শনিবার ১৫ অগাস্ট ২০২০


নিরাপত্তাহীনতায় কুবির নিরাপত্তাকর্মীরা


আমাদের কুমিল্লা .কম :
16.07.2020

কুবি প্রতিনিধি।।
চলমান করোনাভাইরাস সংকটে পর্যাপ্ত ব্যক্তিগত নিরাপত্তা সামগ্রী ও ঝুঁকি ভাতা ছাড়াই দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের(কুবি) নিরাপত্তাকর্মীরা। স্বাস্থ্যঝুঁকি নিয়ে এমন দায়িত্ব পালনের পরও কোন ধরনের আর্থিক নিশ্চয়তা না পাওয়ায় অসন্তোষ সৃষ্টি হয়েছে নিরাপত্তাকর্মীদের মাঝে।
করোনা সংকট মোকাবেলায় গত ১৮ মার্চ থেকে দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে সরকার। শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের জন্য মিললেও এ ছুটি মিলেনি কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তাকর্মীদের জন্য। তাই এ সংকটে অনেকটা ঝুঁকি নিয়েই কাজ করে যাচ্ছেন তারা।
জানা যায়, আনসার ও প্রহরী মিলে ৫৪ জন নিরাপত্তাকর্মী বিশ্ববিদ্যালয়ে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। জনবল সংকটে প্রায়ই অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করতে হয় তাদের। এজন্য বাড়তি পারিশ্রমিকও পাননা তারা। তবে করোনাভাইরাস সংকটে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তাদের জন্য কোন ধরনের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ব্যবস্থা গ্রহণ ও প্রণোদনা বা ঝুঁকি ভাতা প্রদান করেনি। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন তারা।

মো. মাঈনুদ্দিন নামে একজন নিরাপত্তাকর্মী বলেন, ‘ক্যাম্পাসের সবাই যখন ছুটিতে, তখনও আমরা ডিউটি দিচ্ছি। অথচ আমাদের খবর নেওয়ার কেউ নেই। করোনার এই সময়ে আমাদেরকে কোন ধরনের নিরাপত্তা সরঞ্জামও দেওয়া হয়নি, কিংবা দেওয়ার আশ্বাসও কেউ দেয়নি।’
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আরেকজন নিরাপত্তাকর্মী বলেন, ‘আমাদের জন্য ঝুঁকি ভাতা নির্ধারণতো হয়নি, উল্টো দায়িত্ব পালনের জন্যও কোন ধরনের ব্যবস্থা করা হয়নি। এ অবস্থায় কোন নিরাপত্তাকর্মী যদি করোনায় আক্রান্ত হয়ে পড়ে, এ দায়ভার কি প্রশাসন নিবে?’
নিরাপত্তা কর্মকর্তা মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া বলেন, ‘করোনায় বিভিন্ন পেশার লোকজন প্রণোদনা বা ঝুঁকি ভাতা পাচ্ছেন। কিন্তু এ সংকটের মধ্যেও যারা ক্যাম্পাসকে নিরাপদ রাখছেন, এখন পর্যন্ত তাদেরকে করোনাকালীন কোন ধরনের সুবিধা প্রদান করা হয়নি। তবে আমরা আশা করি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ যথাযথ পদক্ষেপ নিয়ে বিষয়টি বিবেচনা করবেন’
এদিকে, বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাভাবিক কার্যক্রম এগিয়ে নিতে গত ৬ জুলাই থেকে সীমিত পরিসরে দাপ্তরিক কার্যক্রম শুরু হওয়ায় ক্যাম্পাসে আনাগোনা শুরু হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শিক্ষার্থীদের। এসময়ে সামাজিক দুরত্ব মানা অনেকটা কঠিন হয়ে পড়েছে নিরাপত্তাকর্মীদের জন্য। পর্যাপ্ত নিরাপত্তা সামগ্রী নিয়ে দায়িত্ব পালন করতে না পারায় নিরাপত্তাকর্মীদের আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা আরও বেড়েছে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অধ্যাপক মো. আবু তাহেরকে একাধিকবার মুঠোফোনে কল ও বার্তা পাঠিয়েও কোন ধরনের উত্তর পাওয়া যায়নি।

কুমিল্লায় ৮৩ জন করোনায় আক্রান্ত, সুস্থ ৫৮ জন
স্টাফ রিপোর্টার।
কুমিল্লায় বুধবার ৮৩ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এনিয়ে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে এখন চার হাজার ৬৯৮ জনে দাঁড়িয়েছে। জেলায় নতুন করে সুস্থ হয়েছেন ৫৮ জন। সর্বমোট সুস্থ হয়েছেন দুই হাজার ৬৫১ জন। নতুন করে জেলার লাকসামের একজনসহ কুমিল্লায় মোট ১২৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার জেলা সিভিল সার্জন ডা. মো. নিয়াতুজ্জামান এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
জেলা সিভিল সার্জন অফিস সূূত্র জানায়, বুধবার নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন- কুমিল্লা নগরীতে ২৬ জন, লাকসাম দুইজন, চৌদ্দগ্রামে একজন, দেবিদ্বারে একজন, হোমনায় আটজন, বরুড়ায় ছয়জন, মনোহরগঞ্জে দুইজন, তিতাসে ১০জন, দাউদকান্দিতে ছয়জন, সদর দক্ষিণে সাতজন ও নাঙ্গলকোটে ১৪ জন। বুধবার সুস্থ হয়েছেন লাকসামে ১৪ জন, সদর দক্ষিণে ও তিতাসে দুইজন করে, চান্দিনায় আটজন, হোমনায় ১৬ জন, মনোহরগঞ্জে ১০ জন ও বরুড়ায় ছয়জন। বুধবার পর্যন্ত কুমিল্লা জেলা থেকে সর্বমোট নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ২২ হাজার ৫২৬ জনের। রিপোর্ট পাওয়া গেছে ২২ হাজার ২৯৮ জনের।