বুধবার ৩০ †m‡Þ¤^i ২০২০
  • প্রচ্ছদ » sub lead 2 » চূড়ান্ত পরীক্ষা নিয়ে বিপাকে কুবি শিক্ষার্থীরা


চূড়ান্ত পরীক্ষা নিয়ে বিপাকে কুবি শিক্ষার্থীরা


আমাদের কুমিল্লা .কম :
10.09.2020

কুবি প্রতিনিধি।। করোনা সংকটে দেশের অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ন্যায় কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ও(কুবি) প্রায় ছয় মাস ধরে বন্ধ থাকায় চূড়ান্ত পরীক্ষা নিয়ে বিপাকে পড়েছেন শিক্ষার্থীরা। এ সমস্যার সবচেয়ে বড় শিকার বিভিন্ন বিভাগের ¯œাতক শেষবর্ষ ও ¯œাতকোত্তরের শিক্ষার্থীরা। চূড়ান্ত পরীক্ষা দিতে না পারায় গুরুত্বপূর্ণ চাকুরীর পরীক্ষার জন্য আবেদন করতে পারছেন না তারা। অন্যদিকে বড় সেশনজটের আশংকা করছেন বিভিন্ন বর্ষে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীরা।
সম্প্রতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চূড়ান্ত পরীক্ষায় অংশগ্রহণের অনুমতি দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়টির প্রশাসন। এ প্রেক্ষিতে কুমিল্লা বিশ^বিদ্যালয়েও স্বাস্থ্যবিধি মেনে অন্তত আটকে থাকা পরীক্ষাগুলো নেওয়ার দাবি করছেন তারা। তবে অনলাইনে ক্লাস চালিয়ে নিলেও শিক্ষার্থীদের চূড়ান্ত পরীক্ষা নিয়ে এখনই ভাবছেনা কুবি প্রশাসন।
বিশ^বিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, মার্চ মাসের ১০ তারিখ পর্যন্ত অন্তত ৩০ টি সেমিস্টারের চূড়ান্ত পরীক্ষার প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছিল পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়। কিন্তু করোনার থাবায় পরীক্ষাগুলো আর আয়োজন করা সম্ভব হয়নি। এছাড়া, করোনা সংকটে সাধারণ ছুটি ঘোষণার আগে বিভিন্ন বিভাগের অন্তত ১৬টি সেমিস্টারের চূড়ান্ত পরীক্ষা চলমান ছিল। এর মধ্যে পাঁচটি ¯œাতক চূড়ান্ত এবং চারটি ¯œাতকোত্তর চূড়ান্ত পরীক্ষা। যারা শুধুমাত্র একটি বা দুটি পরীক্ষা বাকি থাকায় বিভিন্ন চাকুরীর পরীক্ষায় আবেদন করতে পারছেননা।
বাংলা বিভাগের ¯œাতক চূড়ান্ত সেমিস্টারের পরীক্ষার্থী নূরউদ্দিন রাসেল বলেন, সেশনজটে আটকা পড়ে ইতোমধ্যে চাকুরীর বাজারে পিছিয়ে পড়েছি আমরা। আবার করোনা সংকটে শুধুমাত্র দুটি পরীক্ষা বাকি থাকায় বিভিন্ন চাকুরীর আবেদন পর্যন্ত করতে পারছিনা। অথচ বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসন চাইলেই ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের মত স্বাস্থ্যবিধি মেনে আটকে থাকা বাকি পরীক্ষাগুলো নিয়ে আমাদেরকে চাকুরীর বাজারে প্রবেশের সুযোগ করে দিতে পারে।
বিশ^বিদ্যালয়ের ছাত্র পরামর্শক ও নির্দেশনা কার্যালয়ের পরিচালক অধ্যাপক ড. জি এম মনিরুজ্জামান বলেন, আমাদের ছাত্ররা অন্যদের থেকে পিছিয়ে থাকবে, তা হতে পারেনা। ¯œাতক এবং ¯œাতকোত্তর চূড়ান্ত পরীক্ষদের যাদের একটি বা দুটি পরীক্ষা বাকি আছে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে অন্তত তাদের পরীক্ষা নেওয়া যায় কিনা, সে ব্যাপারে কতৃপক্ষকে ভেবে দেখার আহŸান করছি আমি।
সার্বিক বিষয়ে বিশ^বিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (চলতি দায়িত্ব) অধ্যাপক মো. আবু তাহের বলেন, উপাচার্য, ডিনবৃন্দ এবং বিশ^বিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের সাথে কথা বলে আমরা এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিবো। এখনই এ ব্যাপারে চূড়ান্ত কিছু বলা যাচ্ছেনা।