বুধবার ৮ জুলাই ২০২০


বাবা-ভাই ও মামার হাতে খুন হন কিশোরী লাইজু!!


আমাদের কুমিল্লা .কম :
01.07.2020

তৌহিদুর রহমান নিটল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া।।
অবশেষে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার চাঞ্চল্যকর কিশোরী লাইজু আক্তার (১৫) হত্যাকা-ের রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় বাবা, ভাই ও মামাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। হত্যাকা-ের বিবরণ দিয়ে ভাই ও মামা মঙ্গলবার আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে পুলিশ জানায়, নাসিরনগর উপজেলার ধরমন্ডল ইউপির লম্বাহাটি গ্রামের কিশোরী লাইজু একই গ্রামে তার মামা মাজু মিয়ার বাড়িতে বসবাস করত। গত২২শে জুন লাইজুকে বাড়ির পাশের পাটক্ষেতে একযুবকের সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় দেখেন তিনি। বিষয়টি লাইজুর বাবা সানু মিয়া ও মা সাফিয়া আক্তারকে জানান মাজু। এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হন তার বাবা। পরদিন ২৩ জুন সকালে ঘরে বসে লাইজুকে হত্যার পরিকল্পনা করেন বাবা ও মামা। পরিকল্পনা অনুযায়ী ওই দিন রাত সাড়ে ৯টা থেকে সাড়ে ১০টার মধ্যে লাইজুর বাবা তাকে ঘর থেকে ডেকে বাইরে নিয়ে যান। এরপর লাইজুকে তার গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করেন তারা। বাবা ও মামার সঙ্গে হত্যাকা-ে যোগ দেন লাইজুর ভাই আদম আলীও। পরবর্তীতে তারা তিনজন মিলে লাইজুর মরদেহ স্থানীয় একটি ডোবায় ফেলে দেন। পরে শনিবার ২৭ জুন দুপুরে ওই ডোবা থেকে অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।
বিজ্ঞপ্তিতে আরো জানা যায়, মরদেহ উদ্ধারের পর পুলিশের পক্ষ থেকে পরিবারকে মামলা দায়ের করার জন্য বলা হয়েছিল। কিন্তু প্রথমে কেউ মামলা করতে রাজি হয়নি। এসব বিষয়ে আমাদের সন্দেহ তীব্র হয় তাদের প্রতি। মূলত মামাকে টার্গেট করা হয়। এরপর তাকে জিজ্ঞাসাবাদে বাবা ও ভাইয়ের সম্পৃক্ততার কথা বেরিয়ে আসে।
এবিষয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সদর সার্কেল (দায়িত্বে সরাইল সার্কেল) মোহাম্মদ মোজাম্মেল হোসেন জানান, আমরা তাদের আদালতে প্রেরণ করেছি। তারা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেওয়ার পর কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন।