মঙ্গল্বার ১১ অগাস্ট ২০২০
  • প্রচ্ছদ » sub lead 1 » ভাঙ্গা গড়ার শব্দ -কিনুন, বেঁচে উঠুক মেধাবী তানিন


ভাঙ্গা গড়ার শব্দ -কিনুন, বেঁচে উঠুক মেধাবী তানিন


আমাদের কুমিল্লা .কম :
27.07.2020

শাহাজাদা এমরান।।
তানিন। পুরো নাম তানিন মেহেদী।পড়াশুনা করছেন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগে।সমাজের অন্য দশটি মেধাবী কিশোরের মতই রঙিন স্বপ্নে বিভোর হয়ে আঁকা বাঁকা পথ ঠেলে লাল মাটির ক্যাম্পাসে ভর্তি হন ২০১৮ সালে তানিন মেহেদী। কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাস যে, কুবিতে ভর্তি হওয়ার মাত্র দেড় মাসের মাথায় তার পায়ে একটি টিউমার ধরা পড়ে। এই টিউমারের চিকিৎসা করাতে গিয়ে জানতে পারেন টিউমারটি ক্যান্সারে রূপ নিয়েছে। কৃষক বাবার পক্ষে ব্যয় বহুল এই চিকিৎসা করা সম্ভব হবে না ভেবে এগিয়ে এসেছে বিভাগের সহ পাঠিরা। প্রিয় বন্ধুদের হার্দিক সহযোগিতায় পায়ের ক্যান্সার থেকে সেড়ে উঠতে না উঠতেই আবার ধরা পড়ে ফুসফুসের ক্যান্সার।প্রিয় বন্ধু তানিনের চিকিৎসার খরচ মেটাতে এবার বন্ধুরা নিজেরাই লিখে বের করেছে ‘ভাঙ্গা গড়ার শদ্ধ’ নামে একটি কবিতার বই। আল্লাহর রহমত আর এই কবিতার বই এর বিক্রির সমুদয় অর্থ দিয়ে বেঁচে উঠবে বন্ধু তানিন-বিশ্বাস তার বন্ধুদের।
তানিন মেহেদী।বাবা জাকির পাটোয়ারি।পেশায় কৃষক। বাড়ি চাঁদপুর জেলার মতলব দক্ষিণ উপজেলার নায়ের গাঁও ইউনিয়নের লাট গ্রামে। বাবা মায়ের এক ছেলে আর এক মেয়ের মধ্যে তানিন ছোট। ইতিমধ্যে বিয়ে হয়ে গেছে বোনটিরও। কৃষি কাজ করে জিবিকা নির্বাহ করা বাবা জাকির পাটোয়ারির আজীবন স্বপ্ন স্বাধ একমাত্র ছেলে কে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করে মানুষের মত মানুষ করবেন। যাতে দশ গ্রামের মানুষের কাছে তার মুখ উজ্জ্বল হয়। নিজের জীবনে কষ্টের ভিতর গেলেও ছেলের জীবন যাতে সুখে শান্তিতে ভরপুর থাকে তাই খেয়ে না খেয়ে প্রিয় পুত্রের পড়াশুনা চালিয়ে নেন। এইচ এস সি পাস করার পর বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিও করে দেন। কিন্তু মাত্র দেড় মাসের মধ্যেই বাবার জাকির পাটোয়ারির মাথায় ভেঙ্গে পড়ে যেন পুরো আকাশসম ভারী এক পাহাড়। সন্তানের পায়ের টিউমারের চিকিৎসা করাতে ঢাকা গিয়ে জানতে পারেন টিউমার রূপ নিয়েছে ক্যান্সারে। সুস্থ করতে হলে যেতে হবে দেশের বাহিরে। লাগবে প্রায় ২০ লক্ষ টাকার মত। কিন্তু এত টাকা কোথায় পাবে তানিনের অসহায় দরিদ্র পিতা।
মেধাবী ছাত্র তানিনের পাশে এসে দাঁড়াল কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের তার সহপাঠি বন্ধুরা। মরমী কথা শিল্পী ভুবেন হাজারিকার সেই অমর গানটিকেই একমাত্র সম্বল হিসেবে বেছে নিলেন বন্ধুরা- ‘মানুষ মানুষের জন্য,জীবন জীবনের জন্য’।পড়ার টেবিল ছেড়ে নেমে পড়লেন রাস্তায়। কুবির তানিনের বন্ধুদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় সংগ্রহ হয়ে গেল প্রায় ১৬ লক্ষ টাকা। তুলে দিলেন বন্ধু তানিনে হাতে। ভারতের মুম্বাইয়ের টাটা হাসপাতালে পায়ের টিউমার থেকে আক্রান্ত হওয়া দুরারোগ্য ক্যানসার সাইনোভিয়াল সারকোমার চিকিৎসা শেষে কিছুটা সুস্থ হয়ে দেশে ফিরে আবার পড়াশুনায় মনোনিবেশ করল তানিন। কিন্তু মাত্র কয়েক মাস যেতে না যেতে আবার তার শরীরে ধরা পড়ল ক্যান্সার। এবার ক্যান্সার আক্রান্ত করেছে তানিনের ফুসফুসে। গত ২০ জুলাই সোমবার ঢাকার পিজি হাসপাতালে ডাক্তার দেখানোর পর জানা গেল তার ফুসফুসে ক্যান্সার হয়েছে। দিতে হবে ৬টি কেমো থেরাপি।যার মূল্য ৩ লক্ষ টাকা। এই কেমো থেরাপী দিয়ে যদি সুস্থ না হয় তাহলে আবার পাঠাতে হবে তাকে দেশের বাহিরে। আবার চিকিৎসা আবার গুণতে হবে লক্ষ লক্ষ টাকা। কিন্তু এবার তানিনকে আর কে দিবে টাকা ?
বলতেই হবে তানিনের জন্য আল্লাহ পাক বিশেষ ভাবে পাঠিয়েছেন তার এক ঝাঁক মানবিক গুণ সম্পন্ন মেধাবী বন্ধু। যেই বন্ধুরা প্রায় ২০ লক্ষ টাকা উঠিয়ে একবার তানিনকে সুস্থ করেছিলেন। সেই অসীম সাহসী তেজদীপ্ত যুবকরা তো দমবার পাত্র নন। তারা হেরে যাওয়ার আগে হেরে যেতে চান না। লড়াই করে যেতে চান প্রিয় বন্ধু তানিনের জন্য। এবার তারা তানিনের জীবন বাঁচাতে উদ্যোগ নিয়েছেন সৃজনশীল একটি কাজ।
কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী জান্নাতুন নিশা, নুহাশ রহমান, ফাতেমা রহিম রিন্স, রফিক উদ্দীন, সানজিদা আক্তার অপর্ণা, ইমতিয়াজ হাসান রিফাত, ওয়াফা আক্তার রিমু,চৌধুরী মাসাবিহ, হুমায়রা কবির ও আঞ্জুমান শীমুরা তানিনের জন্য এবার সাহায্য নয়,বেছে নিয়েছেন সহযোগিতার। তারা হাতে কলম তুলে নিয়েছেন, লিখেছেন কবিতা। তাদের ক্ষুধে সুনিপুন হাতের সপ্নিল কবিতা গুলো নিয়ে প্রকাশ করেছেন ‘ভাঙ্গা গড়ার শদ্ধ’ নামে একটি কবিতার বই। দাম রেখেছেন মাত্র ৫০ টাকা। তারুণ্য প্রকাশনী থেকে ই-বুক আকারে প্রকাশিত বইটির শুভেচ্ছা মূল্যের পুরোটাই ব্যয় করা হবে তানিন মেহেদীর চিকিৎসায়।
তানিমের বন্ধু সোহাগ জানান,প্রথম বার চিকিৎসায় মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরে তানিনের চিকিৎসার জন্য টাকা তুলেছি। ভাবলাম, এবার কি একই পদ্ধতি অবলম্বন করব ? বন্ধুদের সাথে আলাপ করে এবার আমরা সম্মিলিত ভাবে সিদ্ধান্ত নিলাম না,এবার আমরা বন্ধুর জন্য সাহায্য নেব না,সহযোগিতা নেব। আমরা নিজেরা কবিতা লিখে যৌথ ভাবে বই প্রকাশ করেছি। আপনারা দয় করে আমাদের বইটি কিনে তানিনের চিকিৎসায় সহযোগিতা করুন।
যাকে নিয়ে এত কথার অবতারনা সেই তানিন মেহেদী কি ভাবছেন জানতে চাইলে তানিন আবেগ আপ্লুত হয়ে যান। আবেগকে কিছুটা সংযত করে তানিন বলেন,ভাই আমি সম্ভবত পৃথিবীর সবচেয়ে ভাগ্যবান বন্ধুৃ,সহপাঠি কিংবা বিভাগের ছাত্র যে, যাকে বাঁচানোর জন্য তার বন্ধুরা তাদের জীবন উৎসর্গ করে দিচ্ছে। কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক,বন্ধুসহ সকল শিক্ষার্থীদের প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, আল্লাহ যদি আমাকে নেক হায়াত দেন তাহলে মানব কল্যাণে নিজকে উৎসর্গ করে বন্ধুদের প্রতিদানের জবাব দেয়ার চেষ্টা করব। তানিন বাঁচার আকুতি জানিয়ে দেশবাসীর কাছে আবেদন করেছেন ‘ভাঙ্গা গড়ার শদ্ধ’ কিনে তার জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসার জন্য।

তানিনের বন্ধু সোহাগ আেেরা জানান, বই এর মূল্য ৫০ টাকা হলেও তানিনের কথা ভেবে যদি কেউ এর মূল্য বাড়িয়ে দিতে চান তাও সাদরে গ্রহন করা হবে।
বিভাগের শিক্ষার্থীদের এমন উদ্যোগ কে স্বাগত জানিয়ে বিভাগের শিক্ষক কাজী আনিছ এক বার্তায় লিখেছেন, ‘মানুষ বাঁচানোর লড়াটাই শ্রেষ্ঠ কবিতা, কবিতারা হারে না, শিক্ষার্থীদের এমন উদ্যোগে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়ি।’
‘ভাঙ্গা গড়ার শদ্ধ’ গ্রন্থের সমন্বয়ক ও সম্পাদক সোহাগ মনি বলেন, ‘ক্যানসার আক্রান্ত তানিনের পাশে দাঁড়ানোটাই আমাদের উদ্দেশ্য, বইটির শুভেচ্ছা মূল্য আমরা তুলে দেব তানিনের হাতে। আমরা যদি ১ টাকাও তুলে তানিননের হাতে দিতে পারি, সেটাই আমাদের অর্জন এবং ভালো লাগা হয়ে থাকবে। সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থীদের যৌথ গ্রন্থটি শুভেচ্ছা মূল্যের বিনিময়ে নিয়ে ক্যানসার আক্রান্ত তানিনের পাশে দাঁড়াতে চাইলে যোগাযোগ করতে পারেন [email protected] এই মেইলে কিংবা নিজের সেল নাম্বারে।
তানিনকে সহায়তার জন্য অথবা বই কিনতে অর্থ পাঠাতে পারেন-
০১৭৬৫৫৬৬৬১৬২-রকেট আরাফাত
০১৬২১৮৯২৫৭৪ – বিকাশ (পার্সোনাল) সোহাগ
০১৯৮০১৪৮৭১৪৬- রকেট – – রিফাত
০১৮৬৪-৮১৮৮০৫- তানিন মেহেদী