুষদের একজন। কেনইবা নয়। এমন সহজ, সরল, সাদামাটা মানুষকে কে না পছন্দ করবে? ফেসবুকে হঠাৎ তার এক সহকর্মীর পোস্ট থেকে জানলাম তিনি এখন কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের আইসিউতে ভর্তি আছেন। আমি জানি না বিধাতা তাঁর ভাগ্যে কি রেখেছেন। বিধাতার কাছে এটুকুই চাওয়া আজিজ সাহেবের ছোট্ট শিশুটি এবং তাঁর হাজারো ছাত্র/ছাত্রীর দোয়ায় যেন এই মানুষ গড়ার অসামান্য কারিগর সবার মাঝে সুস্থ হয়ে ফিরে আসেন। একই সাথে কায়মন বাক্যে প্রার্থনা রইলো, সর্বনাশা করোনায় আক্রান্ত হয়ে যারা না ফেরার দেশের যাত্রী হয়েছেন মহান আল্লাহতায়ালা যেনো তাদের বেহেশত নসীব করেন। করোনায় আক্রান্ত হয়ে যারা জীবন মৃত্যুর সাথে লড়াই করছেন, বিধাতা যেন তাদের স্স্থু করে মঙ্গল আলোয় উদ্ভাসিত করেন।
ভালো থাকুক সবার যাপিত জীবন, স্স্থু থাকুক প্রতিটি পরিবার, সমাজ, দেশ এবং নির্মল ধারায় প্রবাহিত হউক মানুষের সুন্দর মন মানসিকতা।