বুধবার ৩০ †m‡Þ¤^i ২০২০


করোনায় মানুষের পাশে মেয়র সাক্কু


আমাদের কুমিল্লা .কম :
14.09.2020

 

আবু সুফিয়ান রাসেল।।
কুমিল্লায় করোনা প্রাদুর্ভাবের পূর্বেই বহুমুখী পরিকল্পনা গ্রহণ করেন কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মনিরুল হক সাক্কু। গত ২২ মার্চ মেয়রের সভাপতিত্ব করোনা মোকাবেলায় বিশেষ কমিটি করেন তিনি। ত্রাণ সহায়তা, প্রচার অভিযান, পরিচ্ছন্নতা, মনিটরিং কার্যক্রম, লকডাউন ও কোয়ারেন্টাইন নিশ্চত করণ, সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ, করোনার নমুনা সংগ্রহ ও শনাক্ত করাসহ নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। করোনা মোকাবেলায় মেয়রের কার্যক্রমে খুশি নগরীর বাসিন্দারা।

সূত্র জানায়, শুরুতে করোনা মোকাবেলায় বিশেষ কমিটি করেন মেয়র। নগরীর প্রতিটি ওয়ার্ডে প্রচারণা কার্যক্রম, হ্যান্ডবিল, মাস্ক, সাবান, হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ করা হয়। সিটির কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অংশ গ্রহণে সভা ও দিক নির্দেশনা প্রদান করা হয়। কর্মহীন ও বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষের মাঝে ২৭ টি ওয়ার্ডে ১০ কেজি হারে ১০ হাজার ৮শ পরিবারের মাঝে চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় প্রায় ৩০ হাজার ব্যক্তিকে আড়াই হাজার টাকা করে অর্থ সহায়তা প্রদান করে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন। ২৭টি ওয়ার্ডের মধ্যে এক হাজার চারশ’ ৫৫ মেট্রিক টন চাল, ২৮ মেট্রিক টন তেল, ১৬ মেট্রিক টন পেয়াজ, ৪৪ মেট্রিক টন আলু, ৩৭ মেট্রিক টন মশুর ডাল, ৩৫ মেট্রিকটন আটা বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়াও ছয় শতাধিক শিশু খাদ্য ও ৪০৫ প্যাকেট শুকনো খাবার প্যাকেট বিতরণ করা হয়েছে। স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য ২৫ হাজার ৫শ মাস্ক, ২৫ হাজার সাবান, আটশ’ লিটার হ্যান্ড স্যানিটাইজারসহ গøাভস, পিপিই ও বিøচিং পাউডার বিতরণ করা হয়েছে।

নগরীর ২০ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মো. বেল্লাল হোসেন মন্তব্য করেন, করোনা ভাইরাসের বিষয়টা নতুন। ঘনবসতিপূর্ণ মহানগর হিসাবে কুমিল্লা সিটি করোনা থেকে রক্ষার জন্য যা করেছে, সত্যিই প্রশংসার দাবি রাখে। করোনাকালীন সময়ে পহেলা বৈশাখ, দুটি ঈদসহ নানা সামাজিক, ধর্মীয় অনুষ্ঠান ছিলো। নগরী থেকে যে সিদ্ধান্ত এসেছে, তা যথাযথ ছিলো বলে আমি মনে করি।

কুসিক করোনা ইউনিট প্রধান মো. জহিরুল ইসলাম জানান, রবিবার পর্যন্ত করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে তিন হাজার সাত শ ৮২ জন। নগরীতে করোনা পজেটিভ ১ হাজার ৮০ জন।

কুসিক সচিব (ভারপ্রাপ্ত) প্রকৌশলী আ. আবু সায়েম ভূঁইয়া বলেন, করোনা মহামারীতে কুসিক বহু কার্যক্রম গ্রহণ করেছে। প্রতিদিনের কার্যক্রম হিসাব দপ্তরে সংরক্ষণ ও সাপ্তাহিক কার্যক্রম হিসাব মন্ত্রণালয়ে যথাযথ ভাবে প্রেরণ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন মেয়র মো. মনিরুল হক সাক্কু বলেন, সরকার যখন যে সিদ্ধান্ত দিয়েছে। সেই ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। কাউন্সিলর, কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ নগরবাসীদের সহযোগিতার ফলে করোনা মোকাবেলা আমাদের জন্য সহজ হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানাই।