শুক্রবার ২৫ †m‡Þ¤^i ২০২০
  • প্রচ্ছদ » sub lead 3 » নাঙ্গলকোটে মুয়াজ্জিন ও তার ছেলেকে দাফন স্বজনের আহাজারিতে ভিজে উঠে মানুষের চোখ


নাঙ্গলকোটে মুয়াজ্জিন ও তার ছেলেকে দাফন স্বজনের আহাজারিতে ভিজে উঠে মানুষের চোখ


আমাদের কুমিল্লা .কম :
07.09.2020

স্টাফ রিপোর্টার।। নারায়ণগঞ্জে এসি বিস্ফোরণে নিহত মসজিদের মুয়াজ্জিন হাফেজ দেলোয়ার হোসেন ভূঁইয়া (৪৭) ও তার বড় ছেলে জোনায়েদ হোসেন ভূঁইয়ার (১৭) জানাযা শানিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে নাঙ্গলকোট উপজেলার ঢালুয়া ইউনিয়নের বদরপুর গ্রামে অনুষ্ঠিত হয়েছে। জানাযা শেষে বাবা ও ছেলেকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। এলাকায় পরহেজগার ও ধর্মীয় পরিবার হিসেবে তাদের সুখ্যাতি রয়েছে। বাবা-ছেলের করুণ মৃত্যুতে এখনও স্বজনরা আহাজারি করছেন। স্বজনদের আহাজারিতে জানাযায় আসা মানুষেরও চোখ ভিজে উঠে।
সূত্র জানায়, কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার ঢালুয়া ইউনিয়নের বদরপুর গ্রামের মৌলভী শফিকুর রহমানের একমাত্র ছেলে হাফেজ দেলোয়ার হোসেন ভূঁইয়া। তার তিনজন বোন রয়েছে। তিনি তার দুই ছেলে মাদ্রাসার ৭ম শ্রেণির ছাত্র জোনায়েদ হোসেন ও দ্বিতীয় ছেলে হাফেজিয়া মাদ্রাসার ছাত্র হাফেজ জাকারিয়াকে (১৩) নিয়ে নারায়ণগঞ্জে বসবাস করে আসছিলেন।
তাদের প্রতিবেশী স্থানীয় ঢালুয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি জহিরুল আলম জনি জানান, দেলোয়ার হোসেন ভূঁইয়া নারায়ণগঞ্জের তল্লা বাইতুস সালাহ মসজিদে প্রায় ২৫ বছর যাবত মুয়াজ্জিনের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। তিনি দীর্ঘদিন থেকে পাঞ্জেগানা নামাজের ইমামতিও করতেন। দেলোয়ার হোসেন ভূঁইয়ার আরো এক ছেলে ও তিন মেয়ে রয়েছে। স্বামী ও বড় ছেলেকে হারিয়ে পরিবারটি এখন দিশেহারা। তারা সরকারের নিকট সহায়তা কামনা করেছেন। অসহায় পরিবারটিকে সহায়তা করার জন্য তিনি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা কামনা করেন।
উল্লেখ্য-নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার পশ্চিম তল্লা এলাকার সর্দারপাড়ার বাইতুস সালাহ মসজিদে শুক্রবার এশার নামাজ পড়া অবস্থায় এসি বিস্ফোরণে তারা মারা যান।