বুধবার ২১ অক্টোবর ২০২০


সড়কে কচু ও কলা গাছ!


আমাদের কুমিল্লা .কম :
24.09.2020

বরুড়ার চিতড্ডা ইউনিয়নের ওড্ডা গ্রামের সড়কে কচু, কলা ও সবজি গাছ লাগিয়েছেন স্থানীয়রা।

আবু সুফিয়ান রাসেল।।
চিতড্ডা ইউনিয়নের চান্দিনা উপজেলা ঘেঁষা এ গ্রামের সড়কটি সংষ্কার নেই দীর্ঘ কয়েক বছর। বাজার, ব্যাংক, স্কুল-কলেজে যাতায়াতে ভোগান্তি পোহাতে হয় হাজারও মানুষের। গ্রামের কাঁচা এ সড়কে প্রতীকী নয়, বাস্তবেই কলা, কচু, শিম ও চিচিঙ্গা গাছ লাগিয়েছেন স্থানীয় দেলোয়ার মিয়ার স্ত্রী। সড়কটিতে বর্ষায় কাদামাটি আর পানিতে একাকার হয়ে যায়। জনপ্রতিনিধিদের বলেও সামাধান না পেয়ে হতাশ গ্রামবাসী।
সূত্রমতে, ওড্ডা গ্রামের ভূড্ডা চৌমুহনী থেকে চৌধুরী বাড়ি পর্যন্ত সড়টিতে এক যুগের বেশি সময় কোন উন্নয়ন কাজ হয়নি। চৌতুহনী থেকে আধা পাকার কাজ শুরু হলেও ২০০ মিটার সামনে হাজী বাড়ির সামনে এসেই থমকে দাঁড়ায়। ডাক্তার শহিদুল ইসলামের বাড়ির পুকুরের পাড়টি বেহাল প্রায় দেড় যুগ। বছর কয়েক আগে পুকুরের রিটার্নিং ওয়াল হলেও মাটি দিয়ে ভরাট করা হয়নি। প্রায় সময় রিকশা পড়ে যায়। চাকা বাঁকা হয়ে যায়। অ্যাম্বুলেন্সসহ বড় যান চলাচলের উপযোগী নয়। মাওলানা আবু তাহের হুজুরের বাড়ির পাশের ছোট ব্রিজটির নিচের অংশে ফাটল ধরেছে। সড়ক থেকে অতিরিক্ত উঁচু হওয়ায় রিকশা প্রায় উল্টে যায়। সিএনজি চালিত অটোরিকশার যাত্রী নামিয়ে এ ব্রিজে উঠতে হয়। কাঁচা সড়কের প্রায় অংশে কাদামাটি। সড়কটি দ্রুত পাকা করাসহ নতুন ব্রিজ করার দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী।
রিকশা চালক মনির বলেন, এ রোডে ৩০ টাকার ভাড়া নিয়ে আসলে, এক-দেড়শো টাকার কাজ করাতে হয়। ব্রিজের এখানে রিকসা উল্টে যায়।
পুরো রাস্তা কাদা।
শাহজালাল নামে একজন পথচারি বলেন, মেম্বার চেয়ারম্যানদের বহুবার বলেছি আমরা। বলে কোন কাজ হয় নাই। শুধু ভোটের সময়, নেতাদের দেখা যায়। এখনতো আর জনপ্রতিনিধিদের ভোটও লাগে না।
স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য মো. ইউনুস মিয়া জানান, সড়কটি সর্বশেষ কবে সংষ্কার কাজ হয়েছে, আমি নিজেও জানি না। চেয়ারম্যান সাবকে বহুবার বলছি, বলে লাভ নাই। সরকার লক্ষ লক্ষ টাকা প্রতিবছর বরাদ্দ দেয়, এ টাকা কি চেয়ারম্যানই জানেন। মাসিক সভার জন্যও মেম্বারদের ডাকা হয় না। চিতড্ডার ইউনিয়নের আমার ৬নং ওয়ার্ডের মূল সড়কটি ছাড়া একটি সড়কও পাকা বা অধা পাকা নেই। এ বিষয়ে জানতে চিতড্ডা ইউনিয়নের চেয়রম্যান মো. ওমর ফারুককের ব্যক্তিগত দুটি নম্বরে কল, একাধিক ক্ষুদে বার্তা দিয়েও তার কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি।