বুধবার ৫ অগাস্ট ২০২০


পশুর চামড়া নদীতে ফেলতে চান না কুমিল্লার ব্যবসায়ীরা


আমাদের কুমিল্লা .কম :
24.07.2020

ফাইল ছবি।

মাহফুজ নান্টু।।

মাটি চাপা দিয়েছিলেন কেউ। অনেকেই আবার ফেলে দিয়েছিলেন নদীতে। রাস্তার পাশে ফেলে রাখা হয় দীর্ঘদিন। চামড়া পঁচা গন্ধে হাটাচলা করা দায় ছিলো। গত বছর কোরবানির ঈদে পশুর চামড়া বিক্রি না করতে পারার দৃশ্য ভাইরাল হয়েছিলো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। সিন্ডিকেটের কবলে পড়ে অনেক চামড়া ব্যবসায়ী সর্বস্বান্ত হয়েছিলেন। বঞ্চিত হয়েছেন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এতিম শিক্ষার্থীরা। বছরজুড়ে লোকসানের ক্ষত চিহ্ন বয়ে বেড়িয়েছেন ব্যবসায়ীরা। তাই এ বছর উদ্বিগ্ন কুমিল্লার চামড়া ব্যবসায়ীরা। তারা আর চামড়া নদীতে ফেলতে চান না। এনিয়ে ব্যবসায়ীরা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা চেয়েছেন।
কুমিল্লা ঋষিপট্টির ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি রতন ঋষি জানান, গত বছর ঢাকা ও স্থানীয় সিন্ডিকেটের কারণে অনেক লোকসান গুণতে হয়েছে। আমরা স্থানীয়ভাবে চামড়া ক্রয় করেছি। পরে বিক্রি করতে পারিনি।
ঋষিপট্টির চামড়া ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক হরি ঋষি জানান, গত বছরের ঘটনায় চামড়া ব্যবসায়ীরা চরম ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছি। এ বছর এমন ঘটনার পুনারাবৃত্তি চাই না। এ জন্য তিনি প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
সাজু নামের একজন চামড়া ব্যবসায়ী জানান, প্রতি বছর মৌসুমি চামড়া ব্যবসায়ীর আবির্ভাব হয়। তারা কেউ সরকারি নিয়ম নীতি মানে না। সিন্ডিকেট সৃষ্টির মাধ্যমে কোরবানির পশুর চামড়া ক্রয় করে। যারা প্রকৃত চামড়া ব্যবসায়ী তারা ক্ষতিগ্রস্থ হয়।
কুমিল্লার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ নুরুজ্জামান জানান, যারা চামড়া বিক্রি করতে পারবেন না তাদের জন্য স্থানীয় এতিমখানা কিংবা মাদ্রাসায় সংরক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসাররা ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। দুই মাস পর সংরক্ষণ করা চামড়া বিক্রি করে একটি অংশ মাদ্রাসায় দান করা হবে। বাকি অংশ চামড়ার মালিককে দেয়া হবে।