মঙ্গল্বার ২৯ †m‡Þ¤^i ২০২০
  • প্রচ্ছদ » sub lead 3 » নগরীতে ব্যবসায়ী হত্যা দুই মাসেও গ্রেফতার হয়নি কাউন্সিলর আলমগীর


নগরীতে ব্যবসায়ী হত্যা দুই মাসেও গ্রেফতার হয়নি কাউন্সিলর আলমগীর


আমাদের কুমিল্লা .কম :
10.09.2020

আবু সুফিয়ান রাসেল।। কুমিল্লা নগরীতে ব্যবসায়ী হত্যার ঘটনায় প্রধান আসামি দুই মাসেও গ্রেফতার হয়নি। ছাড়া পেয়েছে মামলার দ্বিতীয় আসামি। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন নিহত ব্যবসায় আক্তার হোসেনের স্বজনরা। পুলিশ জানিয়েছে আসামি গ্রেফতারের জন্য সবোর্চ্চ চেষ্টা অব্যাহত আছে।
সূত্র জানায়, গত গত ১০ জুলাই শুক্রবার জুমার নামাজের পর নগরীর ২৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলমগীর হোসেনের নেতৃত্বে ব্যবসায়ী আখতার হোসেনকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠে। এই ঘটনায় কাউন্সিলর আলমগীরসহ ১০ জনকে আসামি করে মামলা করে নিহত আক্তারের স্ত্রী রেখা বেগম। হত্যাকাÐের দিনেই তিন জনকে গ্রেফতার করে কারাগারে প্রেরণ করে পুলিশ।
নিহত ব্যবসায়ী আক্তার হোসেনের ছোট ভাই স্থানীয় যুবলীগ নেতা শাহজালাল আলাল অভিযোগ করেন, দুই মাস হয়ে গেল, মামলার প্রধান আসামিকে পুলিশ গ্রেফতার করতে পারেনি। পক্ষান্তরে এ মামলার দ্বিতীয় আসামিকে তিন দিন আগে জামিন দেওয়া হয়েছে। ফেরারি আসামিদের গ্রেফতারের কোন তৎপরতা নেই। মূল আসামি যদি গ্রেফতার না হয়, তারা মামলা পরিচালনা, চিকিৎসকদের রিপোর্ট তৈরিসহ নানা কাজে বাঁধা তৈরি করতে পারে। পরিবারের দাবি হলো, তাদের দ্রæত গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় আনা হোক।

সদর দক্ষিণ মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক কমল কৃষ্ণ ধর জানান, এ ঘটনায় সিটি করপোরেশনকে আমরা চিঠি দিয়েছি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য। আসামিদের গ্রেফতারের জন্য সবোর্চ্চ চেষ্টা অব্যাহত আছে। সারা দেশের পুুুুুুুুুুুুুুুুুলিশ স্টেশনের আমরা তথ্য দেওয়া হয়েছে। কুমিল্লার কয়েকটি উপজেলায় কয়েকবার অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। আসামি গ্রেফতারে আমরা উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহারের চেষ্টা করেছি। এখন সাতজন আসামি পালাতক আছে। তিনজন গ্রেফতার হয়েছে, তাদের একজন জামিনে বের হয়েছে বলে অবগত হয়েছি। তবে অফিসিয়াল কোন নথি এখনো আমরা হাতে পাইনি।

এ বিষয়ে কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের মেয়র মনিরুল হক সাক্কু জানান, জনপ্রতিনিধির বিরুদ্ধে আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারি না। এ বিষয়ে স্থানীয় সরকার যে সিদ্ধান্ত দিবে সেটিই হবে। আর কাউন্সিলরের ছোট ভাই ইঞ্জিনিয়ার তাফাজ্জল এখানে চাকরি করে। সে এখন পালাতক রয়েছে। যেহেতু এটি আইনের বিষয়, পুলিশ এটা দেখছে।

প্রসঙ্গত, এ ঘটনায় গত ২৪ জুলাই কুমিল্লা মহানগর যুবলীগের যুগ্ম আহŸায়ক পদ থেকে বহিষ্কার করে কেন্দ্রীয় কমিটি। এ মামলার অন্যান্য আসামিরা হলেন কাউন্সিলরের ভাই আমির হোসেন, বিল্লাল হোসেন, জাহাঙ্গীর হোসেন, তোফাজ্জল হোসেন, গুলজার হোসেন। গুলজার হোসেনের ছেলে নাজমুল ইসলাম আলিফ ও নাজমুল ইসলাম তানভীর।