শনিবার ১৫ অগাস্ট ২০২০


দারিদ্র বিমোচন ও পল্লী উন্নয়নে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান


আমাদের কুমিল্লা .কম :
29.06.2020

মোঃ শরিফুল ইসলাম।।
বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষ খাদ্য পাবে, বাসস্থান পাবে, শিক্ষা পাবে উন্নত জীবনের অধিকারী হবে এটাই ছিল বঙ্গবন্ধুর সপ্ন ।এর পরিপেক্ষিতে গণমুখী সমবায় গড়ার সপ্ন দেখতে শুরু করেন কেননা দারিদ্র বিমোচনে সমবায়ের পথ মানেই গনতন্ত্রের পথ । সমবায়ের মাধ্যমে গরীব কৃষক উৎপাদন ও যন্ত্রের মালিকানা লাভ করবে। অন্যদিকে অধিকতর উৎপাদন বৃদ্ধি ও সম্পদের সুষম বণ্টন ব্যাবস্থায় প্রতিটি ক্ষুদ্র চাষি গনতান্তিক অধিকার পাবে ।জোতদার ধনী চাষীর শোষণ থেকে তারা মুক্তি লাভ করবে সমবায়ের সংহত শক্তির দ্বারা । একইভাবে কৃষক, শ্রমিক তাঁতি জেলে ও ক্ষুদ্র ব্যাবসায়ি উৎপাদনের মাধ্যমে পুঁজি গঠন করতে পারলে ধনিক জোতদারের কাছে চোরা সুদে টাকা ধার করতে হবে না এর ওনারাও খুদ্রদের শোষণ করতে পারবে না ।কৃষকরা তাদের উৎপাদিত ফসলের বিনিময়ে পাবে ন্যায্যমূল্য ,শ্রমিকরা পাবে শ্রমের ফল ভোগের ন্যায্য অধিকার। কিন্তু এই লক্ষ্যে যদি পৌছাতে হয় তাহলে অতিতের ঘুনে ধরা সমাজকে ভেঙ্গে নতুন করে এক একটি গ্রামকে সমবায় গ্রামে পরিনত করতে হবে এবং এই লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পদক্ষেপ নেওয়া শুরু করেন ।বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সপ্ন দেখতেন এক একটি সমবায় সমতি হবে কৃষক শ্রমিক মেহনতি জনতার নিজস্ব প্রতিষ্ঠান । যা পরিচালনার দায়িত্ব থাকবে জনগনের নির্বাচিত প্রতনিধিদের উপর । ।বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নিজস্ব সপ্ন বাস্থবায়নের লক্ষ্যে কিছু সমবায় সমিতি নিজ হাতে গড়ে তোলেন এমনকি এই লক্ষ্যে পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের মত প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন যার তত্ত্বাবধানে পল্লী উন্নয়ন একাডেমী ,বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ড , পল্লী দারিদ্র্য বিমোচন ফাউনডেশন ও ক্ষুদ্র কৃষক উন্নয়ন ফাউনডেশনের মত অনেক প্রতিষ্ঠান আজও বাংলার গ্রামে গ্রামে দারিদ্র্য বিমোচনে কাজ করে যাচ্ছে । যার ফলশ্রুতিতে বাংলার প্রতিটি মানুষ আজ পেট পুরে খেতে পাচ্ছে, প্রতিটি পরিবারে সচ্ছলতার হাসি পরিস্ফুতিত হচ্ছে। যেখানে এক সময় এক মুঠো খাদ্যের জন্য মানুষের হাহাকার দেখা যেত অধিকাংশ কৃষক মুজুর শ্রমিক পরিবার খাদ্যের অভাবে অর্থের অভাবে দিনাতিপাত করত অথচ আজ সারা বাংলায় এমন পরিবার পাওয়াই দুস্কর যারা খাদ্যের অভাবে অনাহারে দিনাতিপাত করছেন । আজ যদিও বা আমরা মনে করি এটা সম্ভব হয়েছে আমাদের প্রচেষ্টায় আমাদের পরিশ্রমে হা সেটা সত্যি তবে নাবিক ছাড়া যেমন নৌকা চলে না তেমনি নাবিক হিসাবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদের মনে আশার আলো জোগিয়েছিলেন ,সপ্ন দেখতে শিখিয়েছিলেন নিজেই কাণ্ডারি হয়ে শক্ত হাতে হাল ধরেছেন এই ঘুনে ধরা জাতির উন্নয়নের জন্য যার ফলেই আমরা আজকে মেধা শ্রম দিয়ে দেশ থেকে দারিদ্রতা দূর করতে সক্ষম হয়েছি । পরিশেষে আজকের এই খুদা দারিদ্র মুক্ত বাংলাদেশ গঠনের ক্ষেত্রে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবদান অপরিসীম যা বাংলার প্রতিটি মানুষ শ্রদ্ধা ভরে স্মরণ করবে সারাক্ষণ ।
লেখক: ক্ষুদ্র কৃষক উন্নয়ন ফাউন্ডেশন, কাউনিয়া, রংপুর