সোমবার ১৩ জুলাই ২০২০
  • প্রচ্ছদ » » সবার উৎসাহে এগিয়ে যাচ্ছে দাফন ‘ওরা ৯টিম’ : রোকন উদ্দিন


সবার উৎসাহে এগিয়ে যাচ্ছে দাফন ‘ওরা ৯টিম’ : রোকন উদ্দিন


আমাদের কুমিল্লা .কম :
20.06.2020

এখন করোনাকাল। বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে করোনায় মৃতের সংখ্যা। তবে মহামারী করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া লাশের পাশে যাচ্ছেন না স্বজনরা। দূরে থাকেন ভাইরাসে আক্রান্ত হবেন বলে। চরম নিষ্ঠুরতা দেখিয়ে প্রতিবেশীরা ঘরের দরজা বন্ধ করে দেন। এমন কঠিন সময়ে এগিয়ে এসেছেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারী কলেজের ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও বর্তমান কুমিল্লা মহানগর যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য মোঃ রোকনুদ্দিন রোকন।। করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়াদের লাশ দাফনে তিনি দাফন ওরা-৯ নামে একটি টিম তৈরী করেছেন। এই টিম দুই ভাগে কাজ করে। একটি পুরুষ লাশ দাফনের জন্য। অন্য একটি মহিলা লাশ কবরস্থ করার জন্য। ঝুঁকি নিয়ে কাজ করা মোঃ রোকনুদ্দিন রোকন মানুষের সেবায় কাজ করতে চান। কুমিল্লা সদর আসনের সাংসদ ও মহানগর আওয়ামীলীগ সভাপতি হাজী আ.ক.ম বাহাউদ্দিন বাহারের নির্দেশনায় কাজ করে যাচ্ছেন তিনি। কথা হয় মোঃ রোকনুদ্দিন রোকনের সাথে। তিনি জানান, কিভাবে করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তির লাশ দাফন করেন, সেখানে কি পরিস্থিতি অবলোকন করেন, সেখানে হৃদয়বিধারক দৃশ্যর অবতরণা হয়, গোসল -জানাযার নামাজ ও লাশের কবরস্থ করার আনুষ্ঠানিকতা কিভাবে হয় তার আদ্যপান্ত বলেছেন। দৈনিক আমাদের কুমিল্লার পাঠকদের জন্য এমন এমন সব ঘটনার চুম্বক অংশ তুল ধরে হলো।

দৈনিক আমাদের কুমিল্লা: কবে থেকে দাফন ওরা- ৯ এমন মহতি কাজ শুরু করে?

মোঃ রোকনউদ্দিন রোকন: যখন থেকে করোনা মহামারী শুরু হয় তখন থেকে আমার কাজ শুরু হয়। প্রথমে মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করি। পাশাপাশি হ্যান্ড সেনিটাইজার,জীবানুনাশক স্প্রেশ করি। পরে করোনায় আক্রান্ত হয়ে যারা মারা যান তাদের লাশ দাফনের জন্য কাজ শুরু করি।

দৈনিক আমাদের কুমিল্লাঃ করোনায় মারা যাওয়া ব্যক্তির লাশ দাফনে আত্মীয়-স্বজনদের গাফিলতি রয়েছে। এমন অনেক অভিযোগ পাওয়া যায়। এমন বিষয়ে আপনার টিমের অভিজ্ঞতা শুনতে চাই।

মোঃ রোকনউদ্দিন রোকন: করোনায় মারা যাওয়া লাশের সাথে অমানবিক আচরণ করা হয়। নগরীর ৭ নং ওয়ার্ডে একজন মহিলার লাশ দাফনের জন্য খবর আসে । আমার টিম প্রস্তুত হয়। সবাই পিপিই,হ্যান্ড গ্লাবস,গগলস পরে ওই এলাকায় যাই। মহিলার লাশ গোছলের পূর্বে নাকের নাকফুল খুলে নিতে পরিবারের সহযোগিতা চাই। তখন ওই মহিলার ছেলে মেয়ে কেউ এগিয়ে আসে নি। এমন ঘটনায় আমি স্তম্ভিত হয়ে যাই। পরে আমার টিমের নারী সদস্যরা সহযোগিতা করে। তারপর আমরা লাশের আনুষ্ঠানিকতা সেরে কবরস্থ করি।

দৈনিক আমাদের কুমিল্লাঃ এখন পর্যন্ত কতজনের লাশ দাফন করেছেন?

মোঃ রোকনউদ্দিন রোকনঃ এখন পর্যন্ত মহামারি করোনাতে মারা যাওয়া ১৫ টিলাশ দাফন করি।

দৈনিক আমাদের কুমিল্লাঃ কিভাবে লাশ দাফনের প্রস্তুতি নেন?

মোঃ রোকনউদ্দিন রোকনঃ আমাদেরকে যখন ফোনে খবর দেয়া হয় তখনই আমরা প্রস্তুতি শুরু করি। টিমের সবাইকে প্র¯তুত করি। প্রত্যেকে পিপিই পড়ি,হ্যান্ড গ্লাবস,গগলস পড়ি। আমাদের টিমে একজন ইমাম আছে। উনাকে প্রস্তুত করি। কখনো টিমের একাংশকে মারা যাওয়া ব্যক্তির বাড়ী পাঠিয়ে দেই। তারপর মারা যাওয়া ব্যক্তির বাড়ী গিয়ে সব আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করি।

দৈনিক আমাদের কুমিল্লাঃএকটি লাশ কবরস্থ করতে অনেক খরচ হয়?

মোঃ রোকনউদ্দিন রোকনঃ সত্যি বলতে অনেক খরচ হয়। তবে এ কাজে আমাকে আর্থিকভাবে সহযোগিতা করেন আমার বড় ভাই। এখন পর্যন্ত সাড়ে ৩ লাখ টাকা দিয়েছেন। আমার অনেক শুভাকাঙ্খি আমাকে ইমপোর্টেড পিপিই দিয়েছে।সেগুলো ব্যবহার করছি। এচাড়াও আরো অনেক খরচ হয়। সেগুলো আমি আমার ব্যক্তিগত তহবিল থেকে খরচ করি।
দৈনিক আমাদের কুমিল্লাঃ কেমন সাড়া পাচ্ছেন?

মোঃ রোকনউদ্দিন রোকনঃ ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। দেশ ও দেশের বাহির থেকে ফেইসবুকে আমাকে ও আমার টিম দাফন ওরা-৯ কে সবাই উৎসাহ দিচ্ছে। নগরীর বাইরে থেকে লাশ দাফনের খবর আসছে।

দৈনিক আমাদের কুমিল্লাঃ এমন কাজের ভালো কাজের স্প্রিরিট সর্ম্পকে জানতে চাই

মোঃ রোকনউদ্দিন রোকনঃ আমি রাজনীতি করি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ দিয়েছেন। সব নেতাকর্মীদের করোনা মহামারিতে এগিয়ে এসে সাধারণ মানুষের সেবা করতে। আর আমি আমার নেতা সদর আসনের সাংসদ ও মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা আ.ক.ম বাহাউদ্দিন বাহার ভাইয়ের উৎসাহ অনুপ্রেরনাাই আমার টিমের মূল স্প্রীট হিসেবে কাজ করে। আমি আমার নেতার মতই মানুষের সেবা করার মাঝে দিয়ে নিজেদের জীবন পার করতে চাই।

দৈনিক আমাদের কুমিল্লাঃ করোনার মত এমন ক্রান্তিকালে দৈনিক কুমিল্লার মাধ্যমে সবার উদ্দেশ্য যে বার্তাটি দিতে চান?

মোঃ রোকনউদ্দিন রোকনঃ কুমিল্লায় করোনায় মারা যাওয়া লাশ দাফনে ২/৩ টা টিম কাজ করছে। তবে তা পর্যাপ্ত নয়। আমি সবার উদ্দেশ্য বলতে চাই করোনায় মারা যাওয়াদের সাথে কোন অমানবিক আচরন নয়। পাড়া মহল্লায় টিম গঠন করুন। সবাই সরকারী নির্দেশনা মেনে চলুন। সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় করোনার মত মহামারি আমরা জয় করতে পারবো ইনশাল্লাহ।